বাংলার সময়কাবিনের টাকা দেয়ার ভয়ে অপহরণের মামলা

সময় সংবাদ

fb tw
somoy
কথিত অপহরণের প্রায় ৬ মাস পর পুলিশের হেফাজতে কলেজ ছাত্র রিফাতুল ইসলাম রিপন। রোববার (২৩ জুন) ঢাকার দোহার থেকে ফরিদগঞ্জ থানা পুলিশ তাকে উদ্ধার করে। পরে চাঁদপুরের বিচারিক হাকিমের আদালতে হাজির করা হয়। এ সময় রিপন আত্মগোপনে থাকার বর্ণনা দিয়ে জবানবন্দি দেন।
প্রসঙ্গত, এর আগে গত ১৯ জুন ছেলেকে অপহরণ করা হয়েছে। এমন অভিযোগে তার বাবা মা ফরিদগঞ্জ প্রেসক্লাবে সাংবাদিক সম্মেলন করেন। সাংবাদিক সম্মেলনের ৫ দিনের মধ্যে রিপনকে উদ্ধার করে পুলিশ চমক দেখিয়েছে।
পুলিশ ও বিভিন্ন সূত্রে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ফরিদগঞ্জ বঙ্গবন্ধু সরকারি কলেজের ছাত্র, কৃতি ফুটবলার রিফাতুল ইসলাম রিপন ভালোবেসে বিয়ে করে চায়না আক্তারকে। কিন্তু তাদের বিয়ে মেনে নেয়নি রিপনের পরিবার। একপর্যায়ে রিপন-চায়না সম্পর্ক ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়। তবে কাবিনের টাকা চায়নাকে দিতে হবে এমন সমঝোতার পরও রিপনকে তার পরিবার চলতি বছরের শুরুতে অন্যত্র সরিয়ে রেখে চায়না ও তার বাবার বিরুদ্ধে একটি অপহরণ মামলা করেন।
ওই সময় রিপনকে মুন্সিগঞ্জে পাঠিয়ে দেয় তার পরিবার। পরবর্তীতে জায়গা পরিবর্তন করে সুনামগঞ্জ, রাজধানীর দয়াগঞ্জ এবং নাজিরাবাজারের মোবাইলফোনের দোকানে কাজ নেয় রিপন। সবশেষ তাকে তার বাবা ফারুকুল ইসলাম ঢাকার দোহারে একটি মোবাইলফোনের দোকানে কাজ করার জন্য পাঠিয়ে দেয়। কিন্তু শেষ রক্ষা আর হয়নি। 'কথিত' অপহরণের শিকার রিপনকে উদ্ধার করে পুলিশ।
 
এমন পরিস্থিতিতে গত ১৯ জুন বাবা মা ফরিদগঞ্জ প্রেসক্লাবে ছেলে রিপনের সন্ধানে সাংবাদিক সম্মেলন করেন। এতে তারা এই নিখোঁজের পেছনে স্থানীয় ব্যবসায়ী টুটুল পাটোয়ারী, জাকির হোসেন ও গৃহবধূ চায়না বেগমসহ বেশ কয়েকজন জড়িত আছে বলে তিনি দাবি করেন। একই সঙ্গে ছেলে উদ্ধারে পুলিশসহ আইনপ্রয়োগকারী সংস্থার সহযোগিতা চান তারা।
কিন্তু ফরিদগঞ্জ থানা পুলিশ ৫ দিনের মধ্যে নিখোঁজ রিপনকে ঢাকার দোহারের একটি মোবাইলফোন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে উদ্ধার করে। এই ঘটনা সম্পর্কে ফরিদগঞ্জ থানার ওসি আবদুর রকিব জানান, তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে রিপনকে উদ্ধার করা হয়। এজন্য এসআই সুমন্ত মজুমদারের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঢাকার দোহারে অভিযান চালায়।
ওসি আরো জানান, উদ্ধারের পরই রিপনকে চাঁদপুরের বিচারিক হাকিমের আদালতে হাজির করা হয়। এসময় আদালতে জবানবন্দি দিতে গিয়ে রিপন স্বীকার করেছে, তার বাবা মায়ের হাত ধরে সে আত্মগোপনে ছিল। ওসি আবদুর রাকিব জানান, এই ঘটনায় অন্যদের ফাঁসানোর জন্য রিপনের বাবা ফারুকুল ইসলাম ও মা রওশন আরা রানী মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে হয়রানি করেছে। তাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলার দায়ের প্রস্তুতি চলছে।
এদিকে, রিপনের বাবা ও মা দাবি করেন, তাদের ছেলেকে অপহরণ করা হয়েছিল। এই নিখোঁজের পেছনে স্থানীয় ব্যবসায়ী টুটুল পাটওয়ারী, জাকির হোসেন ও গৃহবধূ চায়না বেগমসহ বেশ কয়েকজন জড়িত আছে বলে তিনি দাবি করেন।

আরও পড়ুন

ট্রেন দুর্ঘটনায় নিহত বাড়ছে, উদ্ধার চলছেশরীয়তপুরে যুবলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যাপাসপোর্ট করার সময় রোহিঙ্গা তরুণী আটকবেঁচে ফেরা ৮ তরুণের কাটেনি আতঙ্কট্রেন দুর্ঘটনা: আহতরা সিলেট মেডিকেলে চিকিৎসাধীনটেংরাটিলায় গ্যাস উদগীরণে বিপন্ন পরিবেশ‘বাংলাদেশের বিপক্ষে আফগানিস্তানই ফেভারিট’দলে অনুপ্রবেশকারীদের চিহ্নিত করা হবে: তথ্যমন্ত্রী

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop