পশ্চিমবঙ্গ শতশত লেখা চুরি গেছে শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়ের,তবে..

সুব্রত আচার্য

fb tw
একবার-দুবার নয় জীবনে এগারো-বারো বার বাসা বদল করতে হয়েছে দুই বাংলার জনপ্রিয় কথা সাহিত্যিক শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়কে। আর এই বাসা বদল করতে গিয়ে বহু মূল্যবান সম্পদ খুইয়েছেন ’যাও পাখির’ শ্রষ্ঠা।
বাসা বদলের সময় চোরের হাত-সাফাইয়ে পড়েছিল তার লেখা। চুরি বা হারিয়ে যাওয়া লেখার সংখ্যাটা সঠিক কত বলতে পারছেন না স্বয়ং লেখকও।
তবে এর মধ্যে ৬টি উপন্যাস, ৬০টি ছোট গল্প, ১৯টি খেলা বিষয়ক প্রবন্ধ, ১০ টি সাহিত্য বিষয়ক প্রবন্ধ আছে। স্মৃতিচারণ, সিনেমা বিষয়ক, তির্যক সমালোচক, রম্য এবং আধ্যাত্মিক বিষয়ক প্রায় অর্ধশত লেখা চুরি বা হারিয়ে গিয়েছে কাকা বাবুর লেখকের।
সম্প্রতি সময়নিউজ.টিভিকে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে লেখক নিজেই স্বীকার করলেন অপ্রকাশিত জীবনের চরম সত্য এই ঘটনার কথা। তবে আশার কথাও শুনিয়েছেন লেখক। শতশত হারানো বা চুরি যাওয়ার মধ্যে বেশ কিছু মূল্যবান লেখা সম্প্রতি পাওয়া গিয়েছে। আর সেই হারিয়ে যাওয়া লেখা নিয়ে এক হাজার ২০০ পৃষ্ঠার ’হারিয়ে যাওয়া লেখা’ শিরোনামের দুটি বইও প্রকাশ করেছে কলকাতার প্রখ্যাত প্রকাশনী সংস্থা ’পত্রভারতী’।
কি বললেন তার ’হরিয়ে যাওয়া লেখা’ নিয়ে দুই বাংলার জনপ্রিয়তম সাহিত্যিক শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায় সময়নিউজ.টিভিকে। চলুন, হুবহু শুনি সেই কথা।
সময়নিউজ.টিভি : এতো গুলো লেখা হারিয়ে কি করে গেলো ?
শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায় : প্রথম কথা হচ্ছে আমাকে এগারো-বারো বার বাসা বদল করতে হয়েছে। আমি এক সময় মেচ-হোস্টেলে থাকতাম বোর্ডিং হাউজে থাকতাম সেই সময় আমার লেখা গুলোর ফাইল কপি রাখতাম সেই অনেকগুলোই চুরি হয়ে গেছে; হারিয়ে গেছে। তাছাড়া আমি একটু গা ছাড়া আছি। খুব একটা সেব্যাপারে যত্নবানও নই। যে কারণে লেখা গুলো একদম, টোটালি লস্ট। তার মধ্যে বেশ কিছু লেখা পাওয়া গেছে। তাও আমার মনে হয় এখনো বেশ কিছু লেখা হারিয়েই আছে। তাদের আর ফিরে পাওয়া যাবে বলে মনে হয় না। তবে যদি ভাগ্য ক্রমে পাওয়া যায় তবে এই রকম আবার ’হারিয়ে যাওয়া লেখা’ বের হবে। তবে অনেক লেখা বাসা বদলের কারণেই হারিয়েছে বেশি।
সময়নিউজ.টিভি : এর মধ্যে বাংলাদেশের কোনও লেখা আছে ?
শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায় : বাংলাদেশের লেখা তো আমি আলাদা করে কিছু লিখিনা। যা লিখি তা হয়তো কোনও কোনও কাগজে ছাপা হয়েছে কখনো, বাংলাদেশে আমি খুব বেশি লিখিনি। এর কারণ কিছুটা দুরত্বগত ব্যাপার, টাকাপয়সার ব্যাপার থাকে অনেক সময়। নানা রকম করণেই হয়তো বাংলাদেশের জন্য আমি খুব বেশি একটা লিখিনি। তবে এক-আধটা লেখা যদি থেকে থাকে সেটা হয়তো এই হারিয়ে যাওয়ার তালিকা থাকতেই পারে।
সময়নিউজ.টিভি : বই পাইরেসির বিষয়ে সুনীল দাকে দেখা গিয়েছে সোচ্চার হতে, আপনিও সোচ্চার- আদৌ কি পাইরেসি বন্ধ হয়েছে ?
শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায় : কি করে বন্ধ হবে না। পাইরেসি তো এখন দুষ্টু ক্ষতের মতো। সেটা বেড়েই চলে। পাইরেসি একবার শুরু হলে কি বন্ধ হয়? এখন তো পাইরেসি এখানেও (পশ্চিমবঙ্গেও) হচ্ছে। সেটার জন্য আমরা দুশ্চিন্তার মধ্যে আছি। কি হবে না হবে- দেখা যাক। 
 
#কলকাতা অফিস 
 
 
 

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop