ksrm

বাংলার সময়রড দিয়ে মৎস্যজীবী নেতাকে পেটালেন এমপির ভাইয়ের লোকেরা

সময় সংবাদ

fb tw
somoy
বেসরকারি একটি টেলিভিশনের কাছে সাক্ষাৎকার দেওয়ার গাইবান্ধায় এক মৎস্যজীবী নেতাকে বেধড়ক মারধর করেছেন স্থানীয় সংসদ সদস্যের ছোট ভাই লিটন চৌধুরীর লোকেরা। শনিবার (১৯ অক্টোবর) জেলার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায় এ ঘটনা ঘটে বলে অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগীসহ স্থানীয়রা।
ঘটনার কারণ হিসেবে জানা গেছে, গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার প্রায় ১১০টি সরকারি জলমহলের ইজারাকে কেন্দ্র করে স্থানীয় সংসদ সদস্য মোনায়ার হোসেন চৌধুরীর ভাইয়ের কারসাজিতে বিপদে পড়ে স্থানীয় মৎস্যজীবীরা। তাদের একজন শ্রী শম্ভু চন্দ্র দাশ (৩৮)। তার সংগঠনের নামে ৯টি পুকুর ইজারা পেলেও তার ধারে কাছেও যেতে পারেননি শম্ভু ও তার সমিতির মৎস্যজীবীরা। এই অভিযোগের প্রেক্ষিতে বেসরকারি একটি টেলিভিশনে সাক্ষাৎকার দেন তিনি। এর জেরে শনিবার তাকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে রড দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে স্থানীয় সংসদ সদস্য (এমপি) মনোয়ার হোসেন চৌধুরীর ছোট ভাই লিটন চৌধুরীর লোকজন।
বর্তমানে শম্ভু চন্দ্র গাইবান্ধা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।
সরকারি পুকুর লিজে অনিয়মের কথা জানাতে গিয়ে ওই বেসরকারি টিভি চ্যানেলে শম্ভু চন্দ্র বলেছিলেন, আইন অনুযায়ী একটি মৎস্যজীবী সমিতিকে দুটির বেশি পুকুর লিজ দেয়ার নিয়ম নেই। কিন্তু দেখা গেছে ক্ষমতা খাটিয়ে একটি মৎস্যজীবী সমিতিকে ১৪টি পুকুর দেয়া হয়েছে। সরকারি পুকুর লিজ দেয়া নিয়ে এমন ব্যাপক অনিয়ম হয়েছে। আর এসব অনিয়ম ও দুর্নীতি গোবিন্দগঞ্জ (গাইবান্ধা-৪) আসনের সংসদ সদস্য মনোয়ার হোসেন চৌধুরীর ছোট ভাই লিটন চৌধুরীর প্রশ্রয়ে হয়েছে। শুধু তাই নয়, কয়েকটি মৎস্যজীবী সমিতি স্বাক্ষর জাল করে পুকুর লিজ নিয়েছে অভিযোগ করেন তিনি।
গত ৪ অক্টোবর এ অনুষ্ঠানটি ওই প্রচার হলে লিটন চৌধুরীসহ বেশ কয়েকটি মৎস্যজীবী সমিতিগুলোর নেতারা শম্ভু চন্দ্রের ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন।
এরই জেরে পুকুর ইজারা নিয়ে আলোচনা করার কথা বলে শনিবার দুপুরে শম্ভু চন্দ্রকে ডেকে নিয়ে একটি দোকানে ঢুকিয়ে তাকে লোহার রড দিয়ে বেধড়ক পেটানো হয়।
এ বিষয়ে শম্ভু চন্দ্র বলেন, পুকুর ইজারা নিয়ে জরুরি আলাপ রয়েছে জানিয়ে আমাকে লিটন চৌধুরীর কাছের লোক শাখাহার ইউনিয়নের দইহারা গ্রামের শাহিন, রমজান ও আনোয়ারুল বাড়িতে এসে কোচাশহর বাজারে ডেকে নিয়ে যায়। সেখানে গেলেই একটি দোকানে ঢুকিয়ে লোহার রড দিয়ে মারধর শুরু করে তারা। এ সময় তারা বলতে থাকে ‘টিভিতে লিটন চৌধুরীর বিরুদ্ধে কেন কথা বলেছিস’? পরে আশপাশের লোকজন আমাকে উদ্ধার করে নিয়ে গাইবান্ধা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।
এ বিষয়ে সাপমারা মৎস্যজীবী সমবায় সমিতির সভাপতি আব্দুল লতিফ জানান, ৪ অক্টোবরে টিভিতে দেয়া সেই বক্তব্যের পর শম্ভুর ওপর ক্ষেপেছিল লিটন চৌধুরীর লোকজন। পরে সাব-লিজ দেয়া ১১০টি পুকুরের মধ্যে ২৪টি পুকুরের বিষয়ে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে কয়েক মৎস্যজীবী গত ১৪ অক্টোবর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বরাবর লিখিত আবেদন দিলে, আরও ক্ষিপ্ত হয়ে লিটন চৌধুরীর লোকজন। পরে তারা শম্ভুকে নিয়ে মারধর করে।
এ অভিযোগ অস্বীকার করে লিটন চৌধুরী বলেন, পুকুর লিজের বিষয়ে আমি জড়িত নই। আমি এসবের কিছুই জানি না। শম্ভু চন্দ্রকে যারা মারধর করেছে তারা খুবই খারাপ কাজ করেছে। আমি এর সঙ্গে জড়িত নই।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রামকৃষ্ণ বর্মণ এ বিষয়ে বলেন, ২৪টি পুকুরের সাব-লিজের অভিযোগের কাগজ এখনও হাতে পাইনি। পেলে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।
এদিকে এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশ তিনজনকে আটক করেছে।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
Latest News
আপনিও লিখুন
ছবি ভিডিও টিভি
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop