বিনোদনের সময়আজ নায়করাজের মৃত্যুবার্ষিকী

সময় সংবাদ

fb tw
somoy
কিংবদন্তী অভিনেতা নায়করাজ রাজ্জাকের দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী আজ। ২০১৭ সালের ২১ আগস্ট অগণিত ভক্তকে চোখের জলে ভাসিয়ে বিদায় নেন তিনি।
টানা পাঁচ দশক ধরে বাংলা চলচ্চিত্রকে রাঙিয়েছেন তিনি। তার স্বীকৃতি হিসেবে একাধিকবার পেয়েছেন জাতীয় পুরস্কার। তিনি নায়করাজ রাজ্জাক নামে সুপরিচিত ছিলেন। চলচ্চিত্র পত্রিকা চিত্রালীর সম্পাদক আহমদ জামান চৌধুরী তাকে 'নায়করাজ' উপাধি দিয়েছিলেন।
কলকাতায় জন্ম নেয়া রাজ্জাক মঞ্চ নাটকে পা রাখেন সপ্তম শ্রেণিতে পড়ার সময়। এর মধ্যদিয়েই অভিনয় জগতে প্রবেশ করেন তিনি। ১৯৬৬ সালে ১৩ নম্বর ফেকু ওস্তাগার লেন চলচ্চিত্রে একটি ছোটো চরিত্রে অভিনয়ের মধ্যদিয়ে বাংলাদেশি চলচ্চিত্রে তার অভিষেক ঘটে। এরপর জহির রায়হানের ‘বেহুলা’ চলচ্চিত্রে কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে নিজের অবস্থান পাকাপোক্ত করেন। ষাটের দশকের শেষটায় এবং সত্তরের দশকে বাংলা চলচ্চিত্র অঙ্গনের সেরা অভিনেতা হিসেবে বিবেচনা করা হতো তাকে।
অভিনয় জীবনে তিনি বেহুলা, আগুন নিয়ে খেলা, আগুন, জিঞ্জির, এতটুকু আশা, নীল আকাশের নীচে, জীবন থেকে নেওয়া, ওরা ১১ জন, অবুঝ মন, রংবাজ, বদনাম, কালো গোলাপ, অংশিদার, আনার কলি, লাইলি-মজনু, আলোর মিছিল, অশিক্ষিত, ছুটির ঘণ্টা এবং বড় ভালো লোক ছিলসহ ৩০০টির বেশি চলচ্চিত্রে অভিনয়ের পাশাপাশি তিনি সব মিলিয়ে ১৬টি চলচ্চিত্র পরিচালনা করেন।
২০১৫ সালে বাংলাদেশ সরকার সংস্কৃতিতে বিশেষ ভূমিকা রাখার জন্য তাকে স্বাধীনতা পুরস্কারে ভূষিত করে। ১৯৭৬, ১৯৭৮, ১৯৮২, ১৯৮৪ ও ১৯৮৮ সালে তিনি মোট পাঁচবার শ্রেষ্ঠ অভিনেতা হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেন। ২০১৩ সালের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে তাকে আজীবন সম্মাননা পুরস্কার প্রদান করা হয়।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop