প্রবাসে সময়শোকেস বাংলাদেশ গো-গ্লোবাল সম্মেলন অনুষ্ঠিত

সময় সংবাদ

fb tw
somoy
মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি বাজার সম্প্রসারণ ও বাংলাদেশে মালয়েশিয়ার বিনিয়োগকারীদের আকৃষ্ট করার লক্ষ্যে অনুষ্ঠিত হয়েছে শোকেস বাংলাদেশ গো-গ্লোবাল সম্মেলন। মালয়েশিয়ার বিশাল জনগোষ্ঠীর সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপনের মাধ্যমে পারস্পরিক অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বাড়াতে সাহায্য করবে বলে আশা দু দেশের প্রতিনিধিদের। তাদের মতে, বিনিয়োগ ও বাণিজ্যের ক্ষেত্রে সম্মেলনটি ঢাকা- কুয়ালালামপুরের মধ্যকার সহযোগিতা আরো জোরদার করবে।
মালয়েশিয়ার উদ্যোক্তাদের কাছে বাংলাদেশী পণ্য ও সেবা সম্পর্কে ব্র্যান্ড সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) কুয়ালালামপুর রয়েল চোলান হোটেলের হলরুমে আয়োজন করা হয় শোকেস বাংলাদেশ গো-গ্লোবাল সম্মেলন। সম্মেলন উদ্বোধন করেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুন্সী। এসময় প্রবাসী কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী ইমরান আহমদ ও মালয়েশিয়ার ডেপুটি ইন্টারন্যাশনাল ট্রেড মিনিস্টার অং কিয়ান মিং উপস্থিত ছিলেন। প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশে অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার জন্য মালয়েশিয়ার প্রতি আহ্বান জানান বাণিজ্যমন্ত্রী।
বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুন্সী বলেন, বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে ধাবিত হচ্ছে। মালয়েশিয়া ও বাংলাদেশের মধ্যে সুসম্পর্ক বজায় আছে। বাংলাদেশের মাথাপিছু আয় বৃদ্ধি, জীবনমান উন্নয়ন, বাজেট বৃদ্ধিসহ বৃহত্তম অবকাঠামো উন্নয়ন, অভ্যন্তরীণ উৎপাদন ও রফতানি বৃদ্ধি। বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়ার ফলে জাতীয় উৎপাদনে ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে জিডিপি।
অন্যদিকে মালয়েশিয়াকে বাংলাদেশের দীর্ঘদিনের বিশ্বস্ত বন্ধুরাষ্ট্র হিসেবে উল্লেখ করেন প্রবাসী কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী ইমরান আহমদ।
প্রবাসী কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী ইমরান আহমদ বলেন, মালয়েশিয়া বাংলাদেশের দীর্ঘদিনের বিশ্বস্ত বন্ধু ও ব্যবসায়িক সহযোগী। বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ফোরামে মালয়েশিয়া বাংলাদেশকে সমর্থন দিয়ে আসছে। দেশটি বাংলাদেশের জনশক্তি রফতানির বড় বাজার। বাংলাদেশ মালয়েশিয়ার প্রতি কৃতজ্ঞ।
সম্মেলনে অংশ নিয়ে তৈরি পোশাক, হিমায়িত মাছ, চামড়াজাত পণ্য, পাট ও পাটজাত দ্রব্য, চা, ফার্মাসিউটিক্যাল পণ্যসহ বিভিন্ন রাপ্তানিযোগ্য পণ্যের গুণগত মান সম্পর্কের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন বাংলাদেশের অর্থনীতিবিদ এবং ব্যবসায়ীরা।
বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ও অর্থনীতিবিদ ড. আতিউর রহমান বলেন, টেলিকমের দিক থেকে মালয়েশিয়া বাংলাদেশে অনেক বিনিয়োগ করেছে।
বাংলাদেশ-মালয়েশিয়া চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, আমরা চাচ্ছি তারা বাংলাদেশে বিনিয়োগ করুক। সেখান থেকে তারা সারা বিশ্বেই পণ্য পৌঁছে দিতে পারবে।
এছাড়াও মালয়েশিয়ার শিল্প উদ্যোক্তা, বিনিয়োগকারী, ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান, ব্যবসায়ী সংগঠনের নেতারা সম্মেলনে অংশগ্রহণ করেন।
বর্তমানে মালয়েশিয়ার বাজারে ৯৩টি পণ্যের ওপর শুল্কমুক্ত সুবিধা থাকলেও দুই দেশের মধ্যকার মুক্তবাণিজ্যের পথ প্রশস্ত হলে এখানে বাংলাদেশি পণ্যের রফতানি অনেকটাই বৃদ্ধি পাবে। পাশাপাশি আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে বাংলাদেশকে বিনিয়োগের গন্তব্যে নিয়ে যেতে হলে প্রবাসীদের দেশে বিনিয়োগে আগ্রহী হতে হবে। এতে দেশের অর্থনীতির উন্নয়ন যেমন শক্তিশালী হবে তেমনি দেশের অর্থনীতির জন্য এটি কল্যাণ বয়ে আনবে বলে মনে করছেন আয়োজকরা।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop