আন্তর্জাতিক সময়যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত এফএসএ, যোগ দিচ্ছে তুর্কি সেনারা

সময় সংবাদ

fb tw
somoy
সিরিয়ার উত্তরাঞ্চল থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের বিষয়ে রাশিয়াকে যুক্তরাষ্ট্র অবহিত করেনি বলে জানিয়েছে ক্রেমলিন। আসাদ সরকার এবং রাশিয়াকে সুবিধা দিতেই মার্কিন সেনা প্রত্যাহার করেছে ট্রাম্প প্রশাসন, এমন সমালোচনার প্রতিক্রিয়ায় এ তথ্য জানায় মস্কো।
এদিকে, কুর্দি বিরোধী অভিযান জোরদারে সিরিয় সীমান্তে সামরিক উপস্থিতি আরও কয়েক গুণ বাড়িয়েছে তুরস্ক। সিরিয়ার সার্বভৌমত্ব রক্ষায় তুরস্কের যে কোনো তৎপরতা রুখে দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে আসাদ সরকার।
অভিযানে অংশ নেয়ার লক্ষ্যে কঠোর প্রশিক্ষণে ব্যস্ত তুরস্ক-সমর্থিত বিদ্রোহী গোষ্ঠী ফ্রি সিরিয়ান আর্মি। মঙ্গলবার রকেট লঞ্চারসহ আধুনিক সব অস্ত্র নিয়ে শারীরিক কসরত দেখায় তারা।
নিরাপদ অঞ্চল প্রতিষ্ঠায় কুর্দি-বিদ্রোহী গোষ্ঠী-সিরিয়ান ডেমোক্র্যাটিক ফোর্স-এসডিএফ সদস্যদের হঠাতে তুর্কি সেনাদের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লড়াই করার ঘোষণা দিয়েছে আসাদ-বিরোধী এ সশস্ত্রগোষ্ঠী।
ফ্রি সিরিয়ান আর্মির কমান্ডার জেনারেল আব্দেল মহসিন হুসাইন বলেন, আমরা পুরোপুরি প্রস্তুত। যুদ্ধ অংশগ্রহণের সব প্রস্তুতি শেষ করেছি আমরা। সৃষ্টিকর্তা চাইলে, আমাদের তুর্কি ভাইদের হাতে হাত রেখে এই অঞ্চলে শান্তি প্রতিষ্ঠায় কাজ করবো। আমাদের জনগণের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সব শরীরের শেষ বিন্দু পর্যন্ত রক্ত দিতে আমরা প্রস্তুত।
এর মধ্যেই কুর্দি বিরোধী অভিযান জোরদারে সিরিয় সীমান্তে সামরিক উপস্থিতি জোরদারে কাজ শুরু করেছে তুরস্ক। মঙ্গলবার ট্যাঙ্কসহ ভারী অস্ত্র মোতায়েনের পাশাপাশি বেশ কয়েকটি বাসে করে তুর্কি সেনাবাহিনীর কয়েকশ' সদস্য সিরিয় ভূখণ্ডে প্রবেশ করে।
এরদোয়ান সরকারের সামরিক অভিযানের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ অব্যাহত রেখেছে সাধারণ কুর্দিরা। এদিন সিরিয়ার কুর্দি অধ্যুষিত অঞ্চলে বিক্ষোভ অংশ নেন কয়েকশ' মানুষ। তুর্কি অভিযানের বিরোধিতার পাশাপাশি মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের তীব্র নিন্দা জানান তারা।
স্থানীয়রা বলছেন, সিরিয়ার সাধারণ মানুষ আজ ঐক্যবদ্ধ। তারা দখল বাজদের প্রতিহত করতে প্রস্তুত। আমরা নিরাপদে এবং শান্তিতে বসবাস করতে চাই। সিরিয় সরকার আমাদের পাশে রয়েছে।
আমাদের বহু মানুষকে হত্যা করা হয়েছে। গ্রামের পর গ্রাম ধ্বংস করে দেয়া হয়েছে। সিরিয় সংকট আরো জটিল করতে প্রেসিডেন্ট এরদোয়ান অভিযানের নামে ষড়যন্ত্র করছেন।
এতদিন যুক্তরাষ্ট্র সহযোগিতা করে আসলেও বিপদের মুহূর্তে কুর্দিদের পাশাপাশি দাঁড়িয়েছে আসাদ সরকার। নিজ দেশের নাগরিকদের রক্ষা এবং সার্বভৌমত্ব টিকিয়ে রাখতে তুরস্কের যে কোনো আগ্রাসন রুখে দেয়ার অধিকার সিরিয়ার রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন সরকার দলের এই আইন প্রণেতা।
সিরিয়ার পার্লামেন্ট সদস্য মোহাম্মদ খায়ের আককাম বলেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প কুর্দিদের পাশ থেকে সরে দাঁড়াবে এটা অপ্রত্যাশিত কিছু নয়। তিনি সবাইকেই ব্ল্যাক মেইল করছেন। সেনা প্রত্যাহারের ঘোষণার আগে, পারস্য উপসাগারের দেশগুলোকে জিম্মি করার চেষ্টা করেছেন। এখন তুরস্ককে সেই কাজে ব্যবহার করতে চাইছেন।
প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের বিরুদ্ধে রাশিয়া, ইরান এবং সিরিয়ার আসাদ সরকারকে সুবিধা দিতে মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের অভিযোগ ওঠার একদিন পর এ বিষয়ে মুখ খুলেছে মস্কো। তুর্কি অভিযানের মুখে সিরিয়ার উত্তরাঞ্চল থেকে নিজেদের সেনা প্রত্যাহারের বিষয়ে রাশিয়াকে যুক্তরাষ্ট্র কোনো তথ্য জানায়নি বলে এক বিবৃতিতে দাবি করেছে ক্রেমলিন।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop