মহানগর সময় ‘নৈতিক স্খলন ব্যক্তি ডাকসুতে রাখার প্রশ্নই উঠে না’

সময় সংবাদ

fb tw
somoy
নৈতিক স্খলনের দায়ে ছাত্রলীগ থেকে সদ্য বহিষ্কৃত গোলাম রাব্বানী ডাকসুর সাধারণ সম্পাদক পদে থাকতে পারবেন কিনা তা নিয়ে উঠছে নানা প্রশ্ন। ডাকসুর সহ সভাপতি বলছেন, অবৈধভাবে আর্থিক লেনদেনের অভিযোগ রয়েছে এমন কারো সঙ্গে কাজ করবেন না তিনি। আর বিশ্ববিদ্যালয়ের নীতিমালায় অভিযোগের ভিত্তিতে বিষয়টির সুরাহা করার কথা জানান উপাচার্য।
চাঁদাবাজিসহ আর্থিক লেনদেনের অভিযোগে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে অপসারণ করা হয় গোলাম রাব্বানীকে। এরপর থেকেই ডাকসু'র জিএস পদ নিয়ে তৈরি হয় ধোঁয়াশা। নিজ দলের রাজনৈতিক পদ থেকে বহিষ্কৃত প্রার্থী ডাকসু'র সাধারণ সম্পাদক ও সিনেট ছাত্র প্রতিনিধি থাকতে পারেন কিনা তা নিয়ে দেখা দিয়েছে প্রশ্ন।
এদিকে নির্বাচিত ছাত্র প্রতিনিধিদের নৈতিক দায়বদ্ধতার কথা জানিয়ে গোলাম রাব্বানীর সাথে কাজ করবেন না সাফ জানিয়ে দিয়েছেন ডাকসুর বর্তমান ভিপি নুরুল হক নূর।
তিনি বলেন, একজন নৈতিক স্খলন ব্যক্তিকে ডাকসুতে রাখার প্রশ্নই উঠেনা।
নিজের ভাবমূর্তির কথা চিন্তা করে গোলাম রাব্বানীর ডাকসু'র জিএস ও সিনেট উভয় পদ থেকে স্বেচ্ছায় সরে যাওয়ার কথা জানান সাবেক ডাকসু নেতা অধ্যাপক মাহফুজা খানম।
তিনি বলেন, যদি বুদ্ধিমান ছেলে হয় তবে আমি মনে করি, সে নিজেই পদ থেকে সরে আসবে। 
বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান বলছেন, ডাকসুর গঠনতন্ত্র আলাদা ও স্বতন্ত্র হওয়ায় অভিযোগের প্রেক্ষিতে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
তিনি বলেন, ডাকসুর কোনো সিদ্ধান্ত গ্রহণ করলে ব্যক্তির ইচ্ছা অনিচ্ছার উপর নির্ভর করবে না। ডাকসুর নির্ধারিত গঠনতন্ত্রের নিয়ম অনুযায়ী আমরা সিদ্ধান্ত নিবো। 
সোমবার বিকেল পর্যন্ত গোলাম রাব্বানীর জিএস পদে থাকা নিয়ে কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি বলেও জানান উপাচার্য। 

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop