ফুটবল বিশ্বকাপনান্দনিকতার স্মারক হিসেবে সংরক্ষিত হবে স্টেডিয়ামগুলো

সময় সংবাদ

fb tw
somoy
শুধু বিশ্বকাপের কথা মাথায় রেখে রাশিয়ায় করা হয়েছিল স্টেডিয়ামের অস্থায়ী স্ট্যান্ডগুলো। পরে সরিয়ে নেয়ার কথা থাকলেও এখন তা সরাতে নারাজ দেশটির স্থানীয় সরকার। কারণ বাড়তি স্ট্যান্ডগুলো সরাতেও প্রচুর অর্থ ব্যয় করতে হবে সরকারকে। কিন্তু, মাঠ ব্যবহারকারীরা বলছে ফুটবল ছাড়াও স্টেডিয়ামে আরো অনেক খেলা হয়। যা, বাড়তি স্ট্যান্ডগুলো থাকলে খেলা অসম্ভব।
 পর্দা নেমেছে রাশিয়া বিশ্বকাপের। কিন্তু, দ্যা গ্রেটেস্ট শো অন আর্থের জন্য নান্দনিক সব স্টেডিয়াম তৈরি করেছিল রাশিয়ার সরকার। যেখানে মাস ব্যাপী হাজারো দর্শকের পদচারণায় মুখোরিত ছিল স্টেডিয়ামের স্ট্যান্ডগুলো। কারো স্বপ্ন হয়েছে বাস্তব। আবার কেউবা এই গ্যালারি থেকে বিদায় নিয়েছে অশ্রুশিক্ত নয়নে।

এসব স্টেডিয়ামের গ্যালারিসহ বিভিন্ন স্ট্যান্ড তৈরি করা হয়েছিল অস্থায়ী হিসেবে। যার কারণে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও সমালোচনা হয়েছে ইয়েতেরিনবার্গ স্টেডিয়ামের স্ট্যাড নিয়ে। তবে এখন আর সে সব নিয়ে ভাবছে না রাশিয়া। টুকটাক সংস্কার কাজ করে অপরিবর্তীত রাখতে চান স্টেডিয়ামগুলো। এছাড়া বিশ্বকাপ স্মৃতি ধরে রখতেও স্টেডিয়ামগুলো রাখা একই রকম রাখা দাবী অনেকের।
 
সেরগেই শভিন্দ বলেন,  প্রতি বছর স্টেডিয়ামটি রক্ষণাবেক্ষণ করতে ৪ দশমিক ৮ থেকে ৫ দশমিক ৬ মিলিয়ন ডলার লাগবে। তার জন্য স্থানীয় সরকারকে সগযোগীতা করা হবে। কিন্তু আমরা স্ট্যান্ডগুলোসরাতে চাই না। এছাড়া, এটি আমাদের ঐতিহ্য বহন করবে।
 
স্থানীয় একজন বাসিন্দা বলেন, দেখুন, এটি শুধু একটি স্টেডিয়াম নয়। এটি অনেক বছর থাকবে। এখানে যে বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হয়েছে, সেটা মানুষ মনে রাখবে ও দেখতে আসবে।
ইয়েতেরিনবার্গ স্টেডিয়ামটি বিশ্বকাপের জন্য প্রস্তুত করতে ২০৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার খরচ হয়েছে। এখন এখান থেকে স্ট্যানগুলো সরাতে হলে আরো ১৬ মিলিয়ন ডলার লাগবে। কিন্তু, স্টেডিয়ামের বাড়তি স্ট্যান্ডগুলো না সরালে অন্য খেলা সম্ভব হবে না। এ নিয়ে সৃস্ট হয়েছে জটিলতা।
 
ইয়েভজেনি রইজম্যান বলেন, দেখুন, টাকা ব্যয় করার আরো অনেক জায়গা আছে। আমরা এখানে স্ট্যান্ড সরানো জন্য এত টাকা ব্যয় করতে চাই না। আমরা বরং ছোটদের ফুটবল ও জাতীয় ফুটবল দলের জন্য ব্যয় করবো। যাতে আমরাও একদিন চ্যাম্পিয়ন হতে পারি।
এছাড়া বিশ্বকাপের পর পর্যটকদের আকৃষ্ট করতে অবকাঠামোগত উন্নয়নের কাজ করতে চায় রাশান সরকার। 

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop