স্বাস্থ্যওষুধের অভাবে বাড়ছে মাতৃমৃত্যু হার

সময় সংবাদ

fb tw
দেশের স্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলোতে রক্তক্ষরণ ও খিচুনি বন্ধের ওষুধ সরবরাহ অনিয়মিত হওয়ায় বাড়ছে মাতৃমৃত্যু হার। জীবনরক্ষাকারী ওষুধ দুটিতে মুনাফা কম হওয়ায় মাত্র একটি কোম্পানি উৎপাদনের সাথে সম্পৃক্ত বলে অভিযোগ গাইনি চিকিৎসকদের সংগঠন ওজিএসবির।
নিরবচ্ছিন্ন ওষুধ সরবরাহ নিশ্চিত করতে না পারলে মাতৃ মৃত্যুর হার আরো বাড়ার আশঙ্কা বিশেষজ্ঞদের। এক্ষেত্রে অভিযোগ ক্ষতিয়ে দেখে ওষুধ সরবরাহ নিশ্চিতের আশ্বাস দিয়েছে অধিদপ্তর।
অ্যানেসথেসিওলজিস্ট বদলি হওয়ায় ১৮ সালের মার্চ থেকে সিজারিয়ান বন্ধ সাভারের ধামরাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। ফলে প্রসব বেদনা নিয়ে আসা সব জটিল রোগিরা সাভারের প্রাইভেট হাসপাতাল বা ঢাকায় ছুটতে বাধ্য হন। ১৮ সালে ধামরাই উপজেলা হাসপাতালে স্বাভাবিক প্রসব হয়েছে ২২৬, পক্ষান্তরে বেসরকারিতে এই উপজেলাতেই সিজারিয়ানের সংখ্যা ২ হাজার ৬শ ৫৬ আর স্বাভাবিক প্রসব মাত্র ৩৮৫ জন।
ধামরাই উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মো. ফজলুল হক বলেন, এখানে অনেকদিন ধরে কোনো অ্যানেসথেসিয়া বিশেষজ্ঞ নেই। আর্গোমেট্রিল ও মেক্সাল নামের দুটি ওষুধও আমরা অনেকদিন ধরে পাচ্ছি না।
দেশে মাতৃমৃত্যুর ৫৪ শতাংশই ঘটে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ ও খিচুনিতে। এই অনাকাঙ্ক্ষিত মৃত্যু বন্ধে দুটি জরুরি ইনজেকশন দেশের সব সরকারি স্বাস্থ্য কেন্দ্রে থাকার কথা। অথচ মাতৃমৃত্যুর সবশেষ জরিপ বলছে, প্রায় দুই তৃতীয়াংশ কেন্দ্রে নেই অক্সিটসিন ও তিন চতুর্থাংশ কেন্দ্রে নেই ম্যাগনেসিয়াম সালফেট ইনজেকশনের সরবরাহ।
ওজিএসবি’র সাবেক সভাপতি অধ্যাপক রওশন আরা বেগম বলেন, বাংলাদেশে শুধুমাত্র একটা কোম্পানি মেক্সাল তৈরি করছে। কিন্তু আটটা কোম্পানির এই ওষুধ তৈরি করার কথা ছিল। হয়তো মুনাফার জন্য তারা করছে না। এই দায়িত্ব সরকারের।
তবে এই অভিযোগ ক্ষতিয়ে দেখে ওষুধ সরবরাহ নিশ্চিতের আশ্বাস ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের।
ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো. মাহবুবুর রহমান বলেন, ফার্মাসিউটিক্যালস কোম্পানিগুলোর সঙ্গে আমরা কথা বলব। এটার সরবরাহ কেন কম না হয় সে বিষয়ে আমরা তাদের বলব।
নতুন করে বাড়তে থাকা মাতৃমৃত্যু বন্ধে নাগালের মধ্যে স্বাভাবিক প্রসবের সুযোগ, প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ধাত্রীদের পদায়নের আহ্বান বিশেষজ্ঞদের।
জাতীয় অধ্যাপক ডা. শাহলা বেগম বলেন, নিরাপদ মাতৃত্বের জন্য গর্ভবতীকে সব রকমের সুবিধা দিতে হবে।
ওজিএসবি’র সভাপতি অধ্যাপক ডা. সামিনা চৌধুরী বলেন, আমাদের আরও অনেক বেশি প্রশিক্ষিত ধাত্রী দরকার। সেই লক্ষ্যে আমরা কাজ করে যাচ্ছি।
গবেষণা বলছে, প্রসব করতে যেয়ে প্রতিদিন গড়ে মৃত্যু হচ্ছে ১৫ জন নারীর। নানা পদক্ষেপের পরও এখনও ৪৫ ভাগ মায়ের নিরাপদ মাতৃত্ব নিশ্চিত করতে পারেনি সরকার।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop