ksrm

খেলার সময়আটককৃত আফ্রিকানরা আবাহনী-মোহামেডানে খেলেননি, দাবি ক্লাব কর্তাদের

খেলার সময় ডেস্ক

fb tw
আটককৃত আফ্রিকান নাগরিকরা বাংলাদেশের নামীদামী ক্লাবগুলোতে খেলেনি বলে জানিয়েছে ক্লাব কর্মকর্তারা। এমনকি তারা বাংলাদেশের কোন ক্লাবে খেলেছে বলেও তারা মনে করেন না। তারা জানান, ফিফা'র নিয়ম মেনেই দলে বিদেশী খেলোয়াড় অন্তর্ভুক্ত করে থাকেন।
বাংলাদেশের ঘরোয়া ফুটবলে প্রায়ই দেখা মেলে বিদেশী ফুটবলারদের। এরমধ্যে আফ্রিকানরাই বেশি। এমেকা, ওয়েডসন, সানডেরা বেশ পারফর্মও করেন ঘরোয়া ফুটবলে।
তবে বিদেশীদের অনেকেই চুক্তি শেষে দেশে ফেরেন না। অনেকেই জড়িয়ে যান বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে, এমন অভিযোগ শোনা যায় হরহামেশাই।
এবার তেমনই কয়েকজনকে আটক করেছে পুলিশ। প্রতারণা করে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগে ৫ নাইজেরিয়ানকে আটক করেছে পুলিশ। বিভিন্ন সময়ে এরা প্রিমিয়ার লিগের বিভিন্ন ক্লাবে খেলেছে বলে দাবি করেছে পুলিশের।
সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার মোল্লা নজরুল ইসলাম বলেন, 'সবাই খেলেছে। ফেনি সকারে খেলেছে, দুই-তিনজন মোহামেডানে খেলছে। একজন খেলেছে আবাহনীতে। আমরা আরও জিজ্ঞাসাবাদ করছি। আমরা ফুটবল ফেডারেশনের কাছে লিখবো যে, আপনাদের কতজন বিদেশি খেলোয়াড় আছে, কারা কারা আছে। আমাদের তদন্তের প্রক্রিয়ায় আমরা এগুলো বের করবো।'
সিআইডির এমন দাবি অস্বীকার করেছে অভিযোগকৃত আবাহনী ও মোহামেডান। ছবি দেখে কিংবা নাম শুনে এদের কাউকে চিহ্নিত করতে পারেননি সংশ্লিষ্ট ক্লাব কর্মকর্তারা। উল্টো ক্লাবের নাম ব্যবহার করে নিজেদের বাঁচাতে চাইছে প্রতারকরা, এমন অভিযোগ এনেছেন তারা।
ঢাকা আবাহনীর ম্যানেজার সত্যজিৎ দাশ রুপু বলেন, 'আমাদের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ যে খেলোয়াড়রা থাকেন তারা বিদেশ থেকে আসেন। আমরা বিমানবন্দর থেকে তাদের রিসিভ করি এবং মৌসুম শেষ করে তারা যখন বাড়ি ফিরে যায় তখন আমাদের লোগ গিয়ে তাদের বিমান বন্দরে দিয়ে আসে।'
মোহামেডান স্পোটিং ক্লাবের পরিচালক সারোয়ার হোসেন বলেন, 'ছবিতে তাদের দেখলাম এবং যে নামগুলো শুনছি এমন কোনো খেলোয়াড় মোহামেডানে কখনো খেলেনি। তারা আসলে খেলোয়াড়ের পরিচয় ব্যবহার করে সামাজিক সমস্যা সৃষ্টি করছে।'
বিদেশীদের দলে ভেড়াতে নিয়ন্ত্রক সংস্থা ফিফার কিছু নিয়মাবলী রয়েছে। সেসব নিয়মাবলী মেনে যাচাই-বাছাই করেই বিদেশী ফুটবলার নেয় ক্লাবগুলো। এমন দাবি সংশ্লিষ্টদের।
তবে দেশের ফুটবলের তথৈবচ অবস্থা হওয়ায় খুব নিচু মানের ফুটবলারদেরই নিয়ে আসা হয় এদেশে। এটি স্বীকার করেছেন ক্লাব কর্মকর্তারা।
'এরা স্ত্রী বা বান্ধবীদের দিয়ে প্রতারণা ফাঁদ তৈরি করে'

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
Latest News
আপনিও লিখুন
ছবি ভিডিও টিভি
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop