ksrm

আন্তর্জাতিক সময়ষষ্ঠ দিনেও উত্তাল বার্সেলোনা

সময় সংবাদ

fb tw
somoy
টানা ষষ্ঠ দিনের মতো বিক্ষোভে উত্তাল কাতালোনিয়ার রাজধানী বার্সেলোনা। স্পেনের এ অঞ্চলে স্বাধীনতাপন্থী নেতাদের কারাদণ্ডের প্রতিবাদে শনিবারও রাস্তায় নেমে আসেন লাখো বিক্ষোভকারী।
পুলিশের কড়া নিরাপত্তা উপেক্ষা করেই সড়কে জ্বালাও পোড়াও আর ভাঙচুর চালিয়ে অচল করে রাখে পুরো শহর। চলমান উত্তেজনা নিরসনে শনিবার কাতালোনিয়ার প্রেসিডেন্টের সঙ্গে আলোচনার কথা থাকলেও তা বাতিল করেছে স্পেনের কেন্দ্রীয় সরকার।
রাতভর আন্দোলনের পর শনিবার সকালেও অভিন্ন থাকে বার্সেলোনা শহরের বিক্ষোভের চিত্র। রাস্তায়ও দেখা যায় নিরাপত্তা বাহিনীর কঠোর অবস্থান।
কয়েকদিন ধরেই যে সহিংস আন্দোলন চালিয়ে আসছেন কাতালানরা, শক্ত হাতে তা দমন করতেই এ ব্যবস্থা। তারপরও অপ্রতিরোধ্য লাখো প্রতিবাদী কণ্ঠ। 'স্বাধীনতা চাই' 'এই রাস্তা আমাদের', 'রাজনৈতিক নেতাদের মুক্তি চাই', এরকম আরও নানা শ্লোগানে সরব থাকেন তারা।
একসময় বিক্ষোভকারীদের হটিয়ে দিয়ে পুলিশ লাঠিচার্জ করলে উল্টো নিরাপত্তাবাহিনীর ওপর চড়াও হন আন্দোলনরতরা। শুরু হয় দুই পক্ষের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ। পুরো শহর যেন রূপ নেয় রণক্ষেত্রে। বিক্ষোভকারীরা বেশ কয়েকটি গাড়িতে অগ্নিসংযোগ, অনেক দোকানপাট ভাংচুরও করেন।
স্থানীয়রা বলছেন, পরিস্থিতি যে নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে তা সত্য। কিন্তু পুলিশের দমন পীড়নের কারণেই বিক্ষোভকারীরাও ক্ষেপেছে। এই মুহূর্তে আলোচনার কোন বিকল্প নেই। নাহলে পরিস্থিতি আরও অবনতির দিকেই যাবে।
বিক্ষোভ অশান্ত হয়ে উঠেছে বলেই বিশ্ববাসী আজ কাতালোনিয়ার পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বিগ্ন। এতোদিন কেউ মাথা ঘামায়নি।
কাতালোনিয়ার স্বাধীনতার দাবিতে ২০১৭ সালে যে গণভোটের আয়োজন করা হয়েছিল, তাদের ভূমিকা রাখায় ৯ স্বাধীনতাকামী নেতাকে কারাদণ্ড দেন স্পেনের আদালত। সুপ্রিম কোর্টের এ রায়ের বিরোধিতা করেই এ বিক্ষোভ শুরু হয়।
প্রতিদিনই যেন আরও উত্তপ্ত হয়ে উঠছে বার্সেলোনা। প্রতিবাদকারীরা বলছেন, শান্তিপূর্ণ আন্দোলন আর আলোচনার মাধ্যমে সংকট নিরসনে বারবার ব্যর্থ হয়ে ক্লান্ত তারা। তাই সব বুলিতে আস্থা হারিয়ে এবার তারা অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠেছেন। আর এতে বিশ্ববাসীর মনযোগও পাওয়া গেছে বলে দাবি বিক্ষোভকারীদের। আন্দোলনকারীদের দ্রুত শান্ত করা না গেলে এ পরিস্থিতি হতে পারে ভয়াবহ।
উদ্ভুত সংকট নিরসনে শনিবার কাতালোনিয়া অঞ্চলের প্রধানের সঙ্গে আলোচনায় বসার কথা থাকলেও তা বাতিল করে দেন স্পেনের ভারপ্রাপ্ত প্রধানমন্ত্রী পেদ্রো সানচেজ। আন্দোলনকারীদের বিচ্ছিন্নতাবাদী অভিহিত করে তিনি বলেন, চলমান সহিংস আন্দোলনের নিন্দা না জানানো পর্যন্ত কাতালান সরকারের সঙ্গে কোন ধরণের বৈঠক করবে না স্পেন সরকার।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
Latest News
আপনিও লিখুন
ছবি ভিডিও টিভি
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop