মহানগর সময়থমকে আছে ৪৫৬৯ কোটি টাকার ই-পাসপোর্ট প্রকল্প

সাফিন জাহিদ

fb tw
থমকে আছে ইলেক্ট্রনিক পাসপোর্ট প্রকল্পের কার্যক্রম। কয়েক দফা ঘোষণা দিয়েও নাগরিকদের হাতে ই-পাসপোর্ট তুলে দিতে পারেনি কর্তৃপক্ষ। বার বার সময় দিলেও ই-পাসপোর্ট না পাওয়ায় ক্ষোভ জানিয়েছেন পাসপোর্ট প্রত্যাশীরা। আর প্রকল্পের অগ্রগতির বিষয়ে জানতে যোগাযোগ করা হলে কথা বলতে রাজি হননি অধিদপ্তরের মহাপরিচালক।
দেশে বর্তমানে প্রতি মাসে প্রায় ৪ লাখ ২০ হাজার মেশিন রিডেবল পাসপোর্টের চাহিদা রয়েছে। এরই প্রেক্ষিতে ২০১৭ সালে চার হাজার ৫৬৯ কোটি টাকা খরচে ই-পাসপোর্ট প্রকল্প হাতে নেয় সরকার। এ লক্ষ্যে গত বছরের জুলাইয়ে জার্মান কোম্পানী ভেরিডোসের সঙ্গে চুক্তিও স্বাক্ষরিত হয়।
চুক্তি অনুযায়ী ২০১৯ সালের জানুয়ারি থেকে ই-পাসপোর্ট পূর্ণাঙ্গভাবে চালুর কথা থাকলেও এরই মধ্যে কয়েক দফা সময় বাড়িয়েও তা বাস্তবায়ন করতে পারেনি কর্তৃপক্ষ। আর এতে ক্ষোভ জানিয়েছে পাসপোর্ট প্রত্যাশীরা।
একজন বলেন, 'জুলাই মাসের ১ তারিখ থেকে ১০ বছরের জন্য পাসপোর্ট দেয়ার কথা ছিলো। অপেক্ষা করে আবার সেই ৫ বছরের টায় পেলাম।'
আরো কয়েকজন জানা পাসপোর্ট অফিসের লোকজনও বলতে পারছে না কবে নাগাদ ই-পাসপোর্ট চালু হবে।
আর প্রকল্প বাস্তবায়ন না হওয়ায় এমআরপি বই কিনতে অতিরিক্ত ব্যয় হচ্ছে সরকারের।
অধিদপ্তরে প্রায় ২ মাস ঘুরেও পাওয়া যায়নি ই-পাসপোর্ট প্রকল্পের অগ্রগতির কোন তথ্য।
ই পাসপোর্ট প্রকল্পের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সাইদুর রহমান খান বলেন, 'ই পাসপোর্টের কোনো ফাইনাল ডেট দিতে পারবো না। মন্ত্রণালয় থেকে জানানোর পর বিষয়টি জানাতে পারবো।'
অধিদপ্তর সূত্র জানায়, ই-গেট স্থাপনের ধীরগতিসহ নানা কারণে থমকে গেছে এ প্রকল্প। এছাড়া, ৮টি প্রিন্টিং মেশিনের মাত্র একটি ও ৫০টি ই গেটের মধ্যে মাত্র দুটি স্থাপনের চিত্র বলে দেয় ই-পাসপোর্ট পেতে আরও লম্বা সময় অপেক্ষা করতে হবে গ্রাহকদের।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop