শিক্ষা সময়প্রভোস্ট প্রত্যাহারসহ ১০ দাবিতে অনড় বুয়েট শিক্ষার্থীরা

সময় সংবাদ

fb tw
সতীর্থ আবরার হত্যাকাণ্ডের বিচার দাবিতে আন্দোলন করছেন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালেয় (বুয়েট) শিক্ষাথীরা। ১০ দফা দাবিতে অনড় থাকবেন বলে জানিয়েছেন তারা। বুধবার (৯ অক্টোবর) সকালে গণমাধ্যমের সামনে তারা ১০ দফা তুলে ধরেন। তাদের দাবি হলো -
১১ অক্টোবর বিকেল ৫টার মধ্যে আজীবনের জন্য ছাত্রত্ব বাতিল নিশ্চিত করতে হবে। বুয়েটের নিহত শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডের মামলা চলাকালীন সব খরচ বুয়েট প্রশাসনকে বহন করতে হবে। এ ছাড়াও পরিবারের সব ক্ষতিপূরণ খরচ বুয়েট প্রশাসনকে বহন করতে হবে এ মর্মে ১১ অক্টোবর বিকেল ৫টার মধ্যে অফিশিয়াল নোটিশ প্রদান করতে হবে।
দায়ের করা মামলা দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের অধীনে স্বল্পতম সময়ে নিস্পত্তি করার জন্য বুয়েট প্রশাসনকে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। বুয়েট প্রশাসনকে সক্রিয় থেকে সমস্ত প্রক্রিয়া নিয়মিত পর্যবেক্ষণ করতে হবে এবং নিয়মিত ছাত্রদের আপডেট করতে হবে।অবিলম্বে চার্জশিটের কপিসহ অফিসিয়াল নোটিশ দিতে হবে। আগামী ১৫ অক্টোবরের মধ্যে বুয়েটে সাংগঠনিক ছাত্র রাজনীতি স্থায়ীভাবে নিষিদ্ধ করতে হবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি কেন ৩০ ঘণ্টা অতিবাহিত হওয়ার পরও ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়নি? ৩৮ ঘণ্টা পর ক্যাম্পাসে এসে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বিরূপ আচরণের জন্য আজ দুপুর ২টার মধ্যে তাকে সশরীরে এসে এ বিষয়ে জবাবদিহিতা করতে হবে।
আবাসিহ হলগুলোতে র‍্যাগের নামে এবং ভিন্ন মতাবলম্বীদের ওপর সব প্রকার শারীরিক মানসিক নির্যাতন বন্ধ করতে হবে। এ ধরনের সন্ত্রাসী কাজে জড়িত সব শিক্ষার্থীর ছাত্রত্ব বাতিল করতে হবে।
একই সঙ্গে আহসান উল্লাহ হল এবং সোহরাওয়ার্দী হলগুলোতে পূর্বের ঘটনাগুলোতে জড়িতদের ছাত্রত্ব বাতিল করে ১১ অক্টোবর বিকেল ৫টার মধ্যে নিশ্চিত করতে হবে।
পূর্বে ঘটা এ রকম ঘটনা প্রকাশ এবং পরবর্তীতে ঘটা যে কোনো ঘটনা প্রকাশের জন্য একটা কমন প্ল্যাটফর্ম থাকতে হবে। সেখানে প্রকাশিত ঘটনার রিভিউ করে দ্রুত সময়ে বিচারের ব্যবস্থা করতে হবে। এ প্ল্যাটফর্ম হিসেবে বুয়েটের বিআইএস অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করতে হবে। এবং ১১ অক্টোবর বিকেল ৫টার মধ্যে দৃশ্যমান অগ্রগতি প্রদর্শন করতে হবে। এবং পরবর্তীতে ১ মাসের মধ্যে কার্যক্রম পূর্ণরূপে শুরু করতে হবে।
নিরাপত্তাা হিসেবে সব হলে প্রত্যেক ফ্লোরের দু’পাশে সিসি ক্যামেরার ব্যবস্থা করতে হবে।
রাজনৈতিক ক্ষমতা ব্যবহার করে আবাসিক হল থেকে ছাত্রদের উৎখাতের ব্যাপারে অজ্ঞ থাকা এবং ছাত্রদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে সম্পূর্ণভাবে ব্যর্থ হওয়া শের-ই-বাংলা হলের প্রভোস্টকে ১১ অক্টোবর বিকেল ৫টার মধ্যে প্রত্যাহার করতে হবে।
রোববার (৬ অক্টোবর) রাতে আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। সোমবার ভোরে শের-ই-বাংলা হলের প্রথম ও দ্বিতীয় তলার সিঁড়ির মধ্যবর্তী জায়গায় আবরারের নিথর দেহ পাওয়া যায়। তার শরীরে অসংখ্য আঘাতের চিহ্ন ছিল।
আবরার ফাহাদ বুয়েটের ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের (ইইই) বিভাগের লেভেল-২ এর টার্ম ১ এর ছাত্র ছিলেন। তিনি শের-ই-বাংলা হলের ১০১১ নম্বর কক্ষে থাকতেন। তার বাড়ি কুষ্টিয়া শহরে। কুষ্টিয়া জেলা স্কুলে তিনি স্কুলজীবন শেষ করে নটরডেম কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেন।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
Latest News
আপনিও লিখুন
ছবি ভিডিও টিভি
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop