ksrm

তথ্য প্রযুক্তির সময়বিটিসিএলের অনুমোদনেই ক্যাসিনো প্রশিক্ষণ?

মেহেদী হাসান

fb tw
somoy
অনলাইনে ক্যাসিনো কীভাবে খেলবেন? কোন ওয়েবসাইটে খেলবেন? কিংবা ক্যাসিনোর টাকা কীভাবে পরিশোধ করবেন বা উত্তোলন করবেন? এসব কিছুরই নির্দেশনা রয়েছে বাংলাদেশি ওয়েবসাইটে। বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন্স কোম্পানি লিমিটেড (বিটিসিএল) অনুমোদিত ওয়েবসাইটেই ক্যাসিনো খেলুড়েদের এমন প্রশিক্ষণ ও সহায়তা করা হচ্ছে।
এ বিষয়ে তথ্য ও প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞরা বিস্ময় প্রকাশ করলেও অবস্থান পরিষ্কার করেনি বিটিসিএল। অন্যদিকে র‍্যাব বলছে, এমন উস্কানিমূলক ওয়েবসাইট ও তার পরিচালনাকারীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
দেশে ডট বিডি ডোমেইনের রেজিস্ট্রেশন নিতে হলে অনুমোদন নিতে হয় সরকারি সংস্থা বিটিসিএল থেকে। এক্ষেত্রে ডোমেইনের নাম, পরিচালনাকারীর পরিচয়সহ আরও বেশকিছু তথ্য দিয়েই নিতে হয় এ ডোমেইন রেজিস্ট্রেশন। নাম নির্বাচনের ক্ষেত্রে বিটিসিএল প্রাথমিক একটি ‘অনুসন্ধান’ও করে। যেমন কেউ যদি কোনো প্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠানের নামে রেজিস্ট্রেশন নিতে চায় কিংবা অবৈধ কোনো কাজ কিংবা সংগঠনের নামে ডোমেইন নিতে ইচ্ছুক হন তবে তার অনুমোদন সাধারণত দেয়া হয় না। যেমন কেউ যদি চায় আল-কায়েদা কিংবা আইএসআইর নামে ডোমেইন নেবে তবে সেই ডোমেইনের নিবন্ধনের আবেদন সাধারণত বাতিল করে সংস্থাটি।
তবে নামের সঙ্গে ক্যাসিনো জুড়ে দেয়া ওয়েব অ্যাড্রেসের অনুমোদন দিয়েছে বিটিসিএল। অনলাইন ক্যাসিনো রিপোর্টস ডট নেট ডট বিডি (https://www.onlinecasinoreports.net.bd/) নামের ওই ওয়েবসাইটে ক্যাসিনো খেলতে ইচ্ছুকদের প্রশিক্ষণ দেয়ার পাশাপাশি বিজ্ঞাপনও রয়েছে একাধিক ক্যাসিনো ওয়েবসাইটের। ২০১৮ সালে আরিফুল ইসলাম নামের এক ব্যক্তিকে দুই বছরের জন্য ওয়েবসাইটির নিবন্ধন দেয় নিয়ন্ত্রক এ সংস্থাটি।
ওয়েবসাইটটিতে প্রবেশ করা মাত্রই এটি জানান দিচ্ছে এরা অনলাইন ক্যাসিনো ওয়েবসাইটের রিভিউ, রেটিং এবং কোন কোন ক্যাসিনো সাইট বাংলাদেশি ক্যাসিনো খেলুড়েদের জন্য ‘ভালো’। এছাড়া ক্যাসিনো বোনাস কীভাবে পাবেন সেটা বাতলে দেয়া ছাড়াও তাগাদা দেয়া রয়েছে দ্রুত খেলা শুরু করার।
ওয়েবসাইটের শুরুতেই ভিজিটরদের ক্যাসিনো খেলার তাগিয়ে দিয়ে লেখা হয়েছে, ‘...আপনার ক্যাসিনো নির্বাচন করুন, আপনার বোনাস দাবি করুন এবং এখনি খেলা শুরু করুন!’
এছাড়া ওয়েব সাইটের বর্ণনায় বলা হয়েছে, ‘অনলাইন ক্যাসিনোর রিভিউ ছাড়াও বাংলাদেশি খেলোয়াড়েরা নিজেদের সহায়ক নির্দেশিকা যা তাদের উত্তেজনাপূর্ণ অনলাইন ভিত্তিক জুয়ার দুনিয়ায় স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করাবে তাতে অন্তর্ভুক্ত করাতে পারবে; যা থেকে তারা প্রক্রিয়াগুলো কীভাবে সম্পন্ন হয় থেকে শুরু করে কীভাবে বাংলাদেশি ক্যাসিনো খেলোয়াড় এবং বাংলাদেশি স্পোর্টস বেটিং ভক্তদের মাঝে সবচেয়ে জনপ্রিয় গেমসগুলো খেলতে হয় তা বুঝতে ও জানতে পারবে।’
ওয়েবসাইট ও এর কন্টেন্ট নিয়ে বিস্ময় প্রকাশ করে তথ্য ও প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ সালাহউদ্দিন সেলিম সময় নিউজকে বলেন, বিটিসিএল থেকে একজন সাধারণ মানুষকে কোনো ডোমেইনের নিবন্ধন নিতে হলে অনেক ঝক্কি পোহাতে হয়। আর সেখানে নিষিদ্ধ একটি বিষয় নিয়ে এমন ওয়েবসাইটের অনুমোদন তারা কীভাবে দিলেন? আর অনুমোদন দেয়ার পর এর কন্টেন্টগুলো কী এরা কখনোই দেখেননি? এর মানে কি ইন্টারনেটে তাদের কোনো নজরদারিই নেই?
এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিটিসিএলের ডোমেইন বিভাগের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা সময়নিউজকে বলেন, ‘কোনো নিষিদ্ধ বিষয় নিয়ে কেউ ডোমেইন নিতে চাইলে আমরা সাধারণত সেটার অনুমোদন দেই না। ক্যাসিনো নিয়ে এই ডোমেইনটার অনুমোদন দেয়ার সময় হয়তো চিন্তা করা হয়েছিল তারা ক্যাসিনো সম্পর্কে শিক্ষামূলক কিছু প্রচার করবে। তবে ডোমেইনের রেজিস্ট্রেশন দেয়ার পর সেটা বিটিআরসি, এমটিএমসি ও গোয়েন্দা বিভাগ পর্যবেক্ষণ করে। তারা কোনো কিছু আপত্তিকর বলে জানালে তখন আমরা সেই ওয়েবসাইটের ডোমেইন রেজিস্ট্রেশন বন্ধ করে দেই।’
তবে এ সাইটে যেহেতু আপত্তিকর কন্টেন্ট রয়েছে তাই এটার বিষয়ে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও জানান তিনি।
বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে বিটিসিএলের জনসংযোগ ও পরিসংখ্যান বিভাগের পরিচালক মীর মোহাম্মদ মোরশেদ সময়নিউজকে বলেন, ‘ক্যাসিনো নিয়ে ওয়েবসাইটের রেজিস্ট্রেশন দেয়া যাবে না এটা কী বাংলাদেশের কোনো আইনে আছে? থাকলে বলেন সেটার বিরুদ্ধে আমরা ব্যবস্থা নেব।’
বাংলাদেশের আইনে ক্যাসিনো খেলা নিষিদ্ধ এবং এর বিরুদ্ধে সরকারের কঠোর অবস্থানের পরও তারা কীভাবে এমন ডোমেইনের রেজিস্ট্রেশন দিলেন সেই বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি অপর এক কর্মকর্তার সঙ্গে যোগাযোগ করতে বলেন।
র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল সারওয়ার বিন কাশেম এ বিষয়ে বলেন, ‘ওয়েবসাইটটি আমাদের সাইবার টিম পর্যবেক্ষণ করছে। এ ওয়েবসাইটের কন্টেন্টের মাধ্যমে যদি ক্যাসিনো খেলতে সহায়তা করা হয় এবং উস্কানি দেয়া হয় তবে দোষীকে অবশ্যই আইনের আওতায় আনা হবে। এ বিষয়ে আমাদের কঠোর নজরদারি রয়েছে।’
বিষয়টি নিয়ে ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বারের ব্যক্তিগত মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল দেয়া হলেও তিনি রিসিভ করেননি।

আরও পড়ুন

ক্যাসিনোতে সব হারানো যুবকের গল্প!এখনও চলছে ক্যাসিনোসময়ে প্রতিবেদনের পর ক্যাসিনো প্রশিক্ষণের ওয়েবসাইট বন্ধ

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
Latest News
আপনিও লিখুন
ছবি ভিডিও টিভি
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop