ksrm

বাণিজ্য সময়অদৃশ্য শক্তি নিয়ন্ত্রণ করছে খাতুনগঞ্জের পেঁয়াজের বাজার

সময় সংবাদ

fb tw
somoy
অদৃশ্য একটা শক্তি চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জে পেঁয়াজের বাজার নিয়ন্ত্রণ করছে কমিশন এজেন্টের নামে। এটা বন্ধ হওয়া উচিত বলে মনে করেন অনেক। সময় টিভিকে দেয়া একান্ত সাক্ষাতকারে এসব কথা উঠে এসেছে।
দেশের স্থলবন্দর হিলি, সোনা মসজিদ ও ভোমরার পর এবার তৈরি হয়েছে টেকনাফ স্থলবন্দরভিত্তিক আমদানিকারকদের সিন্ডিকেট। ৩৫ থেকে ৪২ টাকায় মিয়ানমার থেকে আমদানি করা পেঁয়াজ চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জের কমিশন এজেন্টদের যোগসাজশে বিক্রি করেছে ৬৫ থেকে ৭০ টাকায়। হাতিয়ে নিয়েছে লাখ লাখ টাকা। আমদানিকারক ও কমিশন এজেন্টেদের এমন সিন্ডিকেটের তথ্য পেয়েছে প্রশাসন।
চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জের আসা পেঁয়াজের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে, তবে অনুসন্ধানে বেড়িয়ে আসে এমন কিছু আমদানিকারক এবং এজেন্টের নাম, যারা সিন্ডিকেট করে খাতুনগঞ্জ বাজার নিয়ন্ত্রণ করছে। জেলা প্রশাসনের হাতে আসা টেকনাফের স্থলবন্দরের এসএস ট্রেডিং, এ আর এন্টারপ্রাইজ, মেসার্স কবির অ্যান্ড সন্স, জাবেদ এন্টারপ্রাইজ এ চারটি আমাদানিকারক ইনভাইস বিলোপ এন্টিরি প্যাকিং লিস্টে মিয়ানমার থেকে প্রতিকেজি পেঁয়াজের রপ্তানি মূল্য ধরা হয়েছে দশমিক ৫ শূন্য ডলার। নিয়মানুযায়ী প্রতিকেজি পেঁয়াজের মূল্য হওয়া কথা রয়েছে ৪২ টাকা বা তার থেকে কিছু কম। তবে খাতুনগঞ্জ বাজারে তা পাইকারি বিক্রি হচ্ছে ৬৫ থেকে ৭০ টাকায়।
চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তৌহিদুল ইসলাম বলেন, মিয়ানমার থেকে পেঁয়াজ আমদানি করছে যেসব প্রতিষ্ঠান তাদের বেশিরভাগ নাম আমরা পেয়েছি, তাদের কাগজপত্র পেয়েছি, সেখান থেকে জব্দ করা হয়েছে।
অভিযোগ ছিল আমদানিকারকের হয়ে খাতুনগঞ্জে হয়ে বেশকিছু কমিশন এজেন্ট কারসাজি করে দাম বাড়াচ্ছে পেঁয়াজের। অভিযানে কাওসার, রফিকসহ ৯টি কমিশন এজেন্টোর নাম তারা খুঁজে পায় ভ্রামমাণ আদালত। সেগুলো হলো সৌমিক ট্রেডার্স, এশিয়ান এন্টারপ্রাইজ, এম এইচ ট্রেডিং কর্পোরেশন, কওাসার ট্রেডার্স,  এ আর এন্টার প্রাইজ, রফিক সওদাগর, এস আর এন্টার প্রাইজ, ইয়াকুব ব্রাদার্স, আইয়ুব ট্রেডার্স। রয়েছে আরো ৪২ কমিশন এজেন্টের নাম।
নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বলেন, ৫১ জনের একটা তালিকা রয়েছে কমিশন এজন্টের। যে দাম তারা বেধে দেয় সেই দামেই পেঁয়াজের দাম ওঠা নামার চেষ্টা করে তারা।  
খাতুনগঞ্জের ৯০ শতাংশ পেঁয়াজ আসে ভারত থেকে। ভারত হঠাৎ করে রপ্তানি বন্ধ করায় মিয়ানমারের বাজার ধরতে নতুন করে সৃষ্টি হয় টেকনাফ- খাতুনগঞ্জ ভিত্তিক সিন্ডিকেট। তাদের হাতে জিম্মি ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষ এমন মন্তব্য চট্টগ্রাম ক্যাবের সভাপতি এস এম নাজের হোসেনের।
তিনি বলেন, এই যে অদৃশ্য একটা শক্তি খাতুনগঞ্জে পেঁয়াজের বাজার নিয়ন্ত্রণ করছে কমিশন এজেন্টের মাধ্যমে এটা বন্ধ হওয়া উচিত।    
খাতুনগঞ্জ ট্রেড অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ ছগির আহমেদ বলেন, সরকার যদি একটু গভীরভাবে চিন্তা করে, কৃষকদের নিয়ে কাজ করে আমার মনে হয় যে ৯ লাখ টন পেঁয়াজ ঘাটতি থাকে, যা ভারতের উপর নির্ভর করতে হয় সেটা থেকে আমরা উত্তরণ করতে পারবো।  
গত ২৯ সেপ্টম্বর পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধের পর খাতুনগঞ্জের ব্যবসায়ীরা একদিন বিক্রি বন্ধ রাখলে পেঁয়াজের দাম ওঠে ১০০ তে। এরপর শুরু হয় মিয়ানমার থেকে পেঁয়াজ আমদানি।
 

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
Latest News
আপনিও লিখুন
ছবি ভিডিও টিভি
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop