ksrm

মহানগর সময়ফতুল্লা স্টেডিয়ামের পাশে পচা চামড়ার দুর্গন্ধে অতিষ্ঠ মানুষ

সময় সংবাদ

fb tw
somoy
এবার চামড়া ব্যবসায় ধস নামায় বিভিন্ন এলাকা থেকে দুই শতাধিক কোরবানির পশুর চামড়া এনে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডে ফতুল্লা স্টেডিয়ামের পাশে ফেলে রাখা হয়েছে। টানা দু’দিন ধরে চামড়ার দুর্গন্ধে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে মানুষ।
স্থানীয় এলাকাবাসীসহ পথে নিয়মিত চলাচলকারী সাধারণ মানুষ দ্রুত এর সমাধানে যথাযথ কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন। তবে বিষয়টি নিয়ে সিটি করপোরেশন ও সদর উপজেলা প্রশাসন একে অপরকে দূষছেন। কেউই দায়ভার নিচ্ছেন না।
 
বুধবার (১৪ আগস্ট) বিকেলে দেখা যায়, ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডে সদর উপজেলার ফতুল্লা থানার লামাপাড়া এলাকায় খান সাহেব ওসমান আলী জাতীয় স্টেডিয়ামের পাশে দুই শতাধিক চামড়া স্তূপ আকারে পড়ে আছে। এরই মধ্যে চামড়াগুলোতে পঁচন ধরায় তীব্র দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়ছে। পরিবেশ চরমভাবে দূষিত হচ্ছে। একই সাথে সেখানে দুই তিনটা মরা গরুও পড়ে থাকতে দেখা যায়। নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের সীমানা তোরণের ঠিক নিচেই চিত্রটা দেখা গেছে।   
স্থানীয়রা জানান, বিভিন্ন এলাকা থেকে মৌসুমী চামড়া ব্যবসায়ীরা চামড়া কিনে এবার লোকসানের মুখে পড়েছেন। চামড়ার দাম এতটাই নিচে নেমে এসেছে যে অনেকেই কোরবানির পশুর চামড়া বিক্রিই করতে পারেননি। যে চামড়া গেলো বছর তিন থেকে চার হাজার টাকায় বিক্রি হয়েছে, সেই চামড়ার মূল্য এবার দু’শো থেকে তিনশ’ টাকা বলছেন চামড়া ব্যবসায়ীরা। যার কারনে ক্ষুব্ধ হয়ে অনেকেই চামড়া বিক্রি না করে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের পাশে নিয়ে ফেলে দিয়ে গেছেন।
এছাড়া মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষরা যারা চামড়া নিয়েছেন তারা এগুলো বিভিন্ন স্থানে মাটি খুড়ে চাপা দিলেও মৌসুমী ব্যবসায়ীরা তা না করে চামড়াগুলো এই সড়কের পাশে এনে ফেলে গেছেন। এতে করে এই দুর্গন্ধে মানুষের অসুস্থ হবার অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে। স্থানীয়ভাবে পরিবেশের চরম বিপর্যয়ও ঘটছে।
স্থানীয় এলাকাবাসী রমজান আলী জানান, এভাবে ময়লা আবর্জনার সাথে চামড়াগুলো ফেলা ঠিক হয়নি। দুর্গন্ধে টিকা যায় না এদিকে। গতকাল তবুও গন্ধ কম ছিল কিন্তু আজ একেবারেই খারাপ অবস্থা। দ্রুত এটি অপসারণ না করলে এ পথে চলাচল করা দুস্কর হয়ে উঠবে।
এদিকে এ ব্যাপারে কথা বলতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নাহিদা বারিক বলেন, আমি সংবাদটি পেয়েছি। আমার কাছে এ ব্যাপারে বেশ কয়েকজন অভিযোগ করেছে। এটা নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন এলাকার মধ্যে পড়েছে, তবুও আমি সেখানে যাবো।
নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের (নাসিক) প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) শাহ এহতেশামুল হক জানান, এটি নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের বাইরে ইউনিয়ন পরিষদের অধীনের জায়গায় পড়েছে।
তিনি বলেন, আমি দায়িত্ব নিয়েই বলছি, আমার সিটি করপোরেশনের মধ্যে কোনো আবর্জনা নেই। যদি সিটি করপোরেশন এলাকার ভেতরে এমন ঘটনা ঘটে থাকে তাহলে আমাকে জানালে আমরা সাথে সাথেই তা পরিষ্কার করে দেব। যদি তারা আমাদের কাছে সহযোগিতা চায় তাহলে আমরা সহযোগিতা করবো। এটার পাশেই নম পার্ক ও ফতুল্লা স্টেডিয়াম কিন্তু এগুলোতে তো আমাদের নাসিকের কোন হোল্ডিং নাম্বার নেই। আমরা আমাদের সীমানা সম্পর্কে অবহিত রয়েছি।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
Latest News
আপনিও লিখুন
ছবি ভিডিও টিভি
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop