মহানগর সময়ছাত্রদলের ভোটগ্রহণ সম্পন্ন

সময় সংবাদ

fb tw
somoy
ছাত্রদলের নতুন নেতা নির্বাচনে ভোটাভুটি সম্পন্ন হয়েছে। আদালতের স্থগিতাদেশ সত্ত্বেও বুধবার (১৮ সেপ্টেম্বর) বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাসের শাহজাহানপুরের বাসভবনে কাউন্সিল করা হয়। রাত আটটায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়ে রাত সোয়া ১২টায় শেষ হয়। মোট ৫৩৪ জন কাউন্সিলরের মধ্যে নির্বাচনে ভোট প্রদান করেন ৪৯০ জন। গোপন ব্যালটের মাধ্যমে এ ভোটগ্রহণ করা হয়।
রাত সাড়ে ৯টার দিকে ছাত্রদল নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহ্বায়ক খায়রুল কবির খোকন সংবাদমাধ্যমকে বলেন, নানা প্রতিকূলতা ও প্রতিবন্ধকতা অতিক্রম করে আমরা গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় নেতা নির্বাচনের কাজটি শুরু করেছি। ভোটের পর দ্রুত গণনার কাজ শুরু করে ফলাফলও ঘোষণা করব।
ছাত্রদলের সভাপতি পদে ৯ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। আর সাধারণ সম্পাদক পদে ১৯ জন প্রার্থী। ৫৩৪ জন কাউন্সিলর ভোট দেয়ার কথা থাকলেও কাউন্সিলে অংশ নিতে আসা কাউন্সিলরসহ গত দু'দিনে ৪০ জনের বেশি ছাত্রদল নেতাকর্মীকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।
এবারের সভাপতি পদের প্রার্থীরা হলেন- কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবণ, ফজলুর রহমান খোকন, হাফিজুর রহমান, মামুন বিল্লাহ (মামুন খান), এরশাদ খান, মাহমুদুল আলম সরদার, সাজিদ হাসান বাবু, মাহমুদুল হাসান বাপ্পি এবং রিয়াদ মো. তানভীর রেজা রুবেল।
আর সাধারণ সম্পাদক পদে প্রার্থীরা হলেন- শাহনেওয়াজ, জুয়েল হাওলাদার, আমিনুর রহমান আমিন, জাকিরুল ইসলাম জাকির, সাদিকুর রহমান, কেএম সাখাওয়াত হোসাইন, সিরাজুল ইসলাম, ইকবাল হোসেন শ্যামল, তানজিল হাসান, কারিমুল হাই নাঈম, মাজেদুল ইসলাম রুমন, ডালিয়া রহমান, শেখ আবু তাহের, মুন্সি আনিসুর রহমান, মিজানুর রহমান শরীফ, শেখ মো. মসিউর রহমান রনি, মোস্তাফিজুর রহমান, সোহেল রানা ও কাজী মাজহারুল ইসলাম।
বুধবার নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ছাত্রদলের কাউন্সিল হওয়ার কথা ছিলো। সে মোতাবেক কাউন্সিলর, প্রার্থী ও নেতা-কর্মীরা বিএনপির নয়াপল্টন অফিসের সামনে জড়ো হতে থাকেন। ছাত্রদলের পদপ্রত্যাশী কয়েকজন নেতা জানিয়েছেন, বিকেল পাঁচটার দিকে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান কাউন্সিলর, প্রার্থী ও দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতাদের সঙ্গে স্কাইপের মাধ্যমে বৈঠক করেন। সেখানেই সিদ্ধান্ত হয় মির্জা আব্বাসের বাসায় কাউন্সিল করার।
বিএনপি নেতারা জানিয়েছেন, কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে জায়গা সংকুলান, বিদ্যুতের সমস্যাসহ বেশ কিছু সমস্যার কারণে সেখান থেকে কাউন্সিল সরিয়ে মির্জা আব্বাসের বাসায় নেয়া হয়েছে।
জানা গেছে, তারেক রহমানের সঙ্গে বৈঠকের পর ছাত্রদলের নেতাদের সঙ্গে বিএনপির শীর্ষস্থানীয় নেতদের আবারো বৈঠক হয়। এরপর রাত আটটায় শুরু হয় ভোট। পাঁচটি বুথে সব বিভাগের ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়।
গত ১৩ সেপ্টেম্বর ঢাকার চতুর্থ জজ আদালত সাবেক কমিটির সহধর্মবিষয়ক সম্পাদক আমান উল্লাহর দায়ের করা মামলায় ১৪ সেপ্টেম্বরের নির্ধারিত কাউন্সিলের ওপর স্থগিতাদেশ দেন। একই সঙ্গে আদালত বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ ১০ জনকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেন।
আদালতের স্থগিতাদেশের পরেও কাউন্সিল করতে কোনো সমস্যা হবে না বলে দাবি করেছেন বিএনপি নেতারা।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop