বাংলার সময়ভোলায় দোকান মালিকের ‘নির্যাতনে’ মিষ্টি শ্রমিকের মৃত্যু

সময় সংবাদ

fb tw
somoy
ভোলায় পাওনা টাকা জন্য দোকান মালিকের নির্যাতনে দুলাল মালি (৫০) নামে এক মিস্টি শ্রমিকের মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। রোববার (১৮ আগস্ট) রাতে ভোলা পৌর শহরের চরনোয়াবাদের নিজ বাসায় দুলালের মৃত্যু হয়। আজ পুলিশ তার মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের মর্গে পাঠিয়েছে।  
নিহতের স্ত্রী অঞ্জুরানী জানান, পাওনা টাকার জন্য গুইংঘাটহাট আল মদিনা রেস্টুরেন্টের মালিক মো. কামাল তার স্বামী দুলাল মালিকে গত ৯ আগস্ট ভোলা খেয়াঘাট থেকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে গুইংঘাট একটি ঘরে আটকে রেখে মারধর করে। প্রায় এক সপ্তাহ ধরে অমানবিক নির্যাতনের পাশাপাশি তাকে প্রয়োজনীয় খাবার খেতে দেওয়া হয়নি। অনেক খোঁজাখুঁজির পর তার স্বামীকে আটকে রাখার খবর পেয়ে বিষয়টি তিনি পুলিশকে জানান। 
গত ১৫ আগস্ট পুলিশ গুইংঘারহাট বাজারের তালাবদ্ধ একটি ঘর থেকে আহত অবস্থায় দুলালকে উদ্ধার করে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করে। অর্থাভাবে তাকে উন্নত চিকিৎসা দিতে পারেন নি উল্লেখ অঞ্জুরানী জানান, স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা চলছিল। ১৮ আগস্ট রোববার রাত ৩টায় নিজ বাসায় তার মৃত্যু হয়। অঞ্জুরানী তার স্বামীর মৃত্যুর জন্য দোকান মালিক কামালকে দায়ী করে তার গ্রেফতার ও বিচার দাবি করেছেন। তিনি আরও জানান দোকান মালিক তার স্বামীর কাছ থেকে ১৫ হাজার টাকা পাওনা আছে।
এদিকে খরব পেয়ে আজ দুপুরে দৌলতখান থানার এসআই কল্লোল বিশ্বাস লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছেন।
দৌলতখান থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এনায়েত হোসেন জানান, ১৫ আগস্ট দুলাল মালিকে উদ্ধারের সময় সুস্থ ছিল। তার শরীরের কোনো আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। ওইসময় দোকান মালিককেও আটক করা হয়। তবে দুলাল বা  তার স্ত্রী দোকান মালিকের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ করেননি। পাওনা টাকা পরিশোধ করে দিবেন বলে দুলালের স্ত্রী তাকে বাড়িতে নিয়ে যায়। এখন দুলালের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। রিপোর্ট পাওয়ার পর আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এছাড়া এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা দায়ের করা হয়েছে।  
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে আরও জানা যায়, ভোলা পৌরসভার চরনোয়াবাদ এলাকার বাসিন্দা দুলাল মালি পার্শ্ববর্তী দৌলতখান উপজেলার গুইংঘাটহাটের আল মদিনা রেস্টুরেন্টএ মিষ্টির শ্রমিক হিসেবে কাজ করতো। এসময় দোকান মালিক মো. কামালের কাছ থেকে ১৫ হাজার টাকা ধার নেন তিনি। ওই টাকা পরিশোধ না করে তিনি ভোলা খেয়াঘাট এলাকার আরেকটি দোকানে কাজ নেন। ৯ আগস্ট কামাল দলবল নিয়ে এসে দুলালকে খেয়াঘাট থেকে তুলে নিয়ে আটকে রাখেন এবং নির্যাতন করেন।
তবে দুলালের মৃত্যুর পর থেকে অভিযুক্ত দোকান মালিক মো. কামাল আত্মগোপনে থাকায় তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি। 

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop