প্রবাসে সময়রিয়াদে স্কুল অ্যান্ড কলেজ ভবন তৈরির সমীক্ষা টিমকে সংবর্ধনা

সময় সংবাদ

fb tw
somoy
প্রবাসীদের স্বপ্ন পূরণে সৌদি আরবে বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের স্থায়ী ভবন তৈরির জন্য সফররত সমীক্ষা টিমকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়েছে রিয়াদে।   
সৌদি আরবে রেমিটেন্স যোদ্ধাদের স্বপ্ন তাদের সন্তানের বিদ্যালয় হবে নিজস্ব ভূমিতে, এ লক্ষ্যে- সৌদি আরবের রাজধানী রিয়াদে অবস্থিত বাংলাদেশ কারিকুলাম অনুযায়ী পরিচালিত বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল স্কুল অ্যান্ড কলেজে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত প্রবাসে বাংলাদেশী স্কুল নির্মানের বিষয়ে ফিজিবিলিটি স্টাডি টিমের সৌদি আরবে আগমন উপলক্ষে এক সংবর্ধনা সভার আয়োজন করা হয়।
বিদ্যালয়ের বোর্ড অব ডাইরেক্টর্সের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মোস্তাক আহম্মদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ডের মহা পরিচালক (এডিশনাল সেক্রেটারী) গাজী মোহাম্মদ জুলহাস এনডিসি বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পরিকল্পনা অধিশাখার উপপ্রধান শেখ মো. শরীফ উদ্দিন, পররাষ্ট্র  মন্ত্রণালয়ের পরিচালক কাজী জিয়াউল হাসান, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের উপসচিব আনোয়ারুল হক, বাংলাদেশ দূতাবাসের শ্রম কাউন্সেলর মেহেদী হাসান, বিদ্যালয়ের বোর্ড অব ডাইরেক্টর্সের ভাইস চেযারম্যান মোঃ রফিকুল ইসলাম, সিগনেটরী মোঃ আবদূল হাকিম, কো-সিগনেটরী ইঞ্জিনিয়ার গোফরান, সদস্য ও কালচারাল ডাইরেক্টর সফিকুল সিরাজুল হকসহ আরো উপস্থিত ছিলেন কমিউনিটির গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।
সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক খাদেমুল ইসলাম ও মোঃ রেদওয়ানুর রহমানের যৌথ সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানের শুরুতে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হাফেজ মোঃ ইব্রাহীম পবিত্র কোরান থেকে তিলাওয়াত করেন।
প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ মো. আফজাল হোসেন তাঁর স্বাগত বক্তব্যে অতিথিবৃন্দকে বিদ্যালয়ে আগমনের জন্য উষ্ণ অভ্যর্থনা জানান কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। প্রবাসের বুকে নিজস্ব ভূমিতে যে পাঁচটি বিদ্যালয় নির্মিত হবে তার একটি হবে আমাদের এই বিদ্যালয়। আমাদের প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশের জাতীয় অর্থনীতিতে এ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা অসামান্য অবদান রেখে চলছে।
পরে বোর্ড অব ডাইরেক্টর্সের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মোস্তাক আহম্মদ বিদ্যালয়ের সার্বিক পরিস্থিতি তুলে ধরেন। প্রতিদিন প্রভাতে বাংলাদেশ দূতাবাসের সাথে বাংলাদেশের লাল সবুজের পতাকা ওড়ে। তিনি দাবি করেন বিশাল ক্রন্তিলগ্ন অতিক্রম করছে এই বিদ্যালয়। প্রাথমিকভাবে সংকট উত্তোরণে প্রধানমন্ত্রী তিন কোটি টাকার আর্থিক অনুদানের মাধ্যমে সংকট কাটিয়ে ওঠতে যে অসামান্য অবদান রেখেছেন তা প্রবাসী রেমিটেন্স যোদ্ধারা আমৃত্যু স্মরণ রাখবে। কিন্তু বর্তমান এবং স্থায়ী সংকট উত্তোরণে বিদ্যালয়টি নিজস্ব ক্যাম্পাসে স্থানান্তরের কোন বিকল্প নাই।
বাংলাদেশ দূতাবাসের শ্রম কাউন্সেলর মেহেদী হাসান এ ধরণের সুন্দর আয়োজনের জন্য সকলকে ধন্যবাদ জানান এবং বিদ্যালয়ের দাবীর সাথে সহমত প্রকাশ করেন। তিনি বিদ্যালয়ে মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস চর্”ার অনুরোধ জানান। বিদ্যালয়ের নিজস্ব ভবনে স্থানান্তরের বিষয়ে সম্মিলিতভাবে সিদ্ধান্ত নেবার কথা জানান।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি তাঁর বক্তৃতায় বলেন, আমরা এসেছি আপনাদের সমস্যাগুলো দেখে সমস্যা সমাধানে একটি সুনির্দিষ্ট প্রস্তাব করা। প্রবাসীদের কল্যাণ সাধন করাই আমাদের মূল লক্ষ্য। প্রবাসীদের জন্য আমাদের নির্দিষ্ট পরিমাণ ঋণের ব্যবস্থা করা হয়ে থাকে। শিক্ষা বিস্তারেও আমরা কাজ করে থাকি। প্রবাসীদের সন্তানদের শিক্ষা বৃত্তির ব্যবস্থা করে থাকি। প্রবাসে শিক্ষা বিস্তারে আমরা সদা তৎপর। ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ড ছয়টি স্কুল ভিজিট করবে এবং অবকাঠামো নির্মানে অবস্থা বিবেচনায় সিদ্ধান্ত নেবে। হাজার সমস্যা থাকবে কিন্তু মাইগ্রেশন বন্ধ হবে না এই বিদ্যালয় থাকবে এখানে ছাত্রছাত্রীরা পড়ালেখা করবে। তিনি বলেন প্রবাসীদের কারণে আমাদের দেশে বেকার সমস্যা অনেকাংশে নিয়ন্ত্রণে আছে। আপনাদের অবদান আমরা শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করি। স্কুল টেকসই করার ক্ষেত্রে বোর্ড অব ডাইরেক্টর্সের অবদান অপরিহার্য মনে করেন এবং এ সুন্দর আয়োজনের জন্য সবাইকে ধন্যবাদ জানান।
অনুষ্ঠান শেষে ফিজিবিলিটি টিম বিদ্যালয়ের জন্য নির্বাচিত ভূমি পরিদর্শনে যান।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop