প্রবাসে সময়রিয়াদে বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল স্কুলে শোক দিবস পালন

সময় সংবাদ

fb tw
somoy
হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোকদিবস উপলক্ষে সৌদি আরবের রাজধানী রিয়াদে অবস্থিত বাংলাদেশ কারিকুলাম অনুযায়ী পরিচালিত একমাত্র শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল স্কুল অ্যান্ড কলেজ নানা কর্মসূচি গ্রহণ করে।
বৃহস্পতিবার (১৫ আগস্ট) জাতীয় শোকদিবস উপলক্ষে বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে প্রতিষ্ঠানের বোর্ড অব ডাইরেক্টর্সের সম্মানিত চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মোস্তাক আহম্মদের সভাপতিত্বে এক আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়।
বিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক খাদেমুল ইসলামের সঞ্চালনায় এতে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বোর্ড অব ডাইরেক্টর্সের সিগনেটরী মো. আব্দুল হাকিম, কো-সিগনেটরী ইঞ্জিনিয়ার গোফরান, কালচারাল ডাইরেক্টর সিরাজুল সফিকুল হক, বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের রিয়াদ মহানগর সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার জিয়া উদ্দিন, অভিভাবক মোস্তাক আহম্মদ মন্ডল, মোসলেহ উদ্দিন মুন্না, নন্দলাল সরকার, ইসা উল্লাহ প্রমুখ।
আলোচনাসভায় পবিত্র কোরআন থেকে তিলাওয়াত করেন অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থী এহাসানুল রাফিদ আদিব, মান্যবর রাষ্ট্রপতি প্রদত্ত বাণী পাঠ করেন বিদ্যালয়ের একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী ইয়াসির গিয়াস ও গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বাণী পাঠ করেন নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী আসমা আবেদীন। অনুষ্ঠানের শুরুতে প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ মো. আফজাল হোসেন বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক জীবনের অসামান্য অবদানের কথা তুলে ধরেন।
অতিথিবৃন্দ তাদের আলোচনায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক জীবনের প্রেক্ষাপট বিভিন্ন আঙ্গিকে ব্যাখ্যা করেন। যার জন্ম না হলে আমরা হয়ত পরাধীনতিক জীবনের প্রেক্ষাপট বিভিন্ন আঙ্গিকে ব্যাখ্যা করেন। যার জন্ম না হলে আমরা হয়তো পরাধীনতার শৃঙ্খল থেকে অত সহজে মুক্তিলাভ করতে সক্ষম হতাম না। ১৯২০ সালে গোপাল গঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জন্ম নেয়া সেই ছোট্ট খোকা জাতীয় নেতায় রূপান্তরিত হওয়া, বঙ্গবন্ধু উপাধি লাভ, বাংলাদেশের স্বাধিকার আন্দোলন ও স্বাধীনতা অর্জন এবং তাঁর বিশ্ব নেতায় রূপান্তরিত হওয়া যেন একই সূত্রে গাঁথা।
অথচ কিছু কুচক্রী বিপথগামী ঘাতকচক্র ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট এই মহান নেতাকে নির্মমভাবে হত্যা করেই ক্ষান্ত হয়নি জাতির পিতার সর্বকনিষ্ঠ শিশু সন্তান রাসেলকেও হত্যা করতে তাদের বিবেকে বাঁধেনি। তারা নির্মমভাবে হত্যা করেছে পরিবারের উপস্থিত সকল সদস্যকে। আমাদের বর্তমান মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও তাঁর ছোট বোন শেখ রেহানা প্রবাসে থাকার কারণে প্রাণে রক্ষা পান। তবু স্বস্তির বিষয় হচ্ছে বর্তমান সরকার সেই ঘাতকচকে বিচারের আওতায় এনে এবং তাদের বিচারের রায় কার্যকর করে জাতিকে কলঙ্কমুক্ত করেছেন।
জাতীয় শোকদিবস উপলক্ষে অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের উপর প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শণ করা হয় এবং শিক্ষার্থীদের জন্য কুইজের আয়োজন করা হয়। এর আগে বঙ্গবন্ধুর উপর রচিত রচনাবলীর উপর শিক্ষার্থীদের বই পাঠের আয়োজন করা হয় এবং ক্ষুদে শিক্ষার্র্থীদের ছবি আঁকা প্রতিযোগিতার আযোজন করা হয়। পরে দেশ ও জাতির সমৃদ্ধি কামনা করে বিশেষ মোনাজাত পরিচালনা করেন জনাব হাবিব আহম্মদ নোমানী।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop