স্বাস্থ্যঅ্যাপেন্ডিসাইটিসের ব্যথা বুঝবেন কীভাবে?

সময় সংবাদ

fb tw
somoy
বৃহদান্ত্র এবং ক্ষুদ্রান্ত্রের সংযোগস্থলে বৃহদান্ত্রের সঙ্গে যুক্ত একটি ছোট থলের মতো অঙ্গ অ্যাপেন্ডিক্স। অ্যাপেন্ডিক্স মানব শরীরের একটি অপ্রয়োজনীয় অঙ্গ। এটি এমন একটি অঙ্গ যা শরীর থেকে কেটে বাদ দিলেও মানুষ দিব্যি সুস্থভাবে বেঁচে থাকতে পারে।
বিশ্বের প্রায় ৫ শতাংশ মানুষের জন্য এই অঙ্গটি জরুরি চিকিৎসা পরিস্থিতি তৈরি করে। যে রোগের নাম অ্যাপেনডিসাইটিস। অ্যাপেনডিসাইটিস এর কারণে রোগীর মৃত্যুও হতে পারে। এই অঙ্গটিতে কোনও ভাবে খাদ্য কণা বা ময়লা ঢুকে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়তে পারে। সময় মতো সংক্রমণ ঠেকাতে ব্যবস্থা না নিতে পারলে তা প্রাণ সংশয়ের কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে।
অ্যাপেন্ডিসাইটিসের ব্যথা সাধারণত নাভির চারপাশে বা নাভির একটু ওপর থেকে শুরু হয়। কয়েক ঘণ্টা পর তলপেটের ডান দিকের অংশে ব্যথাটা স্থায়ী হয়। থেমে থেমে ব্যথা ওঠে সেটা তীব্র ও হালকা—দুই রকমেরই হতে পারে। 
পেটে ব্যথার সঙ্গে সঙ্গেই সারাক্ষণ বমি বমি ভাব, কিছু খেলেই ব্যথার চোটে বমি হয়ে বেরিয়ে যাওয়া, খিদে বোধ অস্বাভাবিক ভাবে কমে যাওয়া, কোষ্ঠকাঠিন্য বা ডায়রিয়ার সমস্যা হঠাৎ করে বেড়ে যাওয়া এই রোগের লক্ষণ।
অনেক সময় পেটের ব্যথার চোটে জ্বর আসতে পারে। তবে এক্ষেত্রে শরীরের তাপমাত্রা খুব বেশি হয় না।
অ্যাপেনডিসাইটিসের ব্যথা খুব দ্রুত বাড়ে। অনেক সময় মাত্র কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে এই ব্যথা তীব্র আকার ধারণ করে। অনেক সময় এই ব্যথা এত তীব্র হয় যে তা রোগীকে গভীর ঘুম থেকেও জাগিয়ে তুলতে পারে।
পাকস্থলিতে সংক্রমণ হলেও বমিভাব, এবং বারবার বমি করার লক্ষণ দেখা দেয়। কিন্তু কেউ যদি টানা ১২ ঘন্টা ধরে বারবার বমি করতে থাকে এবং তলপেটে তীব্র ব্যথার পাশাপাশি ডায়রিয়াও হয় তাহলে ধরে নিতে হবে তার অ্যাপেনডিসাইটিস হয়েছে।
ক্ষুধামান্দ্যের সঙ্গে সঙ্গে তলপেটে তীব্র ব্যথা, বমি এবং ডায়রিয়া হলে বুঝতে হবে আপনি অ্যাপেনডিসাইটিসে আক্রান্ত হয়েছেন।
ডায়রিয়া বা কোষ্ঠকাঠিন্যের সাথে যদি ২-৩ দিন ধরে পেটে ব্যথা করে তাহলে তা অ্যাপেনডিসাইটিসের লক্ষণ। আর পায়খানার সঙ্গে শ্লেষ্মা বের হলে এবং তলপেটের ডানপাশে ব্যথা থাকলে তাও অ্যাপেনডিসাইটিসের লক্ষণ।
পেট ফোলা বা ফাঁপা এবং অনবরত বায়ুত্যাগের ঘটনা কখনো সখনো স্বাভাবিকভাবেই হতে পারে। কিন্তু টানা আটঘন্টা ঘুমানোর পরও যদি পেট ফাঁপা দূর না হয় এবং পরের কয়েকদিন ধরে থাকে তাহলে আপনার অ্যাপেনডিসাইটিস হয়েছে। এর পাশাপাশি আপনার তলপেটেও ব্যথা থাকবে।
তলপেটের ডান পাশে চাপ দিলে যদি ব্যথা হয় তাও অ্যাডেনডিসাইটিসের বড় লক্ষণ। তবে তলপেটে চাপ না দেওয়াই ভালো এতে অ্যাপেনডিক্সের বিস্ফোরণ ঘটতে পারে।
সময়মতো চিকিৎসা না হলে অ্যাপেন্ডিক্স ছিদ্র হয়ে খাদ্যনালির ভেতরের বিভিন্ন উপাদান, পরিপাক হয়ে যাওয়া খাবারের অংশ ও মল বেরিয়ে পুরো পেটে ছড়িয়ে পড়তে পারে। ফলে পেটের ভেতরে, এমনকি রক্তেও ছড়িয়ে পড়তে পারে গুরুতর সংক্রমণ। এ ধরনের ঘটনায় রোগীর জীবনের আশঙ্কাও দেখা দেয়।
কোনো ওষুধে এর চিকিৎসা সম্ভব নয়। এর একমাত্র চিকিৎসা হলো বিস্ফোরিত হওয়ার আগেই অপারেশনের মাধ্যমে অ্যাপেনডিক্স নামের ওই অদরকারি অঙ্গটি কেটে ফেলে দেওয়া। পেটে ব্যথা তীব্র ও স্থায়ী অথবা থেকে থেকে হলে রোগীকে শক্ত খাবার দেওয়া থেকে বিরত থাকুন বা মুখে খাবার দেওয়া বন্ধ রাখুন এবং দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যান।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop