ksrm

পশ্চিমবঙ্গদেশভাগ ও মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি 'ডিজিটাল আর্কাইভ' হচ্ছে

কলকাতা অফিস

fb tw
ভারতের নেতাজি মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় ও খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌথ উদ্যোগে 'বাংলার পার্টিশন ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক তথ্য সংগ্রহ করে 'ডিজিটাল আর্কাইভ' করার উদ্যোগ শুরু হয়েছে। একটি গণ-গবেষণা প্রকল্প হিসাবে এই কাজ শুরু হয়েছে বেশ কয়েকমাস আগেই। চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে যে তথ্য সংগ্রহ করা হবে, সেটা ডিজিটাল আর্কাইভে যুক্ত করা হবে।
গতকাল শনিবার কলকাতার সল্টলেকে 'আবুল মনসুর আহমদ ও সমকালীন বাংলা: ইতিহাস ও সাহিত্য’ শীর্ষক এক আন্তর্জাতিক সেমিনারে এই তথ্য প্রকাশ করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের মানববিদ্যা অনুষদের অধিকর্তা মননকুমার মন্ডল।

আলোচনার বিষয় ব্যাখ্যা করতে গিয়ে ওই অধিকর্তা আরও বলেন, সরকারি মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের বিদ্যায়তনের পরিসর কত ব্যাপক হতে পারে- দেশভাগ ও মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি ও উপাদান সংগ্রহের এই উদ্যোগ সেটা প্রমাণ করছে। গবেষণা প্রকল্পের মাধ্যমে সংগ্রহীত তথ্য গুলো নিয়ে একটা ডিজিটাল আর্কাইভ করা হবে। এবং পার্টিশন ও মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি ও লেখালেখির হদিশও খোঁজা হবে।

এই প্রকল্পটির আরও একটি উদ্দেশ্য হচ্ছে, এর মধ্যদিয়ে আমরা সামনে আনতে চাইছি এমন কিছু সাহিত্যিক ব্যক্তিত্বকে যারা ১৯৪৭ থেকে ১৯৭১ পর্যন্ত তাদের লেখনীর মাধ্যমে বাঙালি পাঠককে আলোড়িত করেছেন। আবুল মনসুর আহমদ এমন একজন সাহিত্যিক এবং রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব যাকে আজ পশ্চিমবঙ্গীয় পার্টিশন আলোচনায় নতুন করে দেখা প্রয়োজন বলে এই প্রকল্প মনে করে।

শনিবার স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে দশটায় সেতাজি সুভাষ মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের সল্টলেক ক্যাম্পাসে একদিনের এই সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। সেমিনারের উদ্বোধন করেন সাহিত্যিক ড. সেলিনা হোসেন। এ সময় আবুল মনসুর আহমদের পুত্র ও দ্য ডেইলি স্টার সম্পাদক মাহফুজ এনাম, ভারতের কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক সাধন চক্রবর্তী,  নেতাজি সুভাষ মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য শুভ শঙ্কর সরকার এবং নেতাজি সুভাষ মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের মানববিদ্যা অনুষদের অধিকর্তা মমনকুমার মন্ডল মঞ্চে উপবিষ্ট ছিলেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে দুই দেশের জাতীয় সঙ্গীত বাজানো হয়।
সেমিনারের প্রথম পর্বে ’দেশভাগ, হিন্দু-মুসলমান বিরোধ ও আবুল মনসুর আহমদের ব্যঙ্গরচনা’ শীর্ষক প্রবন্ধ পাঠ করেন বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. চেঙ্গীশ খান। সমকালীন পূর্ববঙ্গ ও আবুল মনসুর আহমদের কথাসাহিত্য’ শীর্ষক আরেকটি প্রবন্ধ যৌথভাবে পাঠ করেন যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ড. বরেন্দু মন্ডল
অনুষ্ঠানের উদ্বোধক সাহিত্যিক সেলিনা হোসেন বলেন, ২০১৮ সালে আমি বলবো আবুল মনসুর আহমদ কৈশরে বয়সেই এতো গভীরভাবে ভেবেছিলেন, সেই চেতনাকে ধারণ করেই যেমন তিনি বিস্তৃত করেছেন নিজের পরিসর, বিস্তৃতি করেছেন বাঙালি সামাজিক চেতনা বোধের জায়গা, বিস্তৃত করেছেন বাংলা সাহিত্যিকে বাঙালি মুসলমানের জীবনের পটভূমিকে চরিত সাহিত্যকে। যদি সাহিত্য একটি জনগোষ্ঠীর উত্তরণের অংশ হয়ে দাঁড়ায়। সেই জায়গাটি তৈরি করার জন্য তিনি নিজেকে নিয়োজিত করেছিলেন এবং তার অনিক কিছু পরিচর্যার জায়গা ছিল, রাজনীতি, সংস্কৃতি, অর্থনীতি নানা জায়গা তিনি তার চিন্তা-ভাবনা সব কিছু নিয়োগ করেছেন।
এই সময় তিনি ১৯৩৫ সালে তার প্রকাশিত আয়না গ্রন্থের উদাহরণও টানেন।

দ্য ডেইলি স্টার সম্পাদক মাহফুজ আনাম নেতাজি সুভাষ মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের এই উদ্যোগের জন্য সংশ্লিষ্টদের ধন্যবাদ দিয়ে বলেন, তারা পার্টিশন ও মুক্তিযুদ্ধ গবেষণা প্রকল্পের মতো বড় একটা কাজ হাতে নিয়েছে। সেই কাজের অংশ হিসাবেই প্রথমবার আবুল মনসুর আহমদের সাহিত্য, তার রাজনীতি নিয়ে এই ধরণের একটি আন্তর্জাতিক সেমিনারের আয়োজন করেছে।
মাহফুজ আনাম এসময় তার বাবার কলকাতার জীবন নিয়ে সংক্ষিপ্ত বর্ণনাও করেন।

কলকাতা প্রেসক্লাবের সভাপতি সাংবাদিক  স্নেহাশিস শূর। দুপুরের পর অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বের ’আবুল মনসুর ও বাঙালি মুসলিম মানসের ক্রমবিবর্তন (১৯৪০-১৯৭০)’ শীর্ষক প্রবন্ধের পাঠ বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের অধ্যাপক ড. রাজর্ষি চক্রবর্তী।
এখন আবুল মনসুর আহমদ কতটা প্রাসঙ্গিক সেই বিষয়ে আলোচনা করেন কবি ও আবুল মনসুর আহমদ স্মারকগ্রন্থের সম্পাদক ইমরান মাহফুজ। আলোচনায় অংশ নেন কুষ্টিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক হাবিব আর রহমান।

সেমিনারের প্রবন্ধে সাংবাদিক অংশুমান শূর বলেন, রাজনীতি সাহিত্য এবং সাংবাদিকতার ত্রিধারা যুক্ত মানুষ ছিলেন আব্দুল মনসুর আহমদ। প্রথমে তার সাহিত্যিক হওয়ার স্বপ্ন , এরপর সাংবাদিক এবং তার রাজনৈতিক জীবন। তিন টি ধারার বহমান হওয়া বর্ণময় জীবনের অধিকারী ছিলেন তিনি।

অধ্যাপক সাধণ চক্রবর্তী তার প্রবন্ধে বলেন, আমরা কিছু ভুল করেছি। ইতিহাস যদি আমরা ঠিক মতো পড়াশোনা করি, আমাদের যে ইতিহাস যেখানে যদিও কোনও ভুল থাকে সেটাকে শুধরে নেওয়ার সুযোগ এমন আলোচনায় থাকে। তৎকালীন ইতিহাস ও সাহিত্যের মধ্যদিয়ে তার ভুল গুলো আমরা খুঁজে পাবো হয়তো বিশ্লেষণ করলে আমরা খুঁজে পাবো। আমরা যারা সমাজ নিয়ে ভাবি, বিশ্ব নিয়ে ভাবি তাদের কাছে এই ধরণের আলোচনা একটা বড় পাওয়া।

নেতাজি সুভাষ মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক শুভ শঙ্কর সরকার বলেন, আবুল মনসুর আহমদ-এর মতো একজন দূরদর্শী মানুষের ভূমিকা ইতিহাসে আছে সেটাকে বর্তমান প্রজন্মের কাছে পৌঁছে দিতে হবে।
কবি ইমরান মাহফুজ তার প্রবন্ধে 'আজও কেন অখণ্ড ভারতের আবুল মনসুর আহমেদ প্রাসঙ্গিক' এই বিষয়ে আলোচনা করেন। তিনি বলেন, আজ দাঁড়িয়ে কথা বলছি, একজন হিন্দু আমাকে যে ভাই বলছে; এই সমতা দেওয়ার কাজ করেছেন আবুল মনসুর আহমদ।

অনুষ্ঠানের মধ্যহ্নভোজের পর আবুল মনসুর আহমদের ওপর নির্মিত একটি ১৫ মিনিটের একটি তথ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়।  
 
 

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
Latest News
আপনিও লিখুন
ছবি ভিডিও টিভি
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop