আন্তর্জাতিক সময়স্বাধীনতার দাবিতে বিক্ষোভে উত্তাল হংকং

সময় সংবাদ

fb tw
somoy
স্বাধীনতার দাবিতে বিক্ষোভে উত্তাল হংকং। টানা তিন মাসেরও বেশি সময় ধরে চলা আন্দোলনে বেহাল চীনের স্বায়ত্বশাসিত এ অঞ্চলটি।
এরই ধারাবাহিকতায় রোববার গণতন্ত্রপন্থিদের বিক্ষোভের সময় নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে দফায় দফায় সংঘর্ষ বাঁধলে, আহত হন শতাধিক মানুষ। সরকার-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোতে পেট্রোল-বোমা আর ইটপাটকেল ছুঁড়লে রণক্ষেত্রে পরিণত হয় রাজপথ। প্রস্তাবিত দাবি না মানা হলে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সমর্থন চেয়েছেন গণতন্ত্রপন্থি আন্দোলনের প্রধান জশুয়া অং।
স্বাধীনতার দাবিতে চলমান আন্দোলনের অংশ হিসেবে রোববার আবারও রাস্তায় নামে হংকং-এর গনতন্ত্রপন্থিরা। কোন ধরনের সহিংসতা এড়াতে রাজপথে কঠোর অবস্থানে নিরাপত্তা বাহিনী। এরইমধ্যে রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভের চেষ্টা করলে লাঠিচার্জ করে পুলিশ। এক পর্যায়ে শুরু হয় সংঘর্ষ। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে বিক্ষোভকারীদের লক্ষ্য করে জলকামান এবং টিয়ারশেল ছুঁড়ে দাঙ্গা পুলিশ।
এসময় আশপাশে ব্যাপক ভাঙচুরসহ সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন স্থাপনায় আগুন ধরিয়ে দেয় বিক্ষোভকারীরা। মুহূর্তেই রণক্ষেত্রে পরিণত হয় পুরো এলাকা। দুপক্ষের ধাওয়া পাল্টায় হংকং-এর স্বাভাবিক কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়ে হংকং। ঘটনাস্থল থেকে বেশ কয়েকজনকে আটক করা হয়।
এদিকে, আটককৃত কয়েকজন কারাগারে যৌন হয়রানি ও অমানবিক নির্যাতনের শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন গণতন্ত্রপন্থি আন্দোলনের প্রধান জশুয়া অং। সেই সঙ্গে, তাদের প্রস্তাবিত দাবি মেনে না নেয়া হলে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন তিনি।
গণতন্ত্রপন্থি আন্দোলনের প্রধান জশুয়া অং বলেন, আমাদের অব্যাহত আন্দোলনের প্রতি পুরো বিশ্বকে সমর্থন দেয়া উচিত। পুলিশ যেভাবে হামলা চালাচ্ছে এতে চরম মানবাধিকার লঙ্ঘিত হচ্ছে। সেই সঙ্গে, হংকং-এর দাঙ্গা পুলিশকে অস্ত্র সহায়তা বন্ধে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি অনুরোধ জানাচ্ছি। আমরা আশা করি ওয়াশিংটন আমাদের আন্দোলনের প্রতি পূর্ণ সমর্থন দিয়ে যাবে।
তবে, সাধারণ জনগণ বলছেন, জ্বালাও-পোড়াও কর্মসূচি পরিহার করে সবাইকে আলোচনার মাধ্যমে সমাধানের পথ বের করা উচিত।
আন্দোলনকারীরা বলছেন, হংকংবাসী সমস্যার মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে। এ অবস্থা চলতে থাকলে সংকট আরও বাড়বে। আমার মনে হয় আমারা সবাই যদি এক সঙ্গে কাজ করি তাহলে এই সমস্যার সমাধান আসতে পারে।
একই দিন, হংকং-এর ব্রিটিশ কনসুলেটের সামনে সমবেত হয়ে অঞ্চলটির স্বায়ত্বশাসন বহাল রাখতে চীনের ওপর চাপ প্রয়োগ করতে ব্রিটেনের প্রতি আহবান জানিয়েছে চীনা বিরোধীরা। পরে দেশটির পতাকা নিয়ে সড়ক প্রদিক্ষণ করে বিক্ষোভকারীরা।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop