তথ্য প্রযুক্তির সময়চাঁদে নয়, মঙ্গলে বসতি গড়তে চায় মানুষ

সময় সংবাদ

fb tw
somoy
চাঁদ পৃথিবীর কাছে হলেও সেখানে বসতি গড়তে চান না জেফ বেজোস কিংবা এলোন মাস্ক। এর চেয়ে তাঁরা মঙ্গলগ্রহের ব্যাপারে আগ্রহী। কারণ চাঁদের চেয়ে মঙ্গলের পরিবেশ মানুষের বসবাসের জন্য বেশি উপযোগী বলে বিজ্ঞানীরা বলছেন।
 ১৯৬৯ সালের ২০ জুলাই যুক্তরাষ্ট্রের তিন নভোচারী প্রথমবারের মতো চাঁদের মাটিতে পা রেখেছিলেন৷ গত ১৬ জুলাই সেই ঐতিহাসিক ঘটনার ৫০ বছর পূর্তি উদযাপন হয়৷ ১৯৬৯ সাল থেকে টানা তিন বছর চাঁদে ছয়টি মনুষ্য মিশন পরিচালনা করেছিল যুক্তরাষ্ট্র৷ এরপর আর কেউ চাঁদে যায়নি৷
তবে সেই চেষ্টা আবার শুরু হচ্ছে৷ ২০২৪ সালে চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে বিজ্ঞানীদের পাঠাতে চায় মার্কিন মহাকাশ সংস্থা নাসা৷ এই মিশনের নাম দেয়া হয়েছে ‘আর্তেমিস'৷
পেপলের সাবেক প্রধান নির্বাহী ও টেসলা প্রতিষ্ঠাতা এলোন মাস্ক এবং অ্যামাজনের মালিক জেফ বেজোস দুজনই নাসার মিশনের আগে চাঁদে যাওয়ার পরিকল্পনা করছেন৷
তবে তাঁদের কেউই ভবিষ্যতে চাঁদে বসতি গড়ার কথা ভাবছেন না৷ মাস্ক গতবছর মঙ্গলে বসতি গড়ার পরিকল্পনা নিয়ে একটি বই লিখেছিলেন৷ সেখানে অবশ্য তিনি মঙ্গলের আগে চাঁদে যাওয়া যে গুরুত্বপূর্ণ, সেটি স্বীকার করে নিয়েছিলেন৷ কারণ হিসেবে মাস্ক বলছেন, মঙ্গলের দূরত্ব অনেক৷ এই যাত্রাপথের মধ্যে যদি চাঁদে যাত্রাবিরতি দেয়া যায়, তাহলে সেটা ভালো হবে৷ পৃথিবী থেকে মঙ্গলগ্রহে যেতে এখনকার প্রযুক্তিতে প্রায় আট মাস সময় লাগতে পারে৷
নাসা এবং জেফ বেজোসও মাস্কের এই যুক্তি পছন্দ করেছেন৷
চাঁদের চেয়ে মঙ্গল কেনো ভালো?
এয়ারোস্পেস ইঞ্জিনিয়ার রবার্ট জুবরিন মার্কিন সংস্থা ‘ন্যাশনাল স্পেস সোসাইটি'র ম্যাগাজিন ‘অ্যাড অ্যাস্ট্রা'য় একটি প্রবন্ধ লিখেছেন৷ সেখানে তিনি বলেন, চাঁদের চেয়ে মঙ্গলের পরিবেশ মানুষের বসবাসের জন্য বেশি উপযোগী৷ কারণ মঙ্গলে কার্বন ডাই-অক্সাইড থেকে শুরু করে নাইট্রোজেন, পানি ইত্যাদির পরিমাণ অনেক বেশি৷ তিনি বলেন, চাঁদেও কার্বন, নাইট্রোজেন, হাইড্রোজেন ইত্যাদি রয়েছে, তবে সেগুলোর পরিমাণ ‘সাগরের পানিতে সোনা' থাকার মতো৷ এছাড়া চাঁদে শস্য ফলানোর মতো যথেষ্ট প্রাকৃতিক সূর্যালোক নেই, যেটা মঙ্গলে আছে, বলেন জুবরিন৷
চাঁদে স্টেশন:
চাঁদে বসতি গড়া না গেলেও সেখানে যেহেতু মঙ্গলে যাওয়ার পথে বিরতি নিতে চাইছেন বিজ্ঞানীরা, তাই চাঁদের পরিবেশ সম্পর্কে জানাটা জরুরি৷ চাঁদে পানির অস্তিত্ব সম্পর্কে সম্প্রতি জানা গেছে৷ তবে সেই পানি চাঁদের কোন অংশে এবং কী পরিমাণে আছে, তা এখনও জানা যায়নি৷ ২০২৪ সালে নাসা যে বিজ্ঞানীদের চাঁদে পাঠাতে চাইছেন তাঁরা এসব তথ্য জানার চেষ্টা করবেন৷ চাঁদে যদি স্টেশন পরিচালনার মতো পর্যাপ্ত পানি থাকে, তাহলে তা মঙ্গলযাত্রার জন্য ভালো হবে বলেই এই চেষ্টা৷
সূত্র: ডয়েচে ভেলে
 

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop