ksrm

মহানগর সময়খোকার জানাজায় জনতার ঢল

সময় সংবাদ

fb tw
রাজনৈতিক সতীর্থ, সহযোদ্ধা, সমর্থক ও শুভাকাঙ্ক্ষীদের শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় সিক্ত হচ্ছেন মুক্তিযোদ্ধা ও বিএনপি নেতা সাদেক হোসেন খোকা। সংসদ ভবন প্রাঙ্গণে জানাজা, শহীদ মিনারে সর্ব সাধারণের শ্রদ্ধা জ্ঞাপনের পর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে জানাজা শেষে তাকে নেয়া হয়েছে ধূপখোলায় নিজ বাসায়। দলমত নির্বিশেষে তাকে অন্তিম বিদায় জানাতে এসেছিলেন রাজনৈতিক অঙ্গনের মানুষেরা।
দেশের মাটিতে ফিরেছেন সাদেক হোসেন খোকা। বৃহস্পতিবার (০৭ নভেম্বর) সকালে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে তার মরদেহবাহী ফ্রিজিং গাড়ি সংসদ ভবনের উদ্দেশে রওনা দিলে রাস্তায় ভিড় করেন দলীয় নেতাকর্মীরা।
বেলা ১১টার দিকে সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় অনুষ্ঠিত হয় তিনবারের সংসদ সদস্যের জানাজা। এতে অংশ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতারা।
এসময় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ বলেন, খোকা একজন খাটি মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন। তার অবদান আমরা কখনো ভুলবো না।
আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য তোফায়েল আহমেদ বলেন, সাদেক হোসেন খোকা মানুষ হিসেবে অত্যন্ত ভদ্র ছিলেন, অমায়িক ছিলেন। তিনি সবার সাথে বন্ধুসূলভ ব্যবহার করতেন।
বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ বলেন, অত্যন্ত দুঃখের বিষয়, মৃত্যুর সময় তাকে সেই রাষ্ট্রের একটা পাসপোর্ট দেয়া হয়নি যে রাষ্ট্র সৃষ্টি করার জন্য তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছিলেন।
সাদের হোসেন খোকার বড় ছেলে ইশরাক হোসেন বলেন, বাবা সবসময় বলতেন, যে দেশ স্বাধীন করেছি সেই দেশে আমাকে কি কফিনে করে যেতে হবে।'
গেরিলা যোদ্ধা থেকে জননেতা বনে যাওয়া সাদেক হোসেন খোকার মরদেহ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে আনার পর শ্রদ্ধা জানান সর্বস্তরের মানুষ। একজন মুক্তিযোদ্ধা প্রতি ভালোবাসা জানাতে আসেন অনেকেই।
সংগীতশিল্পী ফকির আলমগীর বলেন, আমরা খোকাকে বাঁচিয়ে রাখবো একজন রাজনীতিবিদ হিসেবেই নয়, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায়।
সিপিবির সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বলেন, মেয়র থাকা অবস্থায়ও সে যেভাবে দলমত নির্বিশেষে সবাইকে সঙ্গে নিয়ে ঢাকাবাসীর জন্য কাজ করে গেছেন সেটা বিশেষভাবে আকর্ষণীয় ছিলো।
শহীদ মিনার থেকে দুপুর ১টার দিকে নয়াপল্টনে বিএনপি'র কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে নিয়ে যাওয়া হয় দলের ভাইস চেয়ারম্যান খোকাকে। কর্মী-সমর্থকদের ভিড়ে যেন তিলধারণের ঠাঁই ছিল না সেখানে। জনাকীর্ণ রাজপথে অনুষ্ঠিত হয় দ্বিতীয় জানাজা।
সেখানে মীর্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আজকে গণতন্ত্রকে প্রতিষ্ঠিত করার জন্য, দেশনেত্রীকে মুক্ত করার জন্য যখন সমস্ত মানুষ ঐক্যবদ্ধ হচ্ছে তখন এই মানুষটাকে আমাদের খুব বেশি প্রয়োজন ছিল।
ঢাকার সাবেক মেয়র খোকার তৃতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হয় দক্ষিণ সিটি করপোরেশেন ভবনের সামনে। এরপর তার মরদেহ নেয়া হয় গোপীবাগে প্রিয় বাসভবনে। বিকেলে ধুপখোলা মাঠে সবশেষ জানাজা শেষে জুরাইন কবরস্থানে নেয়া হয় সাদেক হোসেন খোকাকে। গার্ড অব অনার দেয়ার পর সেখানে শায়িত হন তিনি।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
Latest News
আপনিও লিখুন
ছবি ভিডিও টিভি
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop