ksrm

খেলার সময়রাজশাহীর বিপক্ষে খুলনার জয়, ঢাকা মেট্রোপলিনকে হারালো সিলেট

সময় সংবাদ

fb tw
somoy
শেষ হলো দ্বিতীয় রাউন্ডের খেলা। খুলনায় রাজশাহী বিভাগকে ৭ উইকেটের বড় ব্যবধানে হারিয়েছে স্বাগতিক খুলনা বিভাগ। অন্য ম্যাচে, বগুড়ায় ঢাকা মেট্রোপলিনকে ৮ উইকেটে হারিয়েছে সিলেট বিভাগ। এদিকে, নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় চট্টগ্রাম বিভাগের বিপক্ষে ড্র করেছে বরিশাল বিভাগ। আর চট্টগ্রামে ঢাকা বিভাগ ও রংপুর বিভাগের মধ্যকার ম্যাচটিও অমীমাংসিতভাবে শেষ হয়েছে।
রূপসা পাড়ে স্বাগতিকদের সাথে শেষ দিনের লড়াইটা জমবে রাজশাহীর। মাত্র চার রানেই ওপেনার এনামুল হককে ফিরিয়ে এমন আভাষই দিয়েছিলেন পেসার শফিউল। তবে তৃতীয় দিনের ছন্দটা আর থাকলো কই! পাশার দান উলটে গেলো সৌম্য-মিঠুনদের দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে।
শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে আগের দিনের ১৫ রান আর ৯ উইকেট হাতে নিয়ে ১২৩ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নামে খুলনা বিভাগ। ব্যাট হাতে এদিন ওয়ানডে মেজাজে খেলা শুরু করেন সৌম্য আর ইমরুল। ২২ রানে ইমরুল ফিরলেও রানের চাকাটা সচল রাখেন মোহাম্মদ মিঠুন। সানজামুলের শিকার হওয়ার আগে জাতীয় দলের এই মিডল অর্ডারের নামের পাশে ২৭ রান।
বাকি ক'টা রান তুলতে সময় নেননি মিরাজ। ৮ বলে ২ চারে তোলেন অপরাজিত ১৪ রান। আর ৫৯ বলে ফিফটি তুলে দলকে জয়ের বন্দরে নোঙর করান ওপেনার সৌম্য। এর আগে ২য় ইনিংসে রাজশাহী ১৭০ রানে গুটিয়ে গেলে ১২৩ রানের টার্গেট পায় রাজ্জাক বাহিনী। ম্যাচ সেরা খুলনার প্রথম ইনিংসে অপরাজিত ৯৭ রান করা নুরুল হাসান।
ফলাফল এসেছে বগুড়ার মাঠেও। সিলেট ওপেনার ইমতিয়াজের শতকের কাছে রঙ হারিয়েছে মাহমুদুল্লাহর শতক। আগের দিনের ২২৫ রান আর হাতে ৪ উইকেট নিয়ে মাঠে নামেন শতক থেকে ৫ রান দূরে থাকা মাহমুদুল্লাহ, সাথে শহীদুল ইসলাম। দলীয় ২৫০ রানে শহীদুল আর ১৫ রান পরেই প্যাভিলিয়নে ফেরেন মাহমুদুল্লাহ। শেষ দুই উইকেটে ঢাকা মেট্রোর স্কোরবোর্ডে যোগ হয় মাত্র ৮ রান। ২০৩ রানের লক্ষ্য দাঁড়ায় সিলেটের সামনে।
শহীদ চান্দু স্টেডিয়ামের দর্শক হয়তো ভেবেই নিয়েছিলো দেখা মিলবে অমীমাংসিত ম্যাচের। তবে ইমতিয়াজের অপরাজিত সেঞ্চুরিতে সে আশঙ্কা রূপ পায়নি বাস্তবতার। সাথে জাকির হাসানের ১০৫ বলে ৭২ রানের ইনিংসে মাত্র ২ উইকেট হারিয়েই জয় তুলে নেয় সিলেট বিভাগ। দলের জয়ে অবদান রাখতে পেরে সন্তুষ্ট ইমতিয়াজ।
এদিকে, চট্টগ্রামে রানের বন্যা ছুটিয়েছেন ঢাকা আর রংপুর বিভাগের ব্যাটসম্যানরা। প্রথম ইনিংসে ঢাকা বিভাগের হয়ে সাইফ হাসানের অপরাজিত ২২০ এর জবাব টা লিটন দাস আর নাঈম ইসলামের সেঞ্চুরিতে দিয়েছে রংপুর। এছাড়াও ড্র হওয়ার আগে দুই ইনিংস মিলিয়ে এই ম্যাচ দেখেছে ৪ ফিফটিও। ম্যান অব দ্য ম্যাচের টাইটেলটা ডাবল সেঞ্চুরিয়ান সাইফের নামে। এছাড়াও ফতুল্লাতেও কোনো নিষ্পত্তি করতে পারেনি চট্টগ্রাম আর বরিশাল।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
Latest News
আপনিও লিখুন
ছবি ভিডিও টিভি
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop