বিনোদনের সময়পাঁচদিনের আল্টিমেটাম দিয়ে মিশা-জায়েদকে উকিল নোটিশ

বিনোদন প্রতিবেদক

fb tw
somoy
কয়েকদিন পরেই নির্বাচন হতে যাচ্ছে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির। এই নির্বাচনকে ঘিরেই তৈরি হয়েছে উৎসব। শূন্য এফডিসি এখন কানায় কানায় পূর্ণ। চলছে প্রচারণাসহ নানা রকম প্রস্তুতি।  চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চনকে প্রধান কমিশনার করে আগামী ২৫ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে এই নির্বাচন। তবে তার আগেই সমিতির সদস্যপদ নিয়ে শুরু হয়েছে হৈচৈ।
বিদায়ি কমিটির সভাপতি মিশা সওদাগর ও সাধারণ সম্পাদক অন্যায়ভাবে কয়েকজন সদস্যকে বাদ দেওয়া ও অনেক অযোগ্যকে সদস্য করে নেওয়ার উপর অভিযোগ দায়ের করে পাঁচদিনের আল্টিমেটাম দিয়েছেন চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সদস্য ফাইট ডিরেক্টর মো. শেখ শামীম।
গত বৃহস্পতিবার (৩ অক্টোবর) শিল্পী সমিতির সভাপতি মিশা সওদাগর ও সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খানের নামে উকিল নোটিশ পাঠান তিনি।
নোটিশে তিনি অভিযোগ আনেন, শিল্পী সমিতির নির্বাচন সামনে রেখে প্রকাশিত ভোটার তালিকায় শিল্পী সমিতির বর্তমান কমিটি অন্যায়ভাবে তার সদস্যপদ বাতিল করেছে। এছাড়া অযোগ্যদের সমিতির সদস্য করে নেওয়া হয়েছে।
নোটিশে আরও বলা হয়, পাঁচদিনের মধ্যে যদি পূর্ণ সদস্যপদ ফিরিয়ে দেয়া না হয় তিনি আইনগত পদক্ষেপ নেবেন।
শামীম জানান, নব্বই দশক থেকে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সদস্য তিনি। তখন থেকে তিনি সমিতির নির্বাচনে নিয়মিত ভোট দিয়ে আসছেন। কিন্তু ২০১৭ সালে যখন তিনি শিল্পী সমিতির চাঁদা দিতে যান তখন তিনি জানতে পারেন যে, তার সদস্যপদ নেই। শাকিব খান ও অমিত হাসান ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় সদস্য তালিকা থেকে তার নাম ফেলে দেয়া হয়। সেটা ছিল ব্যক্তি আক্রোশ থেকে নেয়া সিদ্ধান্ত। ফলে সর্বশেষ নির্বাচনে তিনি ভোট দিতে পারেননি।
তিনি সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের কাছে সদস্যপদ ফিরে পেতে মৌখিক ও লিখিত আবেদন করেন। তবুও তারা নতুন ভোটার তালিকায় জায়গা দেননি শামীমকে। সর্বশেষ ভোটার তালিকায় নিজের নাম দেখতে না পেয়ে এবার তিনি আদালতে গেছেন। আইনি লড়াইয়ে নিজের ভোটাধিকার ফিরে পাওয়ার প্রত্যাশী তিনি।
এদিকে নোটিশের প্রাপ্তি স্বীকার করেননি চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান। তিনি বলেন আমরা কোনও উকিল নোটিশ পাইনি। উকিল নোটিশ হাতে পেলে বুঝতে পারবো তিনি কি কারণ ব্যাখ্যা দিয়েছেন।
জায়েদ খান সময় সংবাদকে জানান, শেখ শামীমের সদস্যপদ বাতিল হয় সাত-আট বছর আগে। তিনি শিল্পী সমিতির সদস্য নন। তাই এখন উকিল নোটিশ পাঠানো ভিত্তিহীন।  আর তাই যদি হয়ে থাকে তবে সেটা হচ্ছে আমাদের বিরুদ্ধে অপপ্রচার মাত্র।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop