খেলার সময়নির্বাচন প্রক্রিয়ায় অস্থিরতার প্রভাব ক্রিকেটারদের পারফরম্যান্সে: ফারুক আহমেদ

সময় সংবাদ

fb tw
somoy
কোন ফরম্যাটে, কোন উইকেটে কোন ক্রিকেটার স্বাচ্ছন্দ্যে খেলতে পারবে, সেটা বিবেচনায় না রেখেই দল গঠন করছে বিসিবির বর্তমান নির্বাচক প্যানেল। আবার হঠাৎ জাতীয় দলে সুযোগ পেয়ে ভালো করতে না পারলে, একেবারেই হারিয়ে যাচ্ছে অনেকে। দল নির্বাচন প্রক্রিয়ায় এই অস্থিরতার প্রভাব পড়েছে ক্রিকেটারদের পারফরম্যান্সেও। এমনটাই মনে করেন বোর্ডের সাবেক প্রধান নির্বাচক ফারুক আহমেদ। ২০২০ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ সামনে রেখে দল গঠনে আরো বেশি বিচক্ষণতার পরিচয় দিতে হবে বলেও মনে করেন তিনি।
বিশ্বকাপের পর থেকেই দেশের ক্রিকেটের অস্থিরতা স্পষ্ট বোঝা যায়। মাঠের পারফরম্যান্সে কেমন এক আড়ষ্টতা গোটা দলে। স্কোয়াড গঠনে এলোমেলো সিদ্ধান্ত এবং ঐ নির্দিষ্ট সিরিজে সাফল্য না পাওয়া- ঘটনাগুলো নির্বাচক প্যানেলকেও দাঁড় করায় কাঠগড়ায়।
বিসিবির সাবেক প্রধান নির্বাচক ফারুক আহমেদ বলেন, ‘কোন খেলোয়াড় কেনও চান্স পেল, কেন বাদ পড়লো এই ব্যাখ্যাটা আমরা এখন আমরা দেখতে পাই না। যেহেতু আমরা সিলেকশন প্রসেসটা আমরা ভালোভাবে করছি না। সেজন্য এ অস্থিরতা টিমের মধ্যে অনেক। দলের কয়েকজন খেলোয়াড় বাদে ৬নম্বর খেলোয়াড় কে হবে সেটা বলতে পারি না।’
দল গঠন নিয়ে দোলাচলের উদাহরণ পেতে খুব বেশি পেছনে তাকাতে হয়না। বিশ্বকাপে রাহিকে নিয়ে বসিয়ে রাখা, এরপর আফগানদের বিপক্ষে টেস্টসুলভ দল গঠনে ব্যর্থতা, ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজে দু'ম্যাচ যেতেই আরো একবার স্কোয়াড পরিবর্তন কিংবা ঘরোয়া ক্রিকেটে হাতেগোনা কয়েকটি ম্যাচ খেলা আমিনুল ইসলাম বিপ্লবের আন্তর্জাতিক অভিষেক। এমন অগণিত ঘটনা আছে নিকট অতীতেই। দলে ঢুকতেই যেনো বাদ পড়ার শঙ্কায় আচ্ছন্ন হতে হয় নতুনদের। কিন্তু, দিনের পর দিন পারফর্ম না করেও তো দিব্যি খেলে যাচ্ছেন কেউ কেউ। আবার, নির্দিষ্ট ক্রিকেটারের খেলার ধরন বিবেচনা না করেই যেকোনো কন্ডিশন কিংবা ফরম্যাটে নামিয়ে দেয়া হচ্ছে জাতীয় দলের জার্সিতে।
বিসিবির সাবেক প্রধান নির্বাচক ফারুক আহমেদ বলেন, ‘নাজমুল হাসান শান্ত সবচেয়ে ডিফিকাল্ট একটা জায়গায় চান্স পেল। সে নিউজিল্যান্ডে টেস্ট খেলল। কিন্তু ভালো করলো না। তারপরও বাদ হয়ে সে খেলল ওয়ানডে ম্যাচে। সাকসেফুল হয়ে টি-টোয়েন্টি খেলল। অনেককে নিয়ে আসা হয়। একটা ম্যাচ দেখে তাকে বাদ দেওয়া হয়। ২০২০ সালে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। আশাকরি বোর্ড এ বিষয়ে ভাববে।’
২০০৩-০৭ আর ২০১৩-১৬ দুই দফায় বিসিবির নির্বাচকের দায়িত্বে ছিলেন ফারুক আহমেদ। সাকিব, তামিম, মুশফিক, মাহমুদুল্লাহদের মতো টাইগার ক্রিকেটকে রাজত্ব করা এই প্রজন্মের উত্থান তার সময়েই। বর্তমান নির্বাচক প্যানেলের প্রতি তার পরামর্শটা পরিস্কার। সাময়িক নয়, ভাবতে হবে দীর্ঘস্থায়ী সাফল্য নিয়ে।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop