বিনোদনের সময়নতুন আঙ্গিকে লোক নাট্যদলের ‘সোনাই মাধব’

সময় সংবাদ

fb tw
somoy
লোক নাট্যদলের দর্শক নন্দিত প্রযোজনা ময়মনসিংহ গীতিকা অবলম্বনে পদাবলী যাত্রা ‘সোনাই মাধব’। প্রায় ১০ বছর বিরতির পর লোক নাট্যদল নতুন আঙ্গিকে আবারও মঞ্চে এনেছে এই নাটকটি। ১৯৯৩ সালে নাটকটি প্রথম মঞ্চে আসে, তখন এই নাটকের নারী চরিত্রগুলিতে ছেলেরা অভিনয় করত কিন্তু নতুন আঙ্গিকে এবার ‘সোনাই মাধব’ নাটকটিতে নারী চরিত্রগুলিতে নারীরাই অভিনয় করছে।
সোমবার (১৬ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার এক্সপেরিমেন্টাল থিয়েটার হলে নাটকটির প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়। নাটকে ব্যবহৃত গানের সুরারোপ করেছেন দীনেন্দ্র চৌধুরী ও লিয়াকত আলী লাকী এবং পরিকল্পনা, সঙ্গীত পরিচালনা ও নির্দেশনা দিয়েছেন লোক নাট্যদলের অধিকর্তা লিয়াকত আলী লাকী।
বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন রোকসানা আক্তার রুপসা, মো. জাহিদুল কবির লিটন, লিয়াকত আলী লাকী, রহিমা খাতুন নীলা, উম্মে মরিয়ম রুমা, কিশোয়ার জাহান, মাহাবুব তনয়, আজমেরী এলাহী নীতি, আব্দুল্লাহেল রাফি তালুকদার, শায়লা আহমেদ, মাহাবুব তনয়, মো. রওশন হোসেন, সাদমান তারিফ প্রত্যয় প্রমুখ।
কাহিনী সংক্ষেপ: সোনাই-মাধব মূলত সোনাই এবং মাধবের প্রেম এবং চির বিচ্ছেদের কাহিনী, আর এর মধ্য দিয়ে ফুটে উঠেছে মানব সমাজের বিভিন্ন দিক। বাবা নাই, ভাই নাই, মায়ের একমাত্র সন্তান সোনাই। রূপে-গুণে অতুলনীয়। তার মা তাকে তার মামার কাছে রেখে আসে সুন্দর ভালো পাত্রের সঙ্গে বিয়ে দেয়ার জন্য। ঘটকের আনা কোন পাত্রই মামা-মামীর পছন্দ হয় না। এরই মধ্যে সোনাইয়ের সঙ্গে মাধবের দেখা হয়, হয় পরিচয় এবং প্রেম। নিরবে চলে দেখাশুনা, চিঠি আদান প্রদান। এ গ্রামে এক দেওয়ান ছিল, তার নাম ভাবনা, তার অত্যাচারে সুন্দরী মেয়েরা ঘরের বাইরে যেতে পারতো না। বাঘরার মাধ্যমে জানতে পারে সোনাইয়ের কথা এবং মামার কাছে যায়। মামা প্রথমে সোনাইকে ভাবনার সঙ্গে বিয়ে দিতে রাজি হয় না পরে মৃত্যুর ভয় দেখালে সে রাজি হয়। সোনাই নদী জল আনতে গেলে নদী পাড় থেকে ভাবনার লোকেরা বজরায় তুলে নিয়ে যায়। পথিমধ্যে মাধব তাকে উদ্ধার করে এনে বিয়ে করে। ভাবনা এতে আরও ক্ষিপ্ত হয়ে যায়। সে মাধবের বাবাকে তুলে নিয়ে গিয়ে বিনিময়ে মাধবকে যেতে বলে। মাধব তার বাবার প্রাণ বাঁচাতে ভাবনা দেওয়ানের কাছে গিয়ে আত্মসমর্পণ করে। বেঁচে যায় মাধবের পিতার প্রাণ। এদিকে বাড়ি পিরে মাধবের পিতা সোনাইয়ের কাছে অনুরোধ করে তার সন্তানের প্রাণ বাঁচাতে। সোনাই যদি যায় ভাবনা দেওয়ানের কাছে তবেই ছাড়া পাবে মাধব। স্বামীর প্রাণ বাঁচাতে ছুটে যায় সোনাই, সঙ্গে নিয়ে যায় বিষের বড়ি। দেওয়ান মাধবকে ছেড়ে দিয়ে ঘরে এসে দেখে সোনাই বিষ পানে আত্মহত্যা করেছে। কাহিনী শেষ হয় মাধবের হাহাকারে, সে নদীর ঘাটে বসে সোনাইকে ডেকে চলে।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
Latest News
এক্সক্লুসিভ লাইভ
আপনিও লিখুন
ছবি ভিডিও টিভি
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop