ksrm

মহানগর সময়না ফেরার দেশে বিশিষ্ট সাংবাদিক দিল মনোয়ারা মনু

সময় সংবাদ

fb tw
somoy
বিশিষ্ট সাংবাদিক, কলামিস্ট ও ‘পাক্ষিক অনন্যা’র সাবেক নির্বাহী সম্পাদক দিল মনোয়ারা মনু আর নেই। রোববার (১৩ অক্টোবর) দিবাগত রাত দেড়টার দিকে রাজধানীর ইব্রাহিম কার্ডিয়াক হাসপাতালে মারা যান তিনি। তার বয়স হয়েছিল ৬৯ বছর। দিল মনোয়ারা মনুর স্বামী শামসুল হুদা সাংবাদিকদের এ কথা জানান।
তার মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সোমবার (১৪ অক্টোবর) প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইং বিষয়টি জানায়।
গতকাল রাত সাড়ে ১২টার দিকে মনু অসুস্থ হয়ে পড়েন। তিনি বুকে ব্যথা অনুভব করায় তাকে ইব্রাহিম কার্ডিয়াক হাসপাতালে নেয়া হয়। এরপর তার শ্বাসকষ্ট শুরু হলে তিনি মারা যান।
দিল মনোয়ারা মনুর মৃত্যুর খবরে শোকের ছায়া নেমে এসেছে সাংবাদিক অঙ্গনে। নারী সাংবাদিকতার পথিকৃৎ ‘বেগম’ পত্রিকার নূরজাহান বেগমের ঘনিষ্ঠ সহচর ছিলেন তিনি। নারী আন্দোলনসহ বিভিন্ন প্রতিবাদ-আন্দোলনের অত্যন্ত পরিচিত মুখ ছিলেন দিল মনোয়ারা মনু। শারীরিকভাবে কিছুটা অসুস্থ থাকলেও নারী ও মানবাধিকার ইস্যুতে আন্দোলনে শামিল হতেন।
দিল মনোয়ারা নারী সাংবাদিক কেন্দ্রের সহসভাপতি, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির গণমাধ্যম বিষয়ক সম্পাদক ছিলেন। এ ছাড়া কেন্দ্রীয় কচিকাঁচার মেলা, ব্রেকিং দ্য সাইলেন্সসহ বিভিন্ন সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন।
তার ফেসবুক অ্যাকাউন্টে গিয়ে দেখা যায়, মাত্র ১৯ ঘণ্টা আগেও তিনি সেখানে সক্রিয় ছিলেন। বিভিন্ন প্রতিবাদ ও মানবিক ঘটনাগুলোর সংবাদ ও আন্দোলনের ছবি পোস্ট করেছেন। তার মৃত্যুর খবর জানার পর শুভানুধ্যায়ীদের শ্রদ্ধা ও ভালোবাসার বিভিন্ন পোস্টে ছেয়ে গেছে তার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট।
নারী সাংবাদিক কেন্দ্রের সাধারণ সম্পাদক পারভীন সুলতানা ঝুমা বলেন, ‘মনু আপাকে ভালোবাসেন না, এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া যাবে না। প্রত্যেকের প্রতি তার মমতা ছিল। মনু আপার পায়ে কিছুটা সমস্যা ছিল, তিনি লাঠি নিয়ে হাঁটতেন। এরপরও প্রতিটি প্রতিবাদ, আন্দোলনে তিনি আসতেন। মানববন্ধনে দাঁড়াতে পারতেন না বলে চেয়ারে বসে অংশ নিতেও দেখা গেছে তাকে।’
দিল মনোয়ারা মনুর পরিবার থেকে জানানো হয়, ১৯৫০ সালের ২ সেপ্টেম্বর তিনি ফরিদপুরে জন্মগ্রহণ করেন। ইডেন কলেজে পড়াশোনার পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলায় এমএ পাস করেন। ১৯৭৪ সালে ‘বেগম’ পত্রিকার সহসম্পাদক হিসেবে তিনি সাংবাদিকতায় যুক্ত হন। ১৯৮৮ সালে তিনি যোগ দেন ‘পাক্ষিক অনন্যা’য়। ২৫ বছর ‘অনন্যা’য় থাকার সময় তিনি নির্বাহী সম্পাদকের দায়িত্বও পালন করেন।
দিল মনোয়ারা মনুর স্বামী শামসুল হুদা ভূমি অধিকার ও সংস্কার বিষয়ক বেসরকারি সংস্থা অ্যাসোসিয়েশন ফর ল্যান্ড রিফর্ম অ্যান্ড ডেভেলপমেন্টের (এএলআরডি) নির্বাহী পরিচালক।
পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, দিল মনোয়ারা মনুর মরদেহ তার লালমাটিয়ার বাসায় আনা হয়েছে। লালমাটিয়ার বিবির মসজিদে বাদ জোহর তার প্রথম জানাজা হবে। এরপর জুরাইন কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
Latest News
আপনিও লিখুন
ছবি ভিডিও টিভি
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop