আন্তর্জাতিক সময়কংগ্রেসের চার নারীকে এবার সরাসরি দেশ ত্যাগ করতে বললেন ট্রাম্প

সময় সংবাদ

fb tw
somoy
যুক্তরাষ্ট্র ত্যাগ করতে বলা চার নারী কংগ্রেস সদস্যের সঙ্গে টুইটারের পর এবার সরাসরি বাকযুদ্ধে জড়ালেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। বর্ণবাদী আচরণের অভিযোগে বিভিন্ন মহলের তীব্র সমালোচনার মধ্যেই, ওই চার নারীকে সরাসরি দেশ ত্যাগের পরামর্শ দিলেন তিনি। তবে ডেমোক্র্যাট দলের 'দ্য স্কোয়াড' নামে পরিচিত চার নারী কংগ্রেস সদস্যের দাবি, অভিবাসন সংকটসহ সীমাহীন দুর্নীতি আড়াল করতেই বর্ণবাদী আচরণ করছেন ট্রাম্প। এদিকে, ট্রাম্পের বর্ণবাদী সিরিজ টুইটের পর ক্ষোভে ফুঁসে উঠেছেন সাধারণ মার্কিনরা।
চার নারী কংগ্রেস সদস্যকে উদ্দেশ্য করে ট্রাম্পের বর্ণবাদী মন্তব্যের জেরে রাজনীতিবিদদের পাশাপাশি ক্ষোভে ফুঁসছেন সাধারণ মার্কিনরাও। তারা ট্রাম্পের বক্তব্যকে নির্বুদ্ধিতা হিসেবে অভিহিত করেছেন।
তারা বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে বিভিন্ন দেশের মানুষ রয়েছেন। আমি নিজে পুয়ের্তো রিকান। পুয়ের্তো রিকো যুক্তরাষ্ট্রের অংশ হলেও আমার সঙ্গে ভিনদেশী নাগরিকের মতো আচরণ করা হয়।
টুইটারে চার নারী কংগ্রেস সদস্যকে কটাক্ষ করে বর্ণবাদী মন্তব্য করায় ব্যাপক সমালোচনার মধ্যেই নিজের বক্তব্যে এখনো অটল রয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। টুইটারের বাকবিতণ্ডা এখন সরাসরি গড়িয়েছে রাজনীতির মাঠে। প্রগতিশীল চার নারী কংগ্রেস সদস্য আলেক্সান্দ্রিয়া ওকাসিও কর্তেজ, রাশিদা তালিব, আয়ান্না প্রেসলি ও ইলহান ওমরকে উদ্দেশ্য করে আবারো কটাক্ষ করেন ট্রাম্প।
সোমবার (১৫ জুলাই) সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্প আবারো তাদের যুক্তরাষ্ট্র ছেড়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন। ইলহান ওমর ছাড়া তিনজনেরই জন্ম যুক্তরাষ্ট্রে হলেও তাদের তারা মূলত যে সব দেশ থেকে এসেছেন সেগুলোকে দুর্নীতিগ্রস্ত উল্লেখ করে ট্রাম্প তার বক্তব্যে একাধিকবার ঐ চার নারীকে যুক্তরাষ্ট্র ত্যাগ করতে বলেন।
ট্রাম্প বলেন, তারা আমাদের দেশকে ঘৃণা করে। আমি যদি ভুল কিছু বলে থাকি ভোটাররাই তাদের সিদ্ধান্ত জানাবেন। ইসরাইলের প্রতি তাদের ব্যাপক বিদ্বেষ থাকলেও আল কায়েদার মত সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর জন্য তাদের ভালবাসা রয়েছে। ডেমোক্র্যাট দলকে আমি অনেক বছর ধরে জানি, এটা তাদের জন্য মোটেই ভাল কিছু নয়।
ট্রাম্পের এ ধরনের বিদ্বেষমূলক কথা-বার্তার তীব্র নিন্দা জানান বর্ণবাদী আচরণের শিকার চার নারী কংগ্রেস সদস্য। তারা বলেন, সীমান্তে অভিবাসী আটক, স্বাস্থ্যনীতি, শিক্ষাসহ অন্যান্য ইস্যুতে সীমাহীন দুর্নীতি ও ব্যর্থতা আড়াল করতেই এই পথ অবলম্বন করেছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। তবে তারা চুপ করে থাকবেন না উল্লেখ করে যে লক্ষ্যে তারা জনগণের প্রতিনিধি নির্বাচিত হয়েছেন তা বাস্তবায়নের অঙ্গীকার করেন ডেমোক্র্যাট দলের এই চার আইন প্রণেতা।
ম্যাসাচুসেটসের কংগ্রেস প্রতিনিধি আয়ান্না প্রেসলি বলেন, আমাদের উদ্দেশ্য করে ট্রাম্পের বর্ণবাদী বক্তব্যের সবাই তীব্র নিন্দা জানিয়েছে। আমাদের সহকর্মীরা আমাদের পাশে দাঁড়িয়েছেন। এ জন্য আমরা তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ। তবে যুক্তরাষ্ট্রের জনগণের প্রতি আমার আহ্বান থাকবে, ডোনাল্ড ট্রাম্প যে ফাঁদ পেতেছেন আপনারা তাতে পা দেবেন না। সাধারণ মানুষের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয় থেকে দৃষ্টি সরাতেই এই পন্থা নিয়েছেন তিনি।
মিনেসোটার কংগ্রেস প্রতিনিধি ইলহান ওমর বলেন, তিনিই সেই প্রেসিডেন্ট যিনি কিনা নারীদের সম্পর্কে অশ্লীল ভাষায় কথা বলেন। কৃষ্ণাঙ্গ এথলেটকে গালাগাল করেন। এটি আসলে শ্বেতাঙ্গ শ্রেষ্ঠত্ববাদীদের এজেন্ডা যা এখন হোয়াইট হাউজেও পৌঁছে গেছে।
এদিকে ট্রাম্পের টুইটকে রাজনীতিবিদ ও বিশেষজ্ঞরা বর্ণবাদী ও বিদ্বেষমূলক বললেও তা প্রত্যাখ্যান করেছে টুইটার কর্তৃপক্ষ। ঘৃণ্য ও হিংসাত্মক পোস্টের ব্যাপারে গত মাসে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার ঘোষণা দেয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমটি। তবে ট্রাম্পের টুইট তাদের নীতি লঙ্ঘন করেনি দাবি করলেও তার সপক্ষে কোন কারণ ব্যাখ্যা করেনি টুইটার কর্তৃপক্ষ।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop