বাংলার সময়‘মা বলছিল, বাড়ি আইতেছি, চিন্তা কইরো না'

সময় সংবাদ

fb tw
somoy
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলায় আন্তনগর তূর্ণা নিশীথা ও আন্তনগর উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেনের সংঘর্ষের প্রায় ১৬ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন অর্ধশতাধিক। নিহতদের মধ্যে ১০ জনের পরিচয় জানা গেছে। তাদের মধ্য দুজন হলেন কাওসার (২৮) ও সবুজের (২৪) বাবা–মা।
মঙ্গলবার (১২ নভেম্বর) সকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বায়েক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে রাখা বেঞ্চে বিষন্নমুখে বসে ছিলেন দুই ভাই কাওসার ও সবুজ। পাশে তিন চাচা কেঁদে চলেছেন।
কাওসার বললেন, তার বাবা মুজিবুর রহমান ও মা কুলসুম আরা উপবন এক্সপ্রেস ট্রেনে শ্রীমঙ্গল থেকে চাঁদপুরে ফিরছিলেন।
মুজিবুর–কুলসুমের তিন ছেলের মধ্যে কাওসার বড়। সবুজ ঢাকায় একটি আইসক্রিম কারখানায় কাজ করেন। আর ছোট ছেলের নাম ইয়াসিন (১৮)। তাদের বাড়ি চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ উপজেলার রাজারগাঁও উত্তর ইউনিয়নের রাজারগাঁও গ্রামে।
কাওসার বলেন, গতকাল রাত আটটার সময় মা কুলসুম আরার সঙ্গে সবশেষ মুঠোফোনে কথা হয় তার। মা বলেছিলেন, তারা বাড়ি আসছেন। রওনা হয়েছেন। ছেলেকে দুশ্চিন্তা না করতে বলেছিলেন।
এর আগের দিন বাবার সঙ্গেও কথা হয়েছিল তার। বাবা তাকে বলেছিলেন, মেজ ছেলে সজীব টাকাপয়সা বেশি খরচ করে ফেলে। ওকে যেন বুঝিয়ে শুনিয়ে খরচ কমানো যায়। আহাজারি করে কাওসার বলেন, ‘মা বলছিল, বাড়ি আইতেছি, চিন্তা কইরো না।’

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
Latest News
আপনিও লিখুন
ছবি ভিডিও টিভি
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop