প্রবাসে সময়পুড়েছে অস্ট্রেলিয়া, ক্ষতির মুখে প্রবাসী বাংলাদেশিরা

সময় সংবাদ

fb tw
somoy
পুড়েই চলেছে অস্ট্রেলিয়া। নিউ সাউথ ওয়েলসের ১৬০টির বেশি স্থানে আগুন ছড়িয়ে পড়ার পর দাবানল ভয়াবহ রূপ নিতে পারে বলে আশঙ্কা কর্তৃপক্ষের। ইতোমধ্যে কয়েক হাজার মানুষকে নিরাপদে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। শুষ্ক আবহাওয়ার কারণে সিডনিসহ দেশটির পূর্বাঞ্চলীয় উপকূলে আগুন ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে সতর্ক করেছে কর্তৃপক্ষ।
ক্রমেই ভয়াবহ রূপ নিচ্ছে নিউ সাউথ ওয়েলসের দাবানল। শুক্রবার থেকে শুরু হওয়া দাবানলে ১০ লাখের বেশি হেক্টর জমি পুড়ে গেছে, ধ্বংস হয়েছে দুই শতাধিক বসতবাড়ি। প্রবল বাতাস ও শুষ্ক আবহাওয়ার কারণে আগুন দ্রুত অন্যান্য স্থানেও ছড়িয়ে পড়ছে।
ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে স্থানীয়দের নিরাপদে সরে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। আগুন থেকে দূরে নিরাপদ স্থান ও বিভিন্ন শপিংমলে আশ্রয় নেয়ার পরামর্শ তাদের। এছাড়া বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে ছয় শতাধিক স্কুল ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।
স্থানীয়রা বলছেন, ২৭ বছর ধরে আমরা এখানে আছি। এমন ভয়াবহ পরিস্থিতি আগে কখনো দেখিনি। আগে ব্লু মাউনটেইন্সে ছিলাম। সেখানেও দাবানল হতো। তবে ঘর বাড়ি পুড়ে যাওয়ার পরিস্থিতি কখনো সৃষ্টি হয়নি।
আগুনের ভয়াবহতা আরও বাড়বে বলে আশঙ্কা কর্তৃপক্ষের। অস্ট্রেলিয়ার ইতিহাসে দেশটি সবচেয়ে ভয়াবহ দাবানলের মুখোমুখি হতে যাচ্ছে বলেও সতর্ক করা হয়। হান্টার, বৃহত্তর সিডনি, ইলাওয়ারা ও সাউথ কোস্ট সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থানে রয়েছে।
নিউ সাউথ ওয়েলস ফায়ার সার্ভিসের কমিশনার শেন ফিটসিমন্স বলেন, আমরা যেমনটা আশঙ্কা করেছিলাম তাই হচ্ছে। নিউ সাউথ ওয়েলসের উত্তরাঞ্চলে এখনো দাবানল অব্যাহত রয়েছে। তার ওপর আবহাওয়া আমাদের অনুকূলে না থাকায় পরিস্থিতির আরও অবনতি হচ্ছে। তাই যারা এখনো দাবানলের আশপাশে রয়েছে তারা যেন নিরাপদে চলে যান সে আহ্বান জানাচ্ছি।
আগুন নিয়ন্ত্রণে দিন রাত কাজ করে যাচ্ছেন ফায়ার সার্ভিসের কয়েক হাজার কর্মী। তবে তীব্র বাতাসের কারণে আগুন নেভাতে বেশ বেগ পেতে হচ্ছে তাদের। ভয়াবহ আগুনে ফায়ারসার্ভিস কর্মীসহ এখন পর্যন্ত শতাধিক দগ্ধ মানুষকে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।
শুষ্ক মৌসুমে দাবানল অস্ট্রেলিয়ার জন্য স্বাভাবিক ঘটনা হলেও গ্রীষ্মকালের আগেই এমন ভয়াবহ আগুনে হতবাক অনেকেই। তবে পরিবেশ বিজ্ঞানী ও বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সাম্প্রতিক সময়ে অস্ট্রেলিয়ার দাবানলের সময়কাল আগের তুলনায় অনেক বেড়েছে। আর এ জন্য জলবায়ু পরিবর্তনকেই দায়ী করছেন তারা।
অস্ট্রেলিয়ার ভয়াবহ দাবানলে কোনো বাংলাদেশির হতাহতের খবর পাওয়া না গেলেও আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছেন প্রবাসী ব্যবসায়ীরা। এমন পরিস্থিতি উদ্বিগ্ন তারা।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
Latest News
আপনিও লিখুন
ছবি ভিডিও টিভি
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop