মহানগর সময়আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পোশাক পরে চলছে ছিনতাই-ডাকাতি

খান মুহাম্মদ রুমেল

fb tw
সাম্প্রতিক সময়ে রাজধানীতে দেখা মিলছে একশ্রেণির আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যের। যারা গ্রেফতার করছে বিভিন্ন মামলার আসামিদের। তাদের রয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পোশাক, হ্যান্ডকাপ ওয়াকিটকি এমনকি অস্ত্রও। তবে পুরো বিষয়টি ভুয়া। আসলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয়ে ছিনতাই ডাকাতি করে বেড়াচ্ছে তারা।
কথা হয় এমন চক্রের কয়েক সদস্যের সঙ্গে। বলছেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয় দিয়ে সহজেই ঘটানো যায় ছিনতাই। তাই এ পরিচয় ব্যবহার করেন তারা।
এদিকে পুলিশ বলছে, এরকম একটি চক্রকে ধরতে গিয়ে সম্প্রতি পুলিশকে গুলি ছোড়ে অপরাধীরা। নিহতও হয় একজন এক ভুয়া র‌্যাব।
রাজধানী একটি ব্যস্ততম সড়ক। রাস্তায় সবধরণের যানবাহন, মানুষের চলাচল সব মিলিয়ে নিত্যদিনের কোলাহল মুখর চিত্র। একটি বাস এসে থামে স্টপেজে। হঠাৎ এগিয়ে যায় র‌্যাবের জ্যাকেট পরা এক ব্যক্তি। পিছু পিছু আরো একজন। পাশেই এসে থামে একটি কালো গ্লাসের মাইক্রোবাস। কয়েক মিনিট পর নামিয়ে আনা হয় এক ব্যক্তিকে। টেনেহিঁচড়ে তোলার চেষ্টা মাইক্রোবাসে। আশপাশে দাঁড়িয়ে দেখছেন অসংখ্য মানুষ। কিন্তু প্রতিবাদ করছেন না কেউই। এক পর্যায়ে কথিত মামলার কথিত আসামিকে নিয়ে চলে যায় মাইক্রোবাসটি।
পুরো ঘটনাটিই মিথ্যা। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয়ে সবার সামনেই ঘটে যায় একটি ভয়াবহ ছিনতাইয়ের ঘটনা। কথা হয় এমন এক চক্রের কয়েক সদস্যের সঙ্গে।
তারা বলছেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয় ব্যবহার করলে কেউ প্রতিবাদ করার সাহস পায় না। তাই এ পরিচয়ে ছিনতাই ডাকাতি করেন তারা।
তারা বলেন, আমরা পরিচয় দিই যে আমরা র‌্যাবের লোক, তোমার নামে মামলা আছে, তোমার ব্যাগে অবৈধ-জাল টাকা আছে, তুমি ইয়াবার ব্যবসা করো, তোমাকে গ্রেফতার করলাম, তুমি গাড়িতে ওঠো। র‌্যাবের কোটি থাকে আমাদের গায়ে। র‌্যাবের কথা বলে তাদের গাড়িতে উঠাই। কিছুদূর গিয়ে ফাঁকা জায়গা পেলে তাদের কাছ থেকে টাকা পয়সা নিয়ে রেখে গাড়ি থেকে নামিয়ে দিই।
পুলিশ বলছে, রাজধানীর বাড্ডা, খিলক্ষেত কিংবা বনানী এলাকাতে এ ধরনের অপরাধ বেশি ঘটছে। এসব এলাকা থেকে টার্গেট ব্যক্তিকে মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে তিনশফুট সড়কের নির্জনস্থানে চলে যায় অপরাধীরা। টাকা পয়সা সব ছিনিয়ে নিয়ে নামিয়ে দেয় গাড়ি থেকে। কখনো টাকা না পাওয়া পর্যন্ত জিম্মি করে রাখে ভিক্টিমকে।
গোয়েন্দা ও অপরাধ তথ্য বিভাগের উপ কমিশনার মশিউর রহমান বলেন, মানুষ মোবাইলে ভিডিও করে ফেলতে পারে। এখন সবার মোবাইলে স্পষ্ট ভিডিও হয়। পারলে তারা ওই দলটি র‌্যাবের কোন ইউনিট থেকে এসেছে তা জানতে চাইতে পারে। সেই তথ্যের ভিত্তিতে আমরা তাদের আটক করতে পারবো।
গেলো সপ্তাহে রাজধানীর বাড্ডায় এরকম একটি চক্রকে ধরতে গেলে গোয়েন্দা পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত একজন। আহত হয় আরো দুজন।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
Latest News
আপনিও লিখুন
ছবি ভিডিও টিভি
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop