ধর্মএক মণ্ডপেই ৭০১ প্রতিমা নিয়ে দুর্গোৎসব

আলী আকবর টুটুল

fb tw
somoy
সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে বাগেরহাটের মণ্ডপে মণ্ডপে চলছে প্রতিমা তৈরির কাজ। ভাস্কররা (কারিগররা) রাতদিন ব্যস্ত আছেন প্রতিমা তৈরির কাজে। জেলার অধিকাংশ মণ্ডপে মাটির কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। অধিকাংশ মণ্ডপে মাটির কাজ শেষ করে কারিগররা প্রতিমায় রঙের কাজ শুরু করেছেন প্রতিমা কারিগররা।
আগামী ৯ অক্টোবর মহালয়ার মধ্যে দিয়ে শারদীয় দুর্গোৎসবের শুভ সূচনা হবে। দেবীদুর্গা এবছর ঘোড়ায় চড়ে আসবেন আর যাবেন দোলায়। ১৫ অক্টোবর থেকে ১৯ অক্টোবর দুর্গাপূজা চলবে।
গত কয়েক বছর ধরে বাগেরহাট তথা দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে বড় দুর্গাপূজাটি অনুষ্ঠিত হয় ব্যক্তি উদ্যোগে। বাগেরহাট সদর উপজেলার খানপুর ইউনিয়নের হাকিমপুর গ্রামের সিকদারবাড়ি। বাগেরহাটে দুর্গা উৎসব মানেই সিকদারবাড়ির দুর্গাপূজা। গত ৮ বছর ধরে লিটন সিকদার নামে এক ব্যবসায়ী মহাধুমধামে দুর্গাপূজার আয়োজন করে আসছেন। প্রতি বছর সেখানে প্রতিমার সংখ্যা বেড়েই চলেছে। গত বছর ছিল ৬৫১টি প্রতিমা। এ বছর এই মণ্ডপে ৭০১টি প্রতিমা তৈরি করা হয়েছে।
ভাস্কর বিজয় কৃষ্ণ বাছাড় বলেন, পবিত্র ধর্মগ্রন্থ রামায়ণ ও মহাভারতের চার যুগের দেবদেবীর নানা কাহিনী অবলম্বনে প্রতিমা তৈরি করা হয়েছে। পাঁচ মাস ধরে ১৫ জন কারিগর তাদের নিপুণ হাতে প্রতিমা তৈরির কাজ করে চলেছেন। শেষ সময়ে রং তুলির কাজ পুরোদমে চলছে। তাদের এখন দম ফেলার সময় নেই।
স্থানীয়রা বলেন, 'সিকদারবাড়ির এমন দুর্গাপূজা আয়োজনের জন্য আমরা দারুণ খুশি। সিকদারবাড়ির পূজার জন্য আজ আমাদের হাকিমপুর গ্রাম দেশবিদেশে সবার কাছে পরিচিত হয়েছে। আমরা সব ধর্মের মানুষ এই দুর্গোৎসবে মিলিত হই। দুর্গোৎসব যাতে শান্তিপূর্ণভাবে শেষ হয় তারজন্য আমরা সবাই সহযোগিতা করে থাকি।'
এছাড়া বাগেরহাট সদরের কাড়াপাড়া ইউনিয়নের কাড়াপাড়া গ্রামের রামকৃষ্ণ সেবাশ্রমের সার্বজনীন পূজা মন্দির, চুলকাঠি বাজারের বণিকপাড়া সার্বজনীন পূজা মন্দির, পোলঘাট সার্বজনীন পূজা মন্দির এবং ফকিরহাট উপজেলার বেতাগা ইউনিয়নের বেতাগা মমতলা সার্বজনীন পূজা মন্দগুলোতে বেশি সংখ্যক প্রতিমা তৈরির প্রতিযোগিতা চলছে।
বাগেরহাট জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক লিটন সরকার বলেন, বাগেরহাট জেলার নয়টি উপজেলায় এবছর  ছয় শতাধিক মণ্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে। প্রতি বছরের মতো এবছরও জাকজমকপূর্ণভাবে উদযাপিত হবে। দুর্গাপূজা মানেই এখন বাগেরহাট সদর উপজেলার খানপুর ইউনিয়নের হাকিমপুর গ্রামের সিকদারবাড়ির দুর্গাপূজা। উৎসবে শান্তিপূর্ণ পরিবেশ ও আইনশৃঙ্খলা স্বাভাবিক রাখতে প্রশাসনসহ সবার সহযোগিতা চেয়েছেন তিনি।
বাগেরহাট পুলিশ সুপার পংকজ চন্দ্র রায় বলেন, আসন্ন সারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে নিরাপত্তা দিতে বাগেরহাটে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। বাগেরহাট জেলায় এবার ৬০৮ টি মণ্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে। শান্তিপূর্ণভাবে দুর্গোৎসব শেষ করতে সব প্রস্তুতি পুলিশের রয়েছে।
জেলা প্রশাসক তপন কুমার বিশ্বাস বলেন, গত বারের তুলনায় এবার পূজা মণ্ডপগুলোতে বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হবে। যাতে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন কেন্দ্রিক কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে, সে জন্য মণ্ডপের আয়োজকদের সতর্ক অবস্থায় থাকতে হবে। ধর্ম যার যার উৎসব সবার। ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠানে কোনো প্রকার ব্যাঘাত না ঘটে সেদিকে সকলকে নজর রাখতে হবে।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop