ksrm
JoyBD odhikarnews sonargaonuniversity niet

বাংলার সময়ফেলানী হত্যার রিটের দ্রুত নিস্পত্তি চাইলেন কিরীটি রায়

সময় সংবাদ

fb tw gp
somoy
কুড়িগ্রামের বহুল আলোচিত ফেলানী হত্যাকে কেন্দ্র ভারতের সুপ্রীম কোর্টে দায়ের করা রিটের শুনানি দীর্ঘদিন ধরে ঝুলে আছে। ন্যায় বিচারের স্বার্থে এবং সীমান্ত হত্যা বন্ধে দিক নির্দেশনা দিতে এই রিটের শুনানি এবং নিস্পত্তি দ্রুত হওয়া দরকার বলে দাবি করছেন রিটের আবেদনকারী ও ভারতের কোলকাতাস্থ বাংলার মানবাধিকার সুরক্ষা মঞ্চ (মাসুম) সম্পাদক কিরীটি রায়।  
      
বুধবার (২০ মার্চ) সকালে কুড়িগ্রাম জেলা শহরের ব্যাপারী পাড়া এলাকায় অবস্থিত উত্তরবঙ্গ জাদুঘর চত্বরে সময় সংবাদকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি দাবি জানান। এ সময় রিটের অপর আবেদনকারী ফেলানীর বাবা নুর ইসলাম ও রিটের হলফনামায় স্বাক্ষরকারী কুড়িগ্রামের পাবলিক প্রসিকিউটর এসএম আব্রাহাম লিংকন উপস্থিত ছিলেন।
     
মাসুম সম্পাদক কিরীটি রায় বলেন, বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে প্রায় ৪ হাজার কিলোমিটার সীমান্ত রয়েছে। সেখানে যে হিংসা, নিত্য খুন এবং মানুষের ওপর নির্যাতন- তা কি কর বন্ধ করা যায়-যেটি মূলত ভারতের বিএসএফ'রা করে যাচ্ছে। আর দ্বিতীয়তঃ দু’দেশের কারাগারগুলোতে প্রচুর মানুষ সাজার মেয়াদ শেষ হওয়ার পরও দীর্ঘদিন বিনা বিচারে আটক থাকছে। এগুলো কিভাবে বন্ধ করা যায় সে ব্যাপারে দু’দেশের সুশীল সমাজ কিভাবে এগিয়ে আসতে পারেন সে বিষয়ে আলোচনার জন্য গত ১৭ মার্চ তিনি বাংলাদেশে এসেছেন। এরই ধারাবাহিকতায় বুধবার কুড়িগ্রামে এসেছেন।  
      
তিনি আরও বলেন, সীমান্ত ঘটনার সবচেয়ে বড় উদাহরণ হচ্ছে ফেলানী খাতুন। যাকে নিরস্ত্র অবস্থায় হত্যা করা হয়েছে। যার ন্যায্য বিচার চেয়ে ভারতের সুপ্রিম কোর্টে রিট আবেদন দাখিল করা হয়েছে। সেই মামলায় সব পক্ষ এফিডেভিটসহ তাদের জবাব দাখিল করেছেন। তারপরও রিটেন পূর্ন শুনানি হচ্ছে না। আমরা শুধু অপেক্ষা করে যাচ্ছি। এছাড়া আর করার কিছুই নেই। আর ন্যায্য বিচার যদি দ্রুত না হয়, তাহলে তা অবিচারের নামান্তর বলতে চাই।
     
এ প্রসঙ্গে কুড়িগ্রামের পাবলিক প্রসিকিউটর এসএম আব্রাহাম লিংকন বলেন, দ্রুত শুনানি শেষে রিটের নিস্পত্তি হলে তাতে যে নির্দেশনা থাকবে তাতে দু'দেশের সীমান্ত ব্যবস্থাপনায় একটি মাইলফলক হবে বলে প্রত্যাশা করছি।  
  
এদিকে ফেলানীর বাবা নুর ইসলাম বলেন, ফেলানী হত্যার ন্যায্য বিচার না পাওয়া পর্যন্ত বিচার চাইতে থাকবেন। এর আগে বিএসএফের জেনারেল সিকিউরিটি ফোর্স কোর্টের বিচার এবং পুনর্বিচারে ফেলানী হত্যায় অভিযুক্ত বিএসএফ সদস্য অমিয় ঘোষকে নির্দোষ বলে খালাস দেয়া হয়। ২০১৫ সালের আগস্ট মাসের প্রথম সপ্তাহে ফেলানী হত্যার ন্যায্য বিচার চেয়ে ভারতের সুপ্রিম কোর্টে মাসুম সম্পাদক কিরিটি রায় এবং ফেলানীর বাবা নুর ইসলাম যৌথভাবে রিট আবেদনটি দাখিল করেছিলেন। এই আবেদনের হলফনামায় স্বাক্ষর করেছিলেন কুড়িগ্রামের পাবলিক প্রসিকিউটর এসএম আব্রাহাম লিংকন। এই রিটের সব প্রক্রিয়া শেষ হলেও শুনানি এখন ঝুলে আছে।
     
২০১১ সালের ৭ জানুয়ারি ভোরে কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার অনন্তপুর সীমান্তে কাঁটাতারের বেড়া পার হয়ে ভারত থেকে দেশে ফেরার সময় ১৪ বছর বয়সী কিশোরী ফেলানীকে পাখির মতো গুলি করে হত্যা করেছিল বিএসএফ সদস্য অমিয় ঘোষ। তার লাশ কাঁটাতারের বেড়ায় ঝুলেছিল ৫ ঘণ্টা। ঘটনার ৩০ ঘণ্টা পর বিএসএফ লাশ ফেরত দিলে নাগেশ্বরী উপজেলার কলোনীটারী গ্রামের বাড়িতে দাফন করা হয়।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
বিশ্বকাপের সময়
সংবাদ প্রতিনিধি
GoTop