ভ্রমণবেড়াতে যাওয়ার চেকলিস্ট

সময় সংবাদ

fb tw
somoy
বেড়াতে যাওয়ার আগে প্যাকিংয়ের পর্বটা কিন্তু খুব ঠাণ্ডা মাথায় করতে হবে। তা না হলে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের অভাবে বিপদে পড়তে পারেন বিদেশ-বিভুঁইয়ে।
১. নিয়মিত কোনও ওষুধপত্র খেলে শুরুতেই সেগুলো আলাদা একটা ব্যাগে গুছিয়ে নিন। থাইরয়েড, প্রেশার, সুগারের ওষুধ খেলে সেগুলো পর্যাপ্ত পরিমাণে আছে কিনা দেখে নিন। চেক করে নিন এক্সপায়ারি ডেট। 
২. যারা কনট্যাক্ট লেন্স ব্যবহার করেন, তারা লেন্স ভেজানোর সলিউশন নেবেন। একসেট বাড়তি চশমা রাখুন। সানগ্লাস নিতে ভুলবেন না। 
৩. কোনও অ্যান্টিসেপটিক ক্রিম রাখুন সঙ্গে। ব্যান্ডেজ সাথে রাখুন।
৪. গাড়িতে লম্বা ভ্রমণে বের হলে মাথা ঘোরা আর বমির ওষুধ রাখবেন। যাদের মোশন সিকনেস আছে, তারা গাড়িতে ওঠার অন্তত আধঘণ্টা আগে খেয়ে নিন বমির ওষুধ। সেই সঙ্গে জ্বর, পেটখারাপের মতো কিছু সাধারণ রোগের ওষুধও সঙ্গে রাখা উচিত। 
৫. মশা তাড়ানোর জন্য সিট্রোনেলা তেল বা ক্রিম রাখুন। যারা জঙ্গলে বেড়াতে যাওয়ার পরিকল্পনা করছেন, তারা অবশ্যই মশা নিরোধক ব্যবস্থা নিয়ে বেশি সতর্ক হোন। ফরেস্ট ম্যালেরিয়া কিন্তু মারাত্মক হতে পারে!
৬. পাহাড়, জঙ্গল, সমুদ্র বা বিদেশ, যেখানেই যান না কেন সঙ্গে কিছু শুকনো খাবার অবশ্যই রাখবেন। বিশেষ করে পানি, কিছু বাদাম-কিশমিশ, চকোলেট, লাড্ডু বা বরফিজাতীয় মিষ্টি- যেগুলো টানা কয়েকদিন রাখলেও খারাপ হয় না, সাথে রাখা আবশ্যক। কোনো কারণে প্লেন বা ট্রেন কয়েক ঘণ্টা লেট করল, বা রাস্তায় গাড়ি আটকে গেল, তখন অন্তত খানিকটা সময় নিজের এই ভাঁড়ার থেকেই চালাতে পারবেন।
৭. বেড়াতে গিয়ে অতিরিক্ত খাওয়াদাওয়া করবেন না। এতে অসুস্থ হয়ে পড়ার সম্ভাবনা থাকে। বুদ্ধি করে খান। সকালের ব্রেকফাস্ট ভালো করে করুন। দুপুরে স্থানীয় খাবার চেখে দেখতে পারেন, সবচেয়ে কম এক্সপেরিমেন্ট করুন ডিনারে, কারণ রাতের খাবার হজম না হলে পেটের সমস্যা হয়। বাইরে গিয়ে দুধ-দই বা দোকানের কেক-প্যাটিজ জাতীয় জিনিস না খাওয়াই ভালো, কারণ জিনিসটা ক’দিনের পুরোনো কেউ জানে না। ফ্রেশ রান্না করা খাবার খান। 
৮. যারা ফাঁকা কোনও জায়গায় যাচ্ছেন তারা হালকা শীতবস্ত্র সঙ্গে রাখবেন অবশ্যই। হয়তো আপনার কাজে লাগবে না পুরো সফরে, কিন্তু সাবধানের মার নেই। রাখুন বর্ষাতি এবং ছাতা। 
৯. জুতা যেন আরামদায়ক এবং ভালো গ্রিপ দেওয়া হয়। জঙ্গলে গেলে গোড়ালি পর্যন্ত ঢাকা জুতা এবং ফুল প্যান্ট পরবেন অবশ্যই। জুতাটা বাইট রেজিস্ট্যান্ট হলে সবচেয়ে ভালো, তাতে সাপ-খোপ, পোকামাকড়ের উপদ্রব থেকে বাঁচতে সুবিধে হবে। সমুদ্রের ধারে গেলে রাখুন স্লিপার। ঘরে পরার জন্য একটা বাড়তি স্লিপার নিলে ভালো হয়। 
১০. প্রচুর অন্তর্বাস রাখুন সঙ্গে, তা হলে ধোওয়ার ঝামেলা থাকবে না। একান্ত প্রয়োজন হলে হোটেলের লন্ড্রি সার্ভিসের সাহায্য নিন।
১১. সাথে রাখতে পারেন একটি টর্চ লাইট ও এক্সট্রা ব্যাটারি, যে কোন সময় দরকার হতে পারে। স্মার্টফোনের সবচেয়ে বড় সমস্যা চার্জ শেষ হয়ে যাওয়া, তাই সাথে করে একটি পাওয়ার ব্যাংক নিয়ে গেলে আপনার অনেক কাজে লাগবে। সময় আর সুযোগ পেলেই ডিভাইসগুলো ফুলচার্জ করে নিতে ভুলবেন না।
১২. পরিচয়পত্র সাথে রাখুন। বিদেশে পাসপোর্ট আবশ্যক। বিদেশে গেলে পাসপোর্টের বেশ কয়েকটি ফটোকপি সাথে রাখুন। দেশের ভিতর কোথায় গেলে নিজের জাতীয় পরিচয়পত্র সাথে রাখুন। ড্রাইভিং লাইসেন্স, ক্রেডিট কার্ডের মত গুরুত্বপূর্ণ কাগজের ফটোকপি করে সঙ্গে রাখুন।
১৩. কখন কোনে হোটেল থাকছেন বাড়ীর লোকদের জানিয়ে দেবেন, জানিয়ে রাখবেন তাদের ফোন নাম্বারটাও। ভ্রমনের সময় গাড়ীর নাম্বারটাও সেভ করে রাখবেন এবং পরিচিত কাউকে জানিয়ে রাখতে পারেন। রাখতে পারেন ফেসবুক পোস্টেও।
১৪.  একটি কাগজে নাম, ঠিকানা ও ফোন নম্বর লিখে লাগেজের ভেতর সেঁটে রাখুন। যাঁরা ভ্রমণে যাচ্ছেন, তাঁদের প্রত্যেক সদস্যের নাম, ঠিকানা, ফোন নম্বরসহ জরুরি তথ্য কাগজে লিখে রাখুন।  সব টাকা মানিব্যাগে না রেখে কিছু টাকা অন্য জায়গায় রাখবেন। 
১৫. বেড়াতে যাওয়ার আগে জায়গাটি সম্পর্কে খোঁজ নিন। থাকা এবং খাওয়ার ব্যবস্থার পাশাপাশি নিরাপত্তা ব্যবস্থা কেমন তাও জেনে নিন।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop