শেয়ার বাজারপুঁজিবাজারের ধস অব্যাহত, হতাশ বিনিয়োগকারীরা

ওয়েব ডেস্ক

fb tw
somoy
কয়েকদিনের ধারাবাহিকতায় গতকালও সূচকের নিম্নমুখী প্রবণতায় শেষ হয় ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের লেনদেন। সাধারণ বিনিয়োগকারীরা হতাশা প্রকাশ করে বলেন একটি মহলের কারসাজিতেই বাজারের এমন নাজুক অবস্থা। পুঁজিবাজার বিশ্লেষকরা বলছেন বাজারে বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের আর্থিক ভিত্তির দুর্বলতাই অস্থিরতার জন্য দায়ী। এদিকে ঢাকা ব্রোকারেজ অ্যাসোসিয়েশন বলছে, মুদ্রাবাজারের অস্থিরতার প্রভাব পড়েছে পুঁজিবাজারে।
গতমাসের দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকেই মুদ্রানীতি সামনে রেখে পুঁজিবাজারে লেনদেন এবং সূচকের নিম্নমুখী প্রবণতা দেখা যায়। ২৯ জানুয়ারি মুদ্রানীতি ঘোষণার সপ্তাহে প্রধান সূচক ডিএসইএক্স কমে ৯৪ পয়েন্ট। গতকাল একদিনে কয়েকবছরের রেকর্ড ১শ ৩৩ পয়েন্ট সূচক পতনের পর আজ শুরুতে ডিএসই'র লেনদেন ও সুচকে কিছুটা চাঙ্গাভাব থাকলেও তা ধরে রাখতে পারেনি বাজার। অল্প সময়ের মধ্যে সূচকের পতন ঘটে ১শ ১৭ পয়েন্ট পর্যন্ত। যা মিনিটে মিনিটে ওঠানামা করতে দেখা যায়।
পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্তির পর সবচে খারাপ অবস্থানের প্রতিষ্ঠানগুলো জেড শ্রেণির। বেশি মুনাফার আশায় এসব শেয়ারে বিনিয়োগ বিপর্যয় টেনে আনে বলে মনে করেন এই বাজার বিশ্লেষক।
মুদ্রানীতিতে বিভিন্নভাবে বাজারে অর্থপ্রবাহ কমানো হয়েছে, এছাড়া সঞ্চয়পত্র ও ব্যাংক আমানতের চাপ পুঁজিবাজারের জন্য নেতিবাচক বলে মনে করেন ঢাকা ব্রোকারেজ অ্যাসোসিয়েশনের এই নেতা।
সোমবার দেশের সবচে বড় পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে লেনদেন হয় ৪শ৪০ কোটি টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ড। দর হারিয়েছে ১শ ৮৬ টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop