আন্তর্জাতিক সময়‘কুলভূষণ যাদবের মৃত্যুদণ্ড স্থগিত থাকা উচিত’

সময় সংবাদ

fb tw
somoy
গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত সাবেক ভারতীয় নৌ–কর্মকর্তা কুলভূষণ যাদবের রায় পুনর্বিবেচনা করতে হবে পাকিস্তানকে। বুধবার সন্ধ্যায় আন্তর্জাতিক বিচার আদালত-আই.সি.জে এ রায় দেন। একইসঙ্গে কুলভূষণের কাছে ভারতীয় কনস্যুলার কর্মকর্তাদের প্রবেশাধিকারের অনুমতি দিয়েছে আইসিজে। তবে ভারতের পক্ষ থেকে কুলভূষণকে ফিরিয়ে দেয়ার দাবি প্রত্যাখ্যান করেছে আন্তর্জাতিক আদালত। রায়কে পাল্টাপাল্টি বিজয় দাবি করেছে নয়াদিল্লি ও ইসলামাবাদ।
বুধবার নেদারল্যান্ডসের হেগে বহুল আলোচিত পাকিস্তানের সামরিক আদালতে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ভারতীয় নৌবাহিনীর সাবেক কর্মকর্তা কুলভূষণ যাদবের বিষয়ে রায় দেন জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক বিচার আদালত। ১৬ জন বিচারকের সমন্বয়ে গঠিত এ আদালতের ১৫ জন বিচারকই ভারতের পক্ষে রায় দিয়েছেন। অপর বিচারক রায় দিয়েছেন পাকিস্তানের পক্ষে।
আইসিজে'র রায়ে বলা হয়, পাকিস্তান কার্যকরভাবে রায় পর্যালোচনা ও পুনর্বিবেচনা না করা পর্যন্ত কুলভূষণ যাদবের মৃত্যুদণ্ড স্থগিত থাকা উচিত। কুলভূষণের কাছে ভারতীয় কনস্যুলারের প্রবেশাধিকারে বাধা দিয়ে পাকিস্তান ভিয়েনা কনভেনশন লঙ্ঘন করেছে বলেও মনে করে আইসিজে। কুলভূষণ যাদবের সঙ্গে দেখা করার ও আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের অধিকার রয়েছে ভারতের। দেশটিকে সেই অধিকার থেকে পাকিস্তান বঞ্চিত করেছে বলেও রায়ে উল্লেখ করা হয়। রায়কে স্বাগত জানিয়ে 'পূর্ণাঙ্গ বিজয়' হিসেবে অভিহিত করেছে ভারত।
রাভিশ কুমার বলেন, নিঃসন্দেহে এটি ভারতের জন্য বড় এক বিজয়। আন্তর্জাতিক আদালত যে রায় দিয়েছেন, আমরা তা স্বাগত জানাচ্ছি। আশা করি, পাকিস্তান এ রায় মেনে নেবে। অভূতপূর্ব এ রায় পুরোপুরি আমাদের পক্ষে এসেছে। যা কুলভূষণ যাদবের মুক্তিতে সাহায্য করবে।
পরে এক টুইট বার্তায় রায়কে স্বাগত জানিয়ে আন্তর্জাতিক আদালতের বিচারকদের অভিনন্দন জানান ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। কুলভূষণ যাদবের স্বজনরাও উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছেন।
আন্তর্জাতিক আদালতের রায় নিজেদের পক্ষে গেছে উল্লেখ করে পাল্টা বিজয় দাবি করেছে ইসলামাবাদ।
গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে ২০১৬ সালের ৩ মার্চ বেলুচিস্তান থেকে ভারতীয় নাগরিক কুলভূষণ যাদবকে গ্রেফতার করে পাকিস্তানের সেনাবাহিনী। ইসলামাবাদের দাবি, ইরান থেকে অবৈধভাবে পাকিস্তানে প্রবেশ করেছিলেন কুলভূষণ। ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা রিসার্চ অ্যান্ড অ্যানালাইসিস উইং বা 'র' এর হয়ে কাজ তিনি করছিলেন বলেও দাবি করে পাকিস্তান। তবে নয়াদিল্লির দাবি, নৌবাহিনী থেকে অবসরের পর ব্যবসায়ী বনে যাওয়া কুলভূষণকে ইরান থেকে অপহরণ করে পাকিস্তানে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop