তথ্য প্রযুক্তির সময়আবারো শুরু হচ্ছে জাতীয় শিশু-কিশোর প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা

কামাল শাহরিয়ার

fb tw
somoy
ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের লক্ষ্যে ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে তথ্য প্রযুক্তিতে আরো দক্ষ করে গড়ে তুলতে গতবছরের মতো এবারও শুরু হচ্ছে জাতীয় শিশু-কিশোর প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা। প্রতিযোগিতায় শিরোনাম পেয়েছে ‘অবাক হচ্ছে বিশ্ব এবার, বাংলার শিশু প্রোগ্রামারা’।
গতবারে একশ ৮০ টি হলেও এবার দেশের ৬৪ জেলায় ২০০টি ‘শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাবকে’কেন্দ্র করে এই প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হবে। ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের আইসিটি ডিভিশন ও তারুণ্যের প্লাটফর্ম ‘ইয়াং বাংলা’ এ প্রতিযোগিতার আয়োজক।  
দ্বিতীয়বারের মতো আয়োজিত এই প্রতিযোগিতায় সারাদেশে শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাবে জেলা পর্যায়ের স্ক্র্যাচ ও পাইথন এই দুই বিভাগে প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে। তৃতীয়-পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের জন্য ‘স্ক্র্যাচ’ এবং ষষ্ঠ-দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের জন্য ‘পাইথন’ রাখা হয়েছে।এছাড়া এবার সদ্য এসএসসি পাশ করা শিক্ষার্থীরাও অংশগ্রহণ করতে পারবে জানিয়েছে আয়োজকসূত্র।
এলক্ষ্যে আগামী আগামী ২২ ও ২৩ মে রাজধানীর খামারবাড়ির কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশনে অনুষ্ঠিত হবে প্রশিক্ষকদের প্রশিক্ষণ কর্মশালা। এতে নির্বাচিত শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাবের আইসিটি শিক্ষক, ইয়াং বাংলা থেকে ল্যাব কোর্ডিনেটর ও জেলা কোর্ডিনেটরগণ অংশ নেবেন। দু’দিনের কর্মশালায় তাদেরকে পাইথন ও স্ক্র্যাচ বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।এরপরই শুরু হবে প্রতিযোগিতার গুরুত্বপূর্ণ পর্ব তথা জেলা ক্যাম্পিং।
সংশ্লিষ্টরা জানান, প্রাথমিক পর্যায়ে দেশের ৬৪ জেলায় নির্বাচিত ২০০টি ল্যাবে শুরু হবে শিক্ষার্থীদের প্রশিক্ষণ। প্রত্যেকটি ল্যাবে ওই অঞ্চলের সবকটি স্কুলের শিক্ষার্থীরা প্রশিক্ষণ নিতে পারবে। প্রতিটি ল্যাবে গড়ে ৭৫জন করে দেশব্যাপী প্রায় ১৫০০০ শিক্ষার্থীকে এই প্রশিক্ষণের অন্তর্ভুক্ত করা হবে।
প্রতিযোগিতা শুরুর আগে আইসিটি শিক্ষক এবং ল্যাব প্রশিক্ষক তার ল্যাবের সেরা প্রতিযোগীদের বাছাই করবেন। প্রতি ল্যাব থেকে স্ক্র্যাচের জন্য ৩জন করে টিম গঠন করা হবে, ৫টি টিমে মোট ১৫জন শিক্ষার্থী প্রতিটি ল্যাব থেকে স্ক্র্যাচ প্রতিযোগিতায় অংশ নেবে। পাইথনের জন্য প্রতিটি ল্যাব থেকে ১৫জন শিক্ষার্থী এককভাবে অংশ নেবে। প্রাথমিক ভাবে বাছাইকৃত শিক্ষার্থীদের নিয়ে জেলা পর্যায়ে ক্যাম্প ও প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে।
জেলা পর্যায়ে বিজয়ীদের নিয়ে জাতীয় ক্যাম্প ও প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে সাভার শেখ হাসিনা যুব উন্নয়ন কেন্দ্রে। প্রতি জেলা থেকে বিজয়ী স্ক্র্যাচ টিম এবং বিজয়ী পাইথন প্রতিযোগীরা জাতীয় ক্যাম্পে যোগ দিয়ে ফাইনাল প্রতিযোগিতায় অংশ নিবে।সেখান থেকে বাছাই করা হবে সেরা টিম। সমাপণী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেবেন বলে আশা করছেন আয়োজকরা।
স্ক্র্যাচ ও পাইথন কি?
স্ক্র্যাচ: স্ক্র্যাচ একটি ভিজুয়াল প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ এবং অনলাইন কমিউনিটি যা মূলত শিশুদের জন্য। স্ক্র্যাচ ব্যবহার করে ব্যবহারকারীরা নিজস্ব ইন্টারেক্টিভ গল্প, গেমস এবং অ্যানিমেশন তৈরি করে একে অপরের সঙ্গে শেয়ার করতে পারে।
স্ক্র্যাচ প্রতিযোগিতা হবে দল ভিত্তিক, প্রতি দলে ৩ জন করে ছাত্র-ছাত্রী থাকবে। প্রতি ল্যাব থেকে ৫টি দলে মোট ১৫ জন অংশ নিবে। ৩য়  থেকে ৫ম শ্রেণির ছাত্র- ছাত্রীদের প্রশিক্ষণ শেষে এরা জেলা ক্যাম্পের প্রতিযোগিতায় অংশ নিবে।
পাইথন:পাইথন  প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ একটা ডাইনামিক প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ যা বর্তমান বিশ্বে অত্যন্ত জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। ৬ষ্ঠ থেকে ৮ম শ্রেণি জুনিয়র এবং ৯ম থেকে ১০ শ্রেণি সিনিয়র হিসেবে প্রত্যেকে আলাদা ভাবে অংশগ্রহণ করবে। এছাড়া সিনিয়র ক্যাটাগরিতে সদ্য এসএসসি পাশকরা শিক্ষার্থীরাও অংশ নিতে পারবে।
রোড টু ন্যাশনাল ক্যাম্প
শিক্ষার্থীদের জেলা পর্যায়ে স্ক্র্যাচ ও পাইথন প্রতিযোগিতা সম্পন্ন হলে, জেলা ভিত্তিক প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের নিয়ে পরবর্তীতে ঢাকায় দুই দিনব্যাপী ‘পাইথন ভিত্তিক জাতীয় ক্যাম্প’ এবং দুই দিনের ‘স্ক্র্যাচ ভিত্তিক জাতীয় ক্যাম্প’ আয়োজন করা হবে।
জাতীয় ক্যাম্পের ১ম দিনে প্রতি জেলার ‘স্ক্র্যাচ’ ও ‘পাইথন’ বিজয়ীদেরকে ঢাকার জাতীয় ক্যাম্পে একদিন উন্নত প্রশিক্ষণ দেয়া হবে। দ্বিতীয় দিনে প্রতিযোগিতার মাধ্যমে জাতীয় পর্যায়ে বিজয়ী নির্বাচিত করা হবে।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop