বাণিজ্য সময়জামদানি ও ইলিশের পর এবার জিআই পণ্যের স্বীকৃতি পাচ্ছে খিরসাপাত আম

বাণিজ্য সময় ডেস্ক

fb tw
জামদানি ও ইলিশের পর এবার দেশের তৃতীয় ভৌগোলিক নির্দেশক বা জিআই পণ্য হিসেবে নিবন্ধিত হতে যাচ্ছে চাঁপাইনবাবগঞ্জের ‘খিরসাপাত’ আম।
পেটেন্ট ডিজাইন অ্যান্ড ট্রেডমার্ক অধিদপ্তর বলছে, এ সংক্রান্ত গেজেট প্রকাশের প্রক্রিয়া চলছে। খুব শিগগির তা জিআই জার্নালে প্রকাশ করা হবে।
নিবন্ধন পেলে সুস্বাদু এই ফল 'চাঁপাইনবাবগঞ্জের খিরসাপাত আম' নামে বিশ্ববাজারে পরিচিতি পাবে। এতে উপকৃত হবেন স্থানীয় আম চাষি ও ব্যবসায়ীরাও।
শুরুটা প্রায় ২শ' বছর আগে। ময়মনসিংহের মহারাজা সুতাংশু কুমার আচার্য্য বাহাদুর চাঁপাইনবাবগঞ্জের কানসাট উপজেলায় গড়ে তোলেন একটি আমবাগান। সেই বাগানেই অন্যান্য উৎকৃষ্ট জাতের আমের সাথে চাষ হতো খিরসাপাত।
এছাড়া ১৯৫৫ সালে স্থানীয় লোকসংগীত আলকাপ গানের বন্দনা ছড়ায় উল্লেখ রয়েছে খিরসাপাত আমের কথা।
বর্তমানে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার ৫টি উপজেলায় বাণিজ্যিকভাবে চাষ হচ্ছে সুস্বাদু এই জাতটি।
অভ্যন্তরীণ চাহিদা মিটিয়ে বর্তমানে ইউরোপ ও মধ্যপ্রাচ্যসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে রপ্তানি হচ্ছে বাংলাদেশের আম।
সম্ভাবনা বিবেচনায় আমের স্বত্ব সুরক্ষার উদ্যোগ নেয় বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইন্সটিটিউট। এরই অংশ হিসেবে ২০১৭ সালের ২ ফেব্রুয়ারি চাঁপাইনবাবগঞ্জের খিরসাপাত আমকে জিআই পণ্য হিসেবে নিবন্ধনের আবেদন করে সংস্থাটি।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ আঞ্চলিক উদ্যানতত্ত্ব গবেষণা কেন্দ্রের ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো. শরফ উদ্দিন বলেন, 'প্রথমে আমরা সাবমিট করেছি। তারা আবার বলছেন, না, এইভাবে একটু দেখেন, কিংবা অনন্য বৈশিষ্ট্যটা এমন হওয়া উচিৎ। এইভাবে করতে করতে আমরা প্রায় একবছর ধরে কাজটা করলাম।আশা করছি, ভৌগলিক নির্দেশক পণ্য হিসেবে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার আমের প্রথম জাত হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হবে।'
নিবন্ধন পেলে পরিচিত বাড়ার সাথে সাথে বিশ্ববাজারে ভালো দাম পাওয়ার আশা স্থানীয় আম বাগান মালিকদের।
গেল একবছর ধরে চাঁপাইনবাবগঞ্জে খিরসাপাত আম চাষের ঐতিহাসিক তথ্য প্রমাণাদি যাচাই বাছাই শেষে এখন অপেক্ষা গেজেট প্রকাশের।
পেটেন্ট ডিজাইন অ্যান্ড ট্রেডমার্কস অধিদপ্তরের রেজিষ্ট্রার সানোয়ার হোসেন বলেন, 'আমরা জার্নাল চূড়ান্ত করে ছাপার জন্য বাংলাদেশ সরকারের বিজি প্রেসে পাঠিয়েছি। ছাপানোর তারিখ থেকে আমরা দু’মাস অপেক্ষা করবো, কারও কোন আপত্তি থাকলে সেটা শোনার জন্য। কারও আপত্তি না থাকলে খিরসাপাতকে নিবন্ধন দিতে পারবো।'
বর্তমানে দেশের মোট উৎপাদিত আমের ৩০ ভাগই খিরসাপাত। প্রতিবছর রপ্তানি হওয়া আমের মধ্যে শীর্ষেও রয়েছে এই জাতটি।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop