তথ্য প্রযুক্তির সময়মোবাইল ফোন খাতে দরকার দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা

ইমতিয়াজ আহমেদ

fb tw
বর্তমান শুল্ক কাঠামো অনুযায়ী দেশে মোবাইল ফোন উৎপাদন ও সংযোজনের শুল্ক পার্থক্য খুব কম। তাই বিপুল পরিমাণ বিনিয়োগ করে উৎপাদনের চেয়ে সংযোজন বেশি লাভজনক হওয়ায় দেশে মোবাইল ফোন উৎপাদনে বিনিয়োগকারীরা নিরুৎসাহিত হবে বলে মনে করেন এ খাত সংশ্লিষ্টরা। তাই দেশে মোবাইল ফোন উৎপাদনের লক্ষ্যে নগদ প্রনোদনা সহ একটি যৌক্তিক শুল্ক কাঠামো এবং দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা থাকা জরুরী বলে মনে করেন তারা।  
 
বর্তমান সময়ে তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহারের সব থেকে বড় মাধ্যম ধরা হয় মোবাইল ফোনকে। তাই গেল অর্থবছরে মোবাইল ফোন কারখানা স্থাপনের লক্ষে দেয়া হয় বেশ কিছু কর নীতি সহায়তা। ২০১৭-১৮ অর্থবছরের জন্য দেশে মোবাইল ফোন সংযোজন করলে তার উপর থেকে সম্পূর্ন ভ্যাট প্রত্যাহার সহ অন্যান্য কর সুবিধা দেয়া হয় উদ্যোক্তাদের। এর পরেই বেশ কয়েকটি দেশিয় মোবাইল ব্রান্ড দেশে মোবাইল ফোন সংযোজনের কারখানা স্থাপন করলেও বছর ঘুরতেই পল্টে যায় সেই চিত্র। চলতি অর্থবছরের বাজেটে দেশে মোবাইল সংযোজনের উপর ৫ শতাংশ ভ্যাট আরোপ করা হয়। যা দেশে মোবাইল সংযোজন শিল্প বিকাশে বড় বাধা বলে মনে করেন দেশিয় উদ্যোক্তারা।
ট্রানশানের প্রধান নির্বাহী রেজওয়ানুল হক বলেন, ডিজিটালাইজেশনের গতি বাড়ানো দরকার। এখনো ট্যাক্সটা বেশি । আমাদের ৫ ১০ বছরের জন্য কনক্রিট প্লান করা প্রয়োজন।
 
অন্যদিকে সম্পূর্ন তৈরি হ্যান্ডসেট আমদানীর তুলনায় দেশে সংযোজন করলে ১৬ শতাংশ শুল্ক পার্থক্য থাকলেও দেশে উৎপাদন করলে সংযোজনের তুলনায় তাদের শুল্ক পার্থক্য মাত্র ৭ দশমিক ৫ শতাংশ। তাই বিপুল পরিমাণ বিনিয়োগ করে উৎপাদনের চেয়ে সংযোজন বেশি লাভজনক হওয়ায় দেশে মোবাইল ফোন উৎপাদেনে বিনিয়োগকারীরা নিরুৎসাহিত হবে বলে মনে করেন এ খাত সংশ্লিষ্টরা।
শুল্ক আমদানী করা হ্যান্ডসেট দেশে সংযোজন দেশে তৈরি
১. আমদানি শুল্ক ১০ শতাংশ ৭ শতাংশ ৩ শতাংশ
২. ভ্যাট ১৫ শতাংশ ৫ শতাংশ ০ শতাংশ
৩. উৎস কর ২ শতাংশ ২.৫ শতাংশ ৪ শতাংশ
৪. সারচার্জ ২ শতাংশ ০ শতাংশ ০ শতাংশ
 ওয়ালটনের উপ নির্বাহী পরিচালক উদয় হাকিম বলেন, বাজেটের সর্বশেষ যে রূপ দেখেছি তাতে মনে হয় আমাদের ৮ শতাংশ গ্যাপ আছে এসেম্বলিং ও ম্যানুফ্যাকচারের। আমাদের ম্যানুফেকচারারদের জন্য অন্তত ১৫ শতাংশ গ্যাপ তৈরী করা উচিত ছিল।
যে কোন শিশু শিল্পের সহায়তায় সেই খাতকে ধারাবাহিক সহায়তা দেয়া জরুরী উল্লেখ করে এ খাত সংশ্লিষ্টার বলছেন দেশের অভ্যন্তরে শতভাগ শিল্পায়নের লক্ষ্যে একটি ধারাবাহিক নীতি সহায়তা এবং দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনা নেয়া জরুরী।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop