আন্তর্জাতিক সময়পাকিস্তানের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসীদের শক্তিশালী করার অভিযোগ ভারতের

সময় সংবাদ

fb tw
somoy
পাকিস্তানের বিরুদ্ধ পরমাণু ও ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা জোরদারের অভিযোগ তুলেছে ভারত। দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের বার্ষিক প্রতিবেদনে বলা হয়, অর্থনৈতিকভাবে গভীর সঙ্কটে থাকলেও ভারত-বিরোধী সন্ত্রাসীদের অর্থায়নের পাশাপাশি পরমাণু অস্ত্র বাড়াচ্ছে ইসলামাবাদ। এদিকে, প্রায় ছয়মাস বন্ধ রাখার পর ভারতীয় বাণিজ্যিক বিমান চলাচলের জন্য নিজেদের আকাশপথ খুলে দিয়েছে পাকিস্তান।
গেলো ১৪ ফেব্রুয়ারি জম্মু-কাশ্মীরের পুলওয়ামায় ভারতীয় সেন্ট্রাল রিজার্ভ পুলিশ ফোর্স-সি.আর.পি.এফের গাড়িবহরে ভয়াবহ হামলা চালায় সন্ত্রাসীরা। এর জন্য ইসলামাবাদকে দায়ী করে নয়াদিল্লি। পাল্টা প্রতিশোধ হিসেবে পাকিস্তানের বালাকোটে বিমান হামলা চালায় ভারতীয় বিমান বাহিনী। দেশ দু'টির মধ্যে দেখা দেয় সামরিক উত্তেজনা।
এরই ধারাবাহিকতায় ভারতীয় বিমান চলাচলের জন্য নিজেদের আকাশপথ বন্ধ করে দেয় পাকিস্তান। এতে জনদুর্ভোগের পাশাপাশি আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়ে ভারত। দেশটির সিভিল এভিয়েশন বিষয়কমন্ত্রী জানান, আকাশপথ বন্ধ করে দেয়ায় গেল ২৬ ফেব্রুয়ারি থেকে ২ জুলাই পর্যন্ত প্রায় ৫শ' কোটি রূপি ক্ষতি হয়।
এমন প্রেক্ষাপটে সোমবার (১৫ জুলাই) রাতে নিজেদের আকাশপথে ভারতীয় বাণিজ্যিক বিমান চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয় পাকিস্তান। এরপরই আন্তর্জাতিক ফ্লাইট পরিচালনার জন্য পাকিস্তানের আকাশপথ ব্যবহার করার কথা জানায় ভারত।
এদিকে, কার্তারপুর করিডর দিয়ে দিনে ৫শ' শিখ তীর্থযাত্রী প্রবেশের অনুমতি দিয়েছে পাকিস্তান। ওয়াগা সীমান্তে ভারত ও পাকিস্তানের প্রতিনিধিদের মধ্যে বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়। পরে এক সংবাদ সম্মেলনে ভারতীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব বলেন, আগামী নভেম্বরে গুরু নানকের জন্মদিন সামনে রেখে তীর্থযাত্রীদের অবাধ চলাচলের আশ্বাস দিয়েছে পাকিস্তান।
ভারত স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব অনিল মালিক বলেন, দুই দেশের মধ্যে তীর্থযাত্রীদের অবাধ যাতায়াতের বিষয়ে একমত হয়েছি আমরা। যত দ্রুত সম্ভব শূণ্যরেখায় সেতু তৈরির কাজ শেষ করবো। আশা করি, গুরু নানকের জন্মদিনের আগেই কাজটি শেষ হবে। দুই দেশের তীর্থযাত্রী ছাড়াও যেসব প্রবাসীদের কাছে বিদেশি নাগরিকত্ব কার্ড রয়েছে তারাও এই করিডোর দিয়ে যেতে পারবে।
দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে আনতে পাকিস্তানের এসব উদ্যোগকে ইতিবাচক হিসেবে দেখা হলেও অনড় অবস্থানে ভারত। এরমধ্যেই দেশটির বিরুদ্ধে পরমাণু ক্ষেপণাস্ত্রের পরিধি বাড়ানোর অভিযোগ তুলেছে নয়াদিল্লি। ভারতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের বার্ষিক প্রতিবেদনে বলা হয়, সীমান্তে সন্ত্রাসীদের শক্তিশালী করতে অর্থায়নের পাশাপাশি ক্ষেপণাস্ত্র সরবরাহসহ সামরিক শক্তি বাড়াচ্ছে ইসলামাবাদ। দেশটির এমন তৎপরতা আঞ্চলিক স্থিতিশীলতা নষ্ট করবে বলেও দাবি তাদের।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
Latest News
আপনিও লিখুন
ছবি ভিডিও টিভি
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop