ksrm

মহানগর সময়পাট থেকে বিশ্বজুড়ে তৈরি হচ্ছে নানা পণ্য

পারমিতা হিম

fb tw
পাট থেকে বিশ্বজুড়ে তৈরি হচ্ছে পরিবেশবান্ধব নানা পণ্য। সোনালী আঁশের দেশ বাংলাদেশে তৈরিকৃত পাটপণ্যের মধ্যে ব্যাগ আর গৃহসজ্জার সামগ্রীরই গুরুত্ব বেশি। তবে এ পণ্যগুলোও আন্তর্জাতিক বাজারে প্রতিযোগিতা করতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছে ভারত ও চীনের কাছে। বাংলাদেশ জুট ডাইভারসিফিকেশন সেন্টার বলছে, আন্তর্জাতিক বাজার ধরতে প্রয়োজন কম্পোজিট জুটমিল ও পর্যাপ্ত কাঁচামাল ব্যাংক।
এই যে ক্রীড়া সামগ্রী, র‌্যাকেট, স্লাইডার ও নানা ধরনের যন্ত্রপাতি--এসবই পাট থেকে তৈরি।
ফ্রান্সের বেসরকারি প্রতিষ্ঠান 'গোল্ড অব বেঙ্গল' পাট থেকে তৈরি করেছে কাঠের বিকল্প নানা ধরনের পাত এমনকি পুরো নৌকাও।
আগামী প্রজেক্ট, গোল্ড অব বেঙ্গলের প্রধান কোয়েন্টিন ম্যাটিয়েস বলেন, আমরা পাটের সাথে তোশা অন্যঅন্য উপাদান মিশিয়ে নানা ধরণের পণ্য তৈরি করে থাকি। আমাদের অভিঞ্চতা বলছে যে, আরো অনেক ধরনের পণ্য পাট থেকে তৈরি করা সম্ভব। যা ব্যবসায়িক ভাবে লাভজনক।
এই পাটের ব্যাগও আন্তর্জাতিক বাজারে প্রতিযোগিতা করে টিকতে পারছে না। কাঁচামালের উচ্চ মূল্যের কারণে দেশি উদ্যোক্তারা ব্যবসা বন্ধ করে দিতে বাধ্য হচ্ছেন। শুনুন রিয়াজ ইসলামের অভিজ্ঞতা।
সাবেক উদ্যোক্তা রিয়াজ ইসলাম, আমরা তিন বছর রান করাইছি, আমরা পণ্য গুলো সেল করেছি, কিন্ত লোকসান দিতে দিতে। আমি যখন ভায়ারের সাথে যোগাযোগ করি তখন দেখি যে, আমার পণ্য থেকে চায়না এবং ইন্ডিয়া অনেক বেশি কম দামে বিক্রি করে।
প্রায় একই ধরনের সুর বাংলাদেশের পাট নিয়ে ছয় বছর ধরে কাজ করা কোয়েন্টিনের কথায়ও। তিনি বলছেন, পাট নিয়ে বাংলাদেশের নানা উদ্যোগের কথা শোনা গেলেও এর বেশিরভাগই আসলে কাজীর গরুর মত, কেতাবে আছে-গোয়ালে নেই।
কোয়েন্টিন ম্যাটিয়েস বলেন, আমি শুনি নানা ধরনের উদ্যোগের কথা, কিন্ত দেখি না, দেখিনি এই পর্যন্ত। দেখবেন পাটকল শ্রমিকরা বেতন ভাতার জন্য আন্দোলন করছে। আমার মনে হয় বাংলাদেশের সরকার করতে চায়, তবে যে উপায়ে হওয়া উচিত তা হচ্ছে না।
কাঁচামালের এ অতিরিক্ত দামের বিষয়টি স্বীকার করছে জুট ডাইভারসিফিকেশন প্রমোশন সেন্টার । তারা বলছে তাদের দরকার ভারতের মতন কম্পোজিট মিল।
জুট ডাইভারসিফিকেশন প্রমোশন সেন্টারের নির্বাহী পরিচালক রীনা পারভিন বলেন, একটা কিংবা দুইটা কম্পোজিট জুট মিল হয়, যেখান থেকে সহজেই কাচা মালটা নিতে পারবেন, ফেব্রিক্স নিতে পারবেন। কাঁচামালের প্রপ্যতার জন্য আমাদের কিছু জরুরি পদক্ষেপ নেয়া দরকার।
বাংলাদেশে পাটকল করপোরেশন বলছে, কম দামে পাট কেনার জন্য উদ্যোগ নিয়েছেন তারা।
বাংলাদেশ পাটকল করপোরেশনের চেয়ারম্যান শাহ মোহাম্মদ নাছিম বলেন, প্রতিটা মিলকে তার বিক্রির আয় থেকে ২০% টাকা রাখতে হবে। পাট ক্রয় করার ক্ষেত্রে, যদি সরকারের কোন কোন আর্থিক সাপোর্ট দিতে হয়, সেটা কিন্তু পাট কেনা মৌসুমে দেয়া হয়।
তবে কতটা সফল হবে এসব উদ্যোগ নির্ভর করছে সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত গ্রহণ ও এ খাতের সব প্রতিষ্ঠানের সমন্বয় করার ওপর।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
Latest News
আপনিও লিখুন
ছবি ভিডিও টিভি
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop