ksrm

ভোটের হাওয়াদলীয় প্রার্থী নয় জিতলেন সংসদ সদস্যদের 'বিদ্রোহী' আত্মীয়রা

সময় সংবাদ

fb tw
somoy
নাটোরে উপজেলা নির্বাচনে সংসদ সদস্যদের সমর্থন পেয়ে ক্ষমতাসীন দলের চার বিদ্রোহী প্রার্থীর মধ্যে তিনজনই বিজয়ী হয়েছেন।  দলীয় ভাবে যাদের মনোনয়ন দেয়া হয়েছিল তাদের পরাজয় বরণ করতে হয়েছে।  এরই মধ্যে সকল চাপ উপেক্ষা করে বিদ্রোহী প্রার্থীকে হারিয়ে জয় ছিনিয়ে এনেছেন আরেক জন। অন্যদিকে আরেক উপজেলায় প্রত্যাশামতোই জয়ী হয়েছেন ক্ষমতাসীন দলের এক প্রার্থী।     
রোববার ( ১০ মার্চ)নাটোর জেলার  ৫ উপজেলার নির্বাচনে ৩ টিতে বিদ্রোহীদের দাপটে কোণঠাসা থাকলেও জয়লাভ করেছেন সিংড়া পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি শফিকুল ইসলাম। ৬৯ হাজার ৪ শত ৭০ ভোট  পেয়ে বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।তিনি ওই উপজেলার বর্তমান চেয়ারম্যানও। তাঁর বিরুদ্ধে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে  ছিলেন আদেশ আলী সরদার। তিনি ছাত্রদল-যুবদল নেতা ও উপজেলা বিএনপির দপ্তর সম্পাদক ছিলেন । ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারিতে স্থানীয় সাংসদ, তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের হাত ধরে আওয়ামী লীগে যোগ দেন তিনি। এদিকে উপজেলা নির্বাচনে সরাসরি ভোটের মাঠে নৌকার প্রার্থীর বিরুদ্ধে কাজ করেছেন আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতারা এমনটাই অভিযোগ করেছিলেন শফিকুল ইসলাম । তারপরও শেষ পর্যন্ত তিনি জিতেছেন।  
বড়াইগ্রামে জিতেছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোয়াজ্জেম হোসেন বাবলু। ৪৮ হাজার ৭৬৫ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন তিনি। সেখানে নৌকার প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্যবিষয়ক সম্পাদক ও বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারী। এদিকে মোয়াজ্জেম হোসেনকে সরাসরি সমর্থন দেন নাটোর-৪ আসনের সাংসদ আবদুল কুদ্দুস।  মোয়াজ্জেমকে জেতানো তাঁর জন্য বড় চ্যালেঞ্জ এবং এ জন্য কাজ করা বড় ঝুঁকি বলে মন্তব্য করেন তিনি।
গুরুদাসপুর উপজেলায়ও জিতেছেন সাংসদ আবদুল কুদ্দুসের সমর্থিত প্রার্থী। তিনি হলেন জেলা আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক আনোয়ার হোসেন।  ৪২ হাজার ৮৮৪ ভোট পেয়ে বেসরকারী ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন তিনি।  এই উপজেলায় নৌকার প্রার্থী ছিলেন সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহিদুল ইসলাম। আরেকজন বিদ্রোহী প্রার্থী ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সরকার এমদাদুল হক মোহম্মদ আলী।
এদিকে বাগাতিপাড়ায় নৌকার প্রার্থী ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সেকেন্দার রহমান।  কিন্তু নাটোর-১ আসনের সাংসদ শহীদুল ইসলামের ছোট ভাই অহিদুল ইসলাম (গকুল)। ২৬ হাজার ৪৩৩ ভোট পেয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে জয়লাভ করেছেন তিনি।  
এদিকে লালপুরে জিতেছেন আওয়ামী লীগের উপজেলা সাধারণ সম্পাদক ইসাহাক। ৬০ হাজার ৫৩৪ ভোট পেয়ে বেসরকারীভাবে নির্বাচিত হয়েছেন তিনি।  তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন জাসদের প্রার্থী আবদুল হালিম। ইসাহাক আলী নাটোর-১ আসনের সাংসদ শহীদুল ইসলামের আপন ভগ্নিপতি।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
Latest News
আপনিও লিখুন
ছবি ভিডিও টিভি
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop