বাণিজ্য সময়৪ বছরেও বাস্তবায়ন হয়নি দেশের একমাত্র জ্বালানি তেল পরিশোধনাগার

বাণিজ্য সময় ডেস্ক

fb tw
somoy
নীতিগত সিদ্ধান্তের চার বছর পার হলেও এখনো বাস্তবায়ন শুরু হয়নি দেশের একমাত্র জ্বালানি তেল পরিশোধনাগার ইস্টার্ন রিফাইনারির দ্বিতীয় ইউনিটের নির্মাণ কাজ। নীতিনির্ধারকরা বলছেন- অর্থ সংকটের কারণেই টেকসই জ্বালানি নিরাপত্তা নিশ্চিতের গুরুত্বপূর্ণ এই প্রকল্পের কাজ গতি হারিয়েছে। তবে, আশার কথা হলো-সম্প্রতি এর সম্ভাব্যতা যাচাই শেষ হয়েছে। রিফাইনারি সম্প্রসারণের এই প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে, জ্বালানি তেল মজুদ ও পরিশোধনের সক্ষমতায় আরো এগিয়ে যাবে দেশ; আশা সংশ্লিষ্টদের।
১৯৬৮ সালে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে স্থাপিত হয় এই অঞ্চলের একমাত্র জ্বালানি তেল পরিশোধনাগার ইস্টার্ন রিফাইনারি লিমিটেড।
তখন থেকেই বছরে মাত্র ১৫ লাখ মেট্রিক টন তেল পরিশোধনের সক্ষমতা নিয়ে দেশের জ্বালানি চাহিদা পূরণ করে আসছে প্রতিষ্ঠানটি। যদিও এরই মধ্যে দেশের বাৎসরিক চাহিদা ৬০ লাখ মে. টনে পৌঁছালেও সেই হিসেবে উৎপাদন বাড়েনি দেশের একমাত্র এই রিফাইনারির। পরিশোধন পদ্ধতি, তেলের প্রকৃতি ও মজুদের পরিমাণ বিবেচনায় সনাতন এই প্ল্যান্টটি ক্রমেই অপর্যাপ্ত হয়ে উঠছে দেশের জন্য।
সক্ষমতা বাড়াতে পুরনো এই ইউনিটটির পাশেই ৩০ লাখ মেট্রিক টন পরিশোধন ক্ষমতাসম্পন্ন নতুন ইউনিট নির্মাণে চার বছর আগে ফ্রান্সের প্রতিষ্ঠান টেকনিপের সাথে সমঝোতা হলেও কাজ এগোয়নি খুব একটা।
নীতিনির্ধারকরা জানাচ্ছেন- অর্থ সংকুলান না হওয়ার কারণে প্রকল্পটি থমকে গেলেও শিগগিরই এটি নির্মাণে ফ্রান্সের সাথে চূড়ান্ত চুক্তি করবে বাংলাদেশ। অন্যদিকে নির্মাতা প্রতিষ্ঠানের দাবি, অন্তত চার বছরের আগে এই প্ল্যান্ট চালু হবার সম্ভাবনা খুবই দুষ্কর।
ইআরএল ও টেকনিপ এর নির্বাহী চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ বলেন, নানাবিধও কারণে এটি হয়নি। সেই সঙ্গে আমাদের সক্ষমতার প্রশ্ন, তহবিল যোগাড়ের প্রশ্ন, এখনো যে পুরো টাকা যোগাড় হয়ে গেছে তা নয়।
গেল কয়েক বছরে আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের অব্যাহত দরপতনের সুযোগে লাভের মুখ দেখেছে বিপিসি। তবুও নতুন রিফাইনারির নির্মাণে অর্থ সংকটের বিষয়ে প্রতিষ্ঠানটি বলছে, প্রকল্পটি বাস্তবায়নের পুরোপুরি আর্থিক সক্ষমতা নেই তাদের। যদিও সরকারের পক্ষ থেকে চলতি বছরের মধ্যেই প্রকল্পটির কাজ শুরু করার কথা বলা হচ্ছে।
বিপিসি চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম বলেন, নিকট অতীতেও অর্থ কষ্টের ভিতরে থেকে নতুন করে বড় বিনিয়োগের স্বপ্ন দেখা সম্ভব নয়। দিনকরা বিনিয়োগ দিয়ে লাভ বের করা যায় না।
বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী  নসরুল হামিদ বলেন, নকশা করে ফেলেছি, এবং তাদেরকে দুই মাসের সময় দিয়েছি। তারা যেন সমঝোতার মাধ্যমে এটি সম্পূর্ণ করতে পারে।
ইআরএল-২ বাস্তবায়িত হলে, তেল মজুদে টেকসই সক্ষমতা অর্জনের পাশাপাশি দেশেই প্রস্তুত হবে আন্তর্জাতিক ইউরো ফাইভ গ্রেডের জ্বালানি তেল।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop