মহানগর সময়পুঁজি হারানোর ভয়ে চিংড়ি চাষীরা

মো. তরিকুল ইসলাম

fb tw
somoy
গ্রীষ্ম মৌসুমের পাশাপাশি বর্ষার শুরুতেও তীব্র গরম থাকছে খুলনা অঞ্চলে। হিটস্ট্রোকসহ নানা রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যায় দক্ষিণাঞ্চলের সাদা সোনা খ্যাত চিংড়ি। এতে এবার লাভের পরিবর্তে পুঁজি হারানোর ভয়ে আছেন চাষিরা। এ অবস্থায়, সরকারি সহায়তার দাবি ভুক্তভোগীদের। এদিকে, চলতি ২০১৯-২০ মৌসুমে চিংড়ি রপ্তানির লক্ষ্যমাত্রা ব্যাহত হতে পারে বলে আশঙ্কা সংশ্লিষ্টদের।
খুলনা, বাগেরহাট ও সাতক্ষীরা জেলার প্রধান রপ্তানিযোগ্য পণ্য চিংড়ি। সাদা সোনা নামে রয়েছে যার খ্যাতি। ইউরোপ ও আমেরিকা জুড়ে এ অঞ্চলের চিংড়ির রয়েছে ব্যাপক চাহিদা।
চলতি মৌসুমে তীব্র গরম এবং বৃষ্টিপাত কম হওয়ায় মাত্রাতিরিক্ত লবণাক্ততায় মারা যাচ্ছে চিংড়ি। এতে চিন্তার ভাঁজ পড়েছে চাষিদের কপালে। প্রান্তিক পর্যায়ে চাষিরা জানান, চলতি বছর ব্যাপক হারে চিংড়ি মারা যাওয়ায় পুঁজি হারানো চাষিদের সরকারি সহায়তা প্রয়োজন।
চলতি বছর বিপর্যয়ের কারণে রপ্তানির লক্ষ্যমাত্রা ব্যাহত হতে পারে বলে আশংকা জানিয়েছেন মডার্ণ সী ফুড লিঃ ব্যবস্থাপনা পরিচালক রেজাউল হক।
অন্যদিকে সনাতন পদ্ধতির পরিবর্তে বিজ্ঞানভিত্তিক চাষ করলে বিরূপ আবহাওয়াজনিত কারণে চিংড়ি মৃত্যুরোধ করা সম্ভব বলে মনে করেন খুলনা জেলা মৎস্য কর্মকর্তা এমডি আবু সাইদ।
খুলনা জেলায় ৫৬ হাজার ১৯৪ হেক্টর জমিতে বাগদা ও গলদা চিংড়ি চাষ করা হয়। সবশেষ উৎপাদন হয়েছে ২৮ হাজার ৩শ মেট্রিক টন।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop