ksrm
omarket24 odhikarnews sonargaonuniversity niet

আন্তর্জাতিক সময় বিক্ষোভে উত্তাল স্পেনের রাজধানী মাদ্রিদ

fb tw gp
somoy
কাতালোনিয়া ইস্যুতে আবারও বিক্ষোভে উত্তাল স্পেনের রাজধানী মাদ্রিদ। রোববার  (১০ ফেব্রুয়ারি) প্রধানমন্ত্রী পেদ্রো সানচেজের বিরুদ্ধে কাতালোনিয়া প্রশাসনের সঙ্গে গোপন আঁতাতের অভিযোগ তোলে তার পদত্যাগ দাবি করেন বিক্ষোভকারীরা।
একইসঙ্গে জাতীয় ঐক্য রক্ষায় আগাম নির্বাচনেরও দাবি জানান তারা। বিক্ষোভকারীদের তীব্র সমালোচনা কোরে সরকার ঐক্য প্রতিষ্ঠায় কাজ করছে বলে জানান স্পেনের প্রধানমন্ত্রী।
রোববার কট্টর ও মধ্য ডানপন্থী রাজনৈতিক জোটের আহ্বানে স্পেনের রাজধানী মাদ্রিদে জড়ো হন অন্তত ২ লাখ মানুষ। তারা জানান, কাতালোনিয়ার বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সঙ্গে সমঝোতার চেষ্টা কোরে স্পেনের অখণ্ডতার সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করেছেন প্রধানমন্ত্রী পেদ্রো সানচেজ। বিচ্ছিন্নতাবাদীদের চাপের কাছে সরকার হার মানছে বলেও অভিযোগ তাদের।
তারা বলেন, স্পেনের সার্বভৌমত্ব নিয়ে আপোষের কিছু নেই। স্পেনের অখণ্ডতা রক্ষায় আমরা এখানে জমায়েত হয়েছি। কাতালোনিয়ার নেতারা আইন লঙ্ঘন করেছেন। তারা সংবিধানকে অসম্মান করছেন। রাষ্ট্রীয় আইনে তাদের বিচার হবে। তাদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী সমঝোতার চেষ্টা করছেন! আমরা প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ চাই। জাতীয় ঐক্য রক্ষায় নতুন নির্বাচনের দাব জানাই।

তবে স্পেনের উপপ্রধানমন্ত্রী জানান, কাতলোনিয়া আলোচনার প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়েছে। তাদের দেয়া নতুন গণভোটের প্রস্তাব কেন্দ্রীয় সরকার প্রত্যাখ্যান করেছে বলেও জানান তিনি। এ অবস্থায়, বিক্ষোভকারীদের বিরুদ্ধে বিভেদ সৃষ্টির অভিযোগ তুলে স্পেনের অখণ্ডতা রক্ষায় আলোচনা অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

স্পেনের প্রধানমন্ত্রী পেদ্রো সানচেজ বলেন, জনগণের আন্দোলনকে আমি স্বাগত জানাই। আমি যখন বিরোধী দলীয় নেতা ছিলাম, কাতালোনিয়ায় দুটো গণভোট হয়েছে। একতরফা স্বাধীনতা ঘোষণা করেছে তারা। তাদের স্বায়ত্তশাসনও কেড়ে নেয়া হয়েছিল। সবকিছু সমঝোতার ভিত্তিতে সমাধান করে জাতীয় ঐক্য রক্ষায় কাজ করছে সরকার। ডানপন্থীদের মতো আমরা জনগণকে কখনো মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে দেইনি।
এদিকে, বুধবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) স্পেনের পার্লামেন্টে ২০১৯ সালের বাজেট উত্থাপনের কথা রয়েছে। বিরোধীদের সমর্থন ছাড়া পেদ্রো সরকারের পক্ষে বাজেট পাস সম্ভব নয়। এরইমধ্যে কাতালোনিয়া ইস্যুতে সরকারের অবস্থান স্পষ্ট না করলে বাজেট পাসে ভোট না দেয়ার হুমকি দিয়েছে বিরোধীরা। আর বাজেট পাস না হলে ২০২০ সালের আগেই মধ্যবর্তী নির্বাচন দিতে হবে বর্তমান সরকারকে।

এর আগে, ২০১৭ সালে একতরফা গণভোট আয়োজন কোরে স্বাধীনতা ঘোষণা করে তৎকালীন কাতালান প্রশাসন। জবাবে অঞ্চলটির স্বায়ত্তশাসন কেড়ে নিয়ে জড়িতদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগ আনা হয়। পক্ষে-বিপক্ষে বিক্ষোভ সমাবেশে উত্তাল হয়ে উঠে গোটা স্পেন। ওই সঙ্কটের মধ্যেই স্পেনের সে সময়কার প্রধানমন্ত্রী মারিয়ানো রাহয় পার্লামেন্টে আস্থা ভোটে হেরে যান। নতুন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন পেদ্রো সানচেজ।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
বিশ্বকাপের সময়
GoTop