আন্তর্জাতিক সময়২২ আফ্রিকান প্রেসিডেন্টের ঘাতক ফ্রান্স

মেহেদী হাসান

fb tw
somoy
ফ্রান্সের ঔপনিবেশিক ক্ষমতার সঙ্গে তাল না মিলিয়ে স্বাধীনতার পক্ষে কথা বলায় কিংবা স্বাধীন থাকতে চাওয়ায় ১৯৬৩ সাল থেকে ২২ জন আফ্রিকান প্রেসিডেন্টকে হত্যা করেছে ফ্রান্স। দেশটির চক্রান্তের শিকার হয়ে প্রাণ হারানো এসব প্রেসিডেন্টের তালিকায় সর্বশেষ যুক্ত হওয়া নাম মুয়াম্মর গাদ্দাফি।
এসব হত্যা কিংবা অভ্যুত্থান ঘটানোর পেছনে ছিল ফ্রান্সের তিনটি গোয়েন্দা সংস্থা।
আর এই সংস্থাগুলো হলো এসডিইসিই, ডিজিএসই এবং ডিএসটি। এগুলোই আফ্রিকায় অভ্যুত্থান ঘটানো এবং মহাদেশটির বিভিন্ন দেশের প্রেসিডেন্টকে হত্যার জন্য দায়ী বলে উল্লেখ করে এক উপ-সম্পাদকীয় প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে আফ্রিকান গ্লোব।
দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর নিজেকে ফ্রান্সের একমাত্র নেতা দাবি করা চার্লস ডি গলের আমল থেকেই ফ্রান্স কর্তৃপক্ষ আফ্রিকানদের সঙ্গে এমনটি করে আসছেন। ফ্রান্সের সরাসরি মদদে আফ্রিকায় যে পরিমাণ অভ্যুত্থান হয়েছে তাতে দেশটির বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে একটি অভিযোগ দায়ের করা যেতেই পারে বলে ওই উপ-সম্পাদকীয়তে পরামর্শ দেয়া হয়।
ফ্রান্স আফ্রিকায় যেভাবে হত্যা এবং লুটপাট করেছে সে সম্পর্কীয় বিভিন্ন ডকুমেন্টারি আফ্রিকান এবং ফ্রান্সের বিভিন্ন টেলিভিশন চ্যানেলে হরহামেশাই প্রচার করা হয়। ফ্রান্সের এসডিইসিই আফ্রিকাতে বিভিন্ন ভুয়া তথ্য ছড়ানোর জন্য কাজ করে থাকে।
আফ্রিকাকে নিজেদের অধীনে রাখতে সর্বক্ষণ কাজ করে যাচ্ছে ফ্রান্সের গোয়েন্দা সংস্থা ডিজিএসই। ডিএসটি নামের অপর একটি সংস্থা কাজ করে ফ্রান্সের অভ্যন্তরীণ ও বাহিরের নিরাপত্তা রক্ষায়। ফ্রান্স যাতে অভিবাসী সমস্যায় না পড়ে সেজন্যও কাজ করে এই সংস্থাটি। ডিজিএসই, ডিএসটি এবং এসডিইসিই নামের সংস্থাগুলো ছাড়া ফ্রান্সের মিলিটারি ইন্টিলিজেন্স আফ্রিকার বিভিন্ন সংঘর্ষে অপপ্রচার চালাতে কাজ করে।
মূলত চারটি সুফলের কারণে ডি গল কখনোই আফ্রিকার পূর্ণ স্বাধীনতা চাননি। এর প্রথম কারণ হচ্ছে, জাতিসংঘে ফ্রান্সের পক্ষে ভোট দেয়া দেশের সংখ্যা বৃদ্ধি। দ্বিতীয়ত, আফ্রিকার তেল, ইউরেনিয়াম, স্বর্ণ, কাঠ ও কোকোয়া বাজেয়াপ্ত করা। তৃতীয়ত ফ্রান্সের রাজনীতিতে অর্থায়ন। চতুর্থত যুক্তরাষ্ট্রের অনুচর হয়ে আফ্রিকাকে নিয়ন্ত্রণে রাখা।
মূলত এই চারটি কারণে ফ্রান্স এমন একটি জাল তৈরি করেছে যা তার ঔপনিবেশিক ক্ষমতাকে ক্ষুণ্ণ না করে। এই কারণে আফ্রিকায় এখনও রক্ত ঝরছে।
তোগোতে গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত প্রথম রাষ্ট্রপতি সিলভানাস অলিম্পিওকের বিরুদ্ধে এক অভ্যুত্থানের পর ১৯৬৩ সালের ১৩ জানুয়ারি হত্যা করা হয়। সেখানে ফ্রান্সের সরাসরি মদদ ছিল বলে স্বীকর করা হয়। ওই অভ্যুত্থানের নেতৃত্ব দেয়া এতিয়েন আইয়াদেমা এরপর প্রায় চার দশক ক্ষমতায় ছিলেন।
ফ্রান্স নাইজার থেকে যেই দামে ইউরেনিয়াম কিনত তার চেয়ে বেশি দামে অন্য দেশে বিক্রির ঘোষণা দিয়েছিলেন দেশটির নেতা হামানি ডিওরি। তবে এই ঘোষণার জন্য তাকে জীবন দিতে হয়েছিল। কারণ ওই ঘোষণার পর নাইজারে অভ্যুত্থান হয় এবং তাকে হত্যা করা হয় নৃশংসভাবে। এভাবে মহাদেশের একের পর এক নেতার বিরুদ্ধে অভ্যুত্থান ঘটানোর পেছনে মদদ দান ও সরাসরি হত্যায় অংশ নেয় ফ্রান্স।
মূলত ফ্রান্সের পুতুল হতে অস্বীকৃতি জানানোর কারণেই মহাদেশটির একের পর এক নেতাকে হত্যা করা হয় বলে উল্লেখ করা ওই লেখায়।
যেসব আফ্রিকান প্রেসিডেন্টের ঘাতক ফ্রান্স:
১. ১৯৬৩ সালে তোগোর প্রেসিডেন্ট সিলভানাস অলিম্পিওকে।
২. ১৯৬৬ সালে নাইজেরিয়ার প্রেসিডেন্ট জন-আগুয়ই ইরনসিকে।
৩. ১৯৬৯ সালে সোমালিয়ার প্রেসিডেন্ট আব্দিরাখিদ-আলি শর্মেককে।
৪. ১৯৭২ সালে জানজিবারের প্রেসিডেন্ট অ্যাবিড-আমানি কারুমকে।
৫. ১৯৭৫ সালে মাদাগাস্কারের প্রেসিডেন্ট রিচার্ড রত্সিমন্দ্রাভকে।
৬. ১৯৭৫ সালে চাদের প্রেসিডেন্ট ফ্রান্সোইস-এনগার্টা টম্বলবায়েকে।
৭. ১৯৭৬ সালে নাইজেরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুরতলা-রামাত মোহামেডকে।
৮. ১৯৭৭ সালে কঙ্গোর প্রেসিডেন্ট মারিয়েন জিউবাইকে।
৯. ১৯৭৭ সালে ইথিওপিয়ার প্রেসিডেন্ট তিফেরি বান্তিকে।
১০. ১৯৮১ সালে মিশরের প্রেসিডেন্ট আনোয়ার এল-সাদেতকে।
১১. ১৯৮১ সালে লাইবেরিয়ার প্রেসিডেন্ট উইলিয়াম রিচার্ড তোলবার্তকে।
১২. ১৯৮৭ সালে বার্কিনো-ফাসোর প্রেসিডেন্ট থমাস শঙ্করকে।
১৩. ১৯৮৯ সালে কোমোরসের প্রেসিডেন্ট আহম্মেদ আবদাল্লাকে।
১৪. ১৯৮৯ সালে লাইবেরিয়ার প্রেসিডেন্ট শামুয়েল-ক্যানিয়ন ডিওকে।
১৫. ১৯৯২ সালে আলজেরিয়ার প্রেসিডেন্ট মোহাম্মেদ বোদিয়াফকে।
১৬. ১৯৯৩ সালে বুরুন্ডির প্রেসিডেন্ট মেলচিয়ার এনডেডায়কে।
১৭. ১৯৯৪ সালে বুরুন্ডির প্রেসিডেন্ট সাইপ্রিন এন্টারিয়ামিরকে।
১৮. ১৯৯৪ সালে রুয়ান্ডার প্রেসিডেন্ট জুভেনাল হাবিয়ারিমানাকে।
১৯. ১৯৯৯ সালে নাইজারের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম বারে-মেইনাসারাকে।
২০. ২০০১ সালে কঙ্গোর প্রেসিডেন্ট লরেন্ট-ডিজায়ারড কাবিলাকে।
২১. ২০০৯ সালে গিনি বিসাউয়ের প্রেসিডেন্ট বার্নার্ডো ভায়েরাকে।
২২. ২০১১ সালে লিবিয়ার প্রেসিডেন্ট মুয়াম্মর গাদ্দাফিকে।
 

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop