পশ্চিমবঙ্গকলকাতায় বিজেপি’র বিরুদ্ধে বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙচুরের অভিযোগ

কলকাতা অফিস

fb tw
somoy
ভারতের কলকাতায় ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙচুরের অভিযোগ উঠেছে বিজেপির বিরুদ্ধে। লোকসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দলের কেন্দ্রীয় বিজেপি সভাপতি অমিত শাহের এক রোড শো থেকে এই ভাঙচুর চালানো হয় বলে অভিযোগে জানা গেছে। 
মঙ্গলবার (১৪ মে) সন্ধ্যায় এ ঘটনা ঘটে।
বিরোধী দলের নেতাকর্মীরা অভিযোগে বলেন, বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহর রোড শো ঘিরে উত্তেজনার মাঝে হামলা চলে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলেজ স্ট্রিট ক্যাম্পাস ও বিদ্যাসাগর কলেজে। ভাঙচুর করা হয় বিদ্যাসাগরের ২০০ বছরের পুরনো ঐতিহ্যবাহী মূর্তিও। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলেজ স্ট্রিট ক্যাম্পাসে বাইরে থেকে পাথর ও ইট নিক্ষেপ করে তারা। তাদের ছোড়া পাথরের আঘাতে আহত হন বেশ কয়েকজন সংবাদকর্মী। এ সময় ক্যাম্পাসে থাকা বাইকেও আগুন ধরিয়ে দেয় বিজেপির নেতা-কর্মীরা।
মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে বিধান সরণি দিয়ে অমিত শাহের রোড শো চলছিল। আচমকা এক দল সমর্থক পাঁচিল টপকে বিদ্যাসাগর কলেজের বিধান সরণি ক্যাম্পাসে ঢুকে তাণ্ডব শুরু করে। একটি মোটরসাইকেল ও একটি সাইকেলে আগুন ধরানো হয়। 
বিদ্যাসাগর কলেজের অধ্যক্ষ গৌতম কুণ্ডু বলেন, ‘বিজেপির মিছিল থেকেই তাণ্ডব চালানো হয়েছে। বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভেঙেছে ওরা। পুলিশে অভিযোগ দায়ের করছি।’ 
তবে, বিজেপি’র অভিযোগ, অমিত শাহের রোড শোতে ইঁট ছুড়ে আক্রমণ চালিয়ে প্রথমে গোলমাল বাঁধিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। রোড শো শুরুর আগেই পোস্টার-ফেস্টুন খুলে ফেলে উসকানি দিয়েছে দলটি।
 
সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে গোলমাল শুরু হয় কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলেজ স্ট্রিট ক্যাম্পাস থেকে। অমিত শাহকে কালো পতাকা দেখানোর জন্য গেটের বাইরে জড়ো হয় তৃণমূল সমর্থক। অভিযোগ, ক্যাম্পাসের ভিতর থেকে মিছিল লক্ষ্য করে পানির বোতল, আইসক্রিমের কাপ ছোড়া হয়। এক পর্যায়ে বিজেপি-সমর্থকরা মারমুখী হয়ে উঠে। বিশ্ববিদ্যালয়ের গেটের সামনে ব্যারিকেড উল্টে দেয় তারা।
কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক পার্থিব বসু গোটা ঘটনার নিন্দা জানিয়েছেন।
এদিকে, কলেজে ঢুকে বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙচুরের নিন্দায় সরব হয়েছে বিভিন্ন মহল। রাতেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি কলেজে ঢুকে বিদ্যাসাগরের মূর্তির ভাঙা অংশগুলো কুড়িয়ে একটি বাক্সে রাখেন। এ ঘটনায় উচ্চ পর্যায়ের তদন্তের ঘোষণা দেন তিনি। 
মমতা বলেন, ‘বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙা হয়েছে। আগুন জ্বালানো হয়েছে। এটা ওর ২০০ বছর। কোনও রাজনৈতিক দলের এ রকম হাঙ্গামা কখনও দেখিনি। বিহার-রাজস্থান থেকে গুণ্ডা এনে এই ঘটনা ঘটানো হয়েছে।’
এ ঘটনায় আর্মহার্স্ট স্ট্রিট থানা ও জোড়াসাঁকো থানায় এফআইআর করা হয়েছে অমিত শাহের বিরুদ্ধে। গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৫৯ জনকে।
বুধবার সকালে দিল্লিতে দলীয় কার্যালয়ে সাংবাদিক সম্মেলন করেন অমিত শাহ। তিনি এফআইআর-এর প্রসঙ্গ তুলে বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে এফআইআর করা হয়েছে। এফআইআরকে আমরা ভয় পাই না। বিজেপি কর্মীরা এতে ভয় পায় না। তৃণমূল ভয় পেয়ে এসব করছে।’
এমনকি রোড শোয়ের সময় তাঁর ওপরেই হামলা করা হয়েছিল বলে অভিযোগ করেছেন বিজেপি সভাপতি। 
এদিকে , বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙার প্রতিবাদে বুধবার (১৫ মে) বিকেলে ধিক্কার মিছিলে হাঁটবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ বেলেঘাটার গান্ধী ভবন থেকে সিমলা স্ট্রিটে বিবেকানন্দের বাড়ি হয়ে শ্যামবাজার পর্যন্ত পদযাত্রা হবে।
অপরদিকে, ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে রাজ্য বামফ্রন্টও। বুধবার সকালে এ নিয়ে পথে নেমেছেন বিমান বসু, সীতারাম ইয়েচুরিরা। কলেজ স্কোয়ারে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে প্রতিবাদে সরব হন তাঁরা।
বিমান বসু বলেন, ‘বহু ইতিহাস, সংস্কৃতি বিজড়িত কলেজে ভাঙচুর, মূর্তি ভাঙার পিছনে কারা দায়ী, তা স্পষ্ট নয়। ঘটনার প্রকৃত, নিরপেক্ষ তদন্ত হওয়া উচিত।’ 
অন্যদিকে, বিদ্যাসাগর কলেজে ঢুকে বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙার ঘটনার নিন্দায় সরব হয়েছে বিভিন্ন মহল। ঘটনার নিন্দা করে কড়া প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন কবি শঙ্খ ঘোষ, সাহিত্যিক শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়, নকশাল নেতা অসীম চট্টোপাধ্যায়, এবং নেতাজি পরিবারের সদস্যা এবং প্রাক্তন সাংসদ কৃষ্ণা বসুসহ আরো অনেকে।
সব মিলিয়ে, শেষ দফায় ভোটের আগে শহরে বিদ্যাসাগর মূর্তি ভাঙচুরের ঘটনায় রাজনৈতিক পরিস্থিতি নতুন করে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop